ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ
ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার ঘরোয়া উপায়
ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার ঘরোয়া উপায়

প্রতিটি মানুষের স্বপ্ন থাকে প্রাণবন্ত ও উজ্জ্বল ত্বক। কেননা প্রাণবন্ত ও উজ্জ্বল ত্বক মানুষের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয় দ্বিগুণ। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত পরিবেশের দূষণ এবং স্ট্রেস আপনার একসময়ের উজ্জ্বল এবং সুস্থ ত্বককে নিস্তেজ ও প্রাণহীন করে তোলে। যার ফলে বয়সের ছাপ পরে আমাদের চেহারায়। তবে ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য বেশ কয়েকটি ঘরোয়া পদ্ধতি আছে। যা ব্যবহারে আপনার ত্বকের অতি-কাঙ্ক্ষিত আভা ধরে রাখতে পারবেন। কেননা পুনরুজ্জীবিত ত্বক আমাদের অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস প্রদান করে স্ট্রেস কমিয়ে দেয়। তাহলে চলুন জেনে নেই ঘরোয়া উপায়ে ত্বককে উজ্জ্বল করে, ত্বকের যৌবন ধরে রাখার উপায়।

শুক্রবার, ১৭ জুন ২০২২, ১৩:১৫

মানসিক চাপ হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়
মানসিক চাপ হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়

ভারতের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী কেকে মারা যাওয়ার পর থেকে হৃদরোগের বিষয়ে জানার আগ্রহ বেড়েছে সবার মনেই। মঞ্চে পুরোদমে গান গাওয়ার কিছুক্ষণ পর হোটেলে ফিরেই মৃত্যুবরণ করেন কেকে। চিকিৎসকরা জানান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন এই শিল্পী। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হৃদরোগের পেছনে থাকতে পারে একাধিক কারণ। উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল এমনকি মানসিক চাপও হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানসিক চাপ বেড়ে গেলে তা উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোকসহ বিভিন্ন ধরনের সংবহনতন্ত্র সংক্রান্ত সমস্যা তৈরি করতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী মানসিক চাপের ফলে মানসিক অস্থিরতা, অবসাদ কিংবা অনুভূতির আকস্মিক বদল মতো দেখা দিতে পারে। মানসিক চাপ, পেশির দুর্বলতা, ক্লান্তি, মাথা যন্ত্রণা কিংবা অনিদ্রার মতো সমস্যাও ডেকে আনতে পারে। তবে মানসিক চাপের সঙ্গে হৃদরোগের সম্পর্ক কোথায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানসিক চাপ বা ‘স্ট্রেস’ হৃদযন্ত্র ও সংবহনতন্ত্রের ক্ষতি করতে পারে। মানুষের হৃদযন্ত্র ও হৃদযন্ত্রের রক্তপ্রবাহের সঙ্গে শারীরিক ও মানসিক চাপের কী সম্পর্ক, তা জানতে ২০২১ সালে ৯০০ জন মানুষের উপর একটি গবেষণা করা হয়। গবেষণায় দেখা যায়, অতিরিক্ত মানসিক চাপ হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ও কার্যকারিতার উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। ৫২টি দেশের ২৪ হাজারেরও বেশি রোগীর উপর করা আরও এক গবেষণাতেও ধরা পড়েছিল বিষয়টি। ওই সমীক্ষায় দেখা যায়, দীর্ঘ ৫ বছর মানসিক চাপে ভোগা মানুষের মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অন্যদের তুলনায় দ্বিগুণ। বিশেষজ্ঞদের মতে, মূলত মস্তিষ্কের ‘অ্যামিগ্ডালা’ নামক একটি অংশ এই মানসিক চাপ তৈরির প্রক্রিয়ার সঙ্গে সম্পর্কিত। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, কেউ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়লে এই অংশ সক্রিয় হয়ে ওঠে। মস্তিষ্ক এরপর দেহকে নির্দেশ দেয় স্ট্রেস হরমোন উৎপাদন করতে। এই হরমোনের প্রভাবে হৃদ্পিণ্ডে রক্তের প্রবাহ কমে যেতে পারে। আকস্মিক বিপদের সময়ে হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণে আনতে এই বিষয়টি খুবই কার্যকর। তবে দীর্ঘক্ষণ ধরে এই প্রক্রিয়া চলতে থাকলে তা সংবহনতন্ত্রের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। এতে দেখা দেয় রক্তনালির প্রদাহ, স্থূলতা কিংবা ইনসুলিনের কাজের পথে বাঁধা সৃষ্টি হওয়ার মতো সমস্যা। এসব কিছুই হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, হৃদদযন্ত্র ভালো রাখতে কমাতে হবে মানসিক চাপ। সূত্র: হেলথলাইন

শনিবার, ৪ জুন ২০২২, ১৩:১২

ত্বকের জন্য ক্ষতিকর যে উপাদান
ত্বকের জন্য ক্ষতিকর যে উপাদান

ত্বকের যত্নে কেউ বাজার থেকে কেনা উপাদান ব্যবহার করেন, কেউ আবার বেছে নেন ঘরোয়া উপায়। তবে ত্বকে ব্যবহৃত সব উপাদানই উপকারী নয়। আমরা না জেনে কিছু উপাদান ব্যবহার করি, যেগুলো আসলে উপকারের চেয়ে ক্ষতি করে। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন কোন উপকরণ ত্বকের জন্য ক্ষতিকর— নারিকেল তেল একসময় অনেকের পছন্দের প্রসাধনী ছিল নারিকেল তেল। আমাদের নানি-দাদিরা ত্বকের যত্নে নারিকেল তেল ব্যবহারের পরামর্শ দিতেন। মনে করা হয়, ত্বককে আর্দ্র ও দাগমুক্ত রাখতে কাজ করে নারিকেল তেল। তবে নারিকেল তেল কোমেডোজেনিক অয়েল। ফলে স্কিন পোরস আটকে যায়। এতে আরও বাড়ে ত্বকের সমস্যা। সোডিয়াম লরেল সালফেট আমরা যেসব শ্যাম্পু, ক্লিনজার এবং বডি ওয়াশ ব্যবহার করি তার প্রধান উপকরণ সোডিয়াম লরেল সালফেট। এই উপাদানগুলো ত্বক পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে, তবে ত্বকে বেশি ক্ষণ রাখলে ত্বকের পানিশূণ্যতা তৈরি হয়। এই রাসায়নিক যৌগ চুল ও ত্বককে ডিহাইড্রেট করে ফেলতে পারে। সেইসঙ্গে সেরামাইডের মাত্রাও কমিয়ে ফেলে। সিলিকন সিলিকনের প্রভাবে বিভিন্ন ময়শ্চারাইজার ও সিরাম আমাদের ত্বককে মসৃণ করে তোলে। সাময়িক উজ্জ্বলতা দিলেও পরবর্তীতে এই উপাদান আমাদের ত্বককে শুষ্ক ও পানিশূন্য করে ফেলে। তাই এড়িয়ে চলতে হবে সিলিকনও। সূত্র : আনন্দবাজার

মঙ্গলবার, ৩১ মে ২০২২, ১৩:০৯