ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

আকস্মিক নানা ইস্যুতে উত্তপ্ত দেশ, কীসের ইঙ্গিত 

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৭:১২, ২৪ নভেম্বর ২০২১

আকস্মিক নানা ইস্যুতে উত্তপ্ত দেশ, কীসের ইঙ্গিত 

হঠাৎ করেই যেন উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে দেশ, বিশেষ করে রাজধানী। গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়ার দাবিতে আন্দোলন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর আন্দোলন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ইস্যুতে দলটির আন্দোলন - সবকিছু মিলিয়ে বেশ একটা উত্তপ্ত পরিস্থিতি। 

কিন্তু আকস্মিক কেন নানা আন্দোলনের সূচনা, এবং প্রায় সমসাময়িক সময়ে? বিষয়টি নিয়ে ভাবার অবকাশ আছে বলে মনে করেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, হাফ ভাড়া বা বেতন বাড়ানোর আন্দোলন যৌক্তিক। বিএনপিও তাদের দলীয় প্রধানের ইস্যুতে রাজপথে আছে। কিন্তু এর মধ্যে আশঙ্কার বিষয়টি হলো, নির্ভেজাল কোনো আন্দোলনকে পুঁজি করে কেউ না আবার রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের চেষ্টা করে, অথবা হয়তো করছেও। সন্দেহ আরো ঘনীভূত হয় যখন দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অলিখিতভাবে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে বলার খবর আসে সংবাদমাধ্যমে। 

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বেতন বৃদ্ধির দাবিতে রাজধানীর মিরপুরে সড়ক অবরোধ করে গার্মেন্ট শ্রমিকরা। এ সময় তাদের লাঠিসোটা নিয়ে বিক্ষোভ করতে দেখা যায়। একই দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করেও বিক্ষোভ করেন পোশাক শ্রমিকরা। ফলে মহাড়কের দুই পাশে ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়।

মিরপুরে আন্দোলনরত গার্মেন্ট শ্রমিকরা জানান, বাড়ি ভাড়া, খাবার খরচসহ সব পণ্যের দাম বেড়েছে। অথচ তাদের বেতন-সুবিধাদি বাড়েনি। তাই বেতন বাড়ানোর দাবিতে তিনদিন আগে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করলে মালিকপক্ষ সন্ত্রাসী বাহিনী ভাড়া করে শ্রমিকদের ওপর হামলা চালায়। এর প্রতিবাদেই আজ মাঠে তারা। 

এদিকে হাফ ভাড়ার দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে আন্দোলন করে চলেছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। সেই আন্দোলনে হামলা চালাতে দেখা গেছে তিতুমীর ও ঢাকা কলেজের প্রভাবশালী এক ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের। এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি মেনে নিতে সরকারকে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিয়েছে। 

অন্যদিকে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার ইস্যুতে চলমান আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) থেকে দেশব্যাপী নানা কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। আজ বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের অঙ্গ ও সহযোগী সব সংগঠনের সঙ্গে যৌথসভা শেষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। 

বিশ্লেষকদের মতে, সবমিলিয়ে আগামী কয়েকটি দিন দেশে কী পরিস্থিতি হয় তা নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে সবার মধ্যে। এদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ‘সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা’ (যদিও সরকারের দায়িত্বশীল কোনো ব্যক্তি এ বিষয়ে মুখ খোলেননি বা কোনো প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি) নিয়েও জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) রাতেই খবর ছড়িয়ে পড়ে যে, দেশে ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে দায়িত্বশীল কারো মন্তব্য এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।
  
অবশ্য নাম প্রকাশ না করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাত থেকে সারাদেশে অঘোষিত রেড অ্যালার্ট শুরু হয়েছে। দেশজুড়ে বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা তৎপরতা। পুলিশের দায়িত্বশীল যেসব কর্মকর্তা ছুটিতে ছিলেন, তা বাতিল করে তাদের দ্রুত নিজ নিজ কর্মস্থলে ফেরার আদেশ দেয়া হয়েছে। 
 
সূত্রটি আরো জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ যাতে গুজব ছড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে না পারে, সেজন্য সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে পুলিশকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।  

প্রশ্ন হলো, বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলন চলছে, দেশজুড়ে অঘোষিত রেড অ্যালার্ট - এগুলো কীসের আলামত? তাহলে কি সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে তৎপর কোনো গোষ্ঠী? তারা কি চাইছে এসব আন্দোলনের সুযোগ নিয়ে ফায়দা হাসিল করতে? শিক্ষার্থী ও গার্মেন্ট শ্রমিকদের আন্দোলন কি রাজনৈতিক উস্কানিতে পথভ্রষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে? 

সব প্রশ্নের উত্তর হয়তো এখনই জানা যাবে না, তবে সময় নিশ্চয়ই বলে দেবে কে ছিল কুশীলব আর কে করেছে স্বার্থসিদ্ধি।