ঢাকা Saturday, 15 June 2024

রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি 

দুঃসহ জীবন পা-হারানো রেবেকার, শাবানার অপেক্ষায় স্বামী-সন্তান

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 10:53, 24 April 2024

আপডেট: 17:56, 24 April 2024

দুঃসহ জীবন পা-হারানো রেবেকার, শাবানার অপেক্ষায় স্বামী-সন্তান

পা হারানো রেবেকা খাতুন এবং মা গুলশানে জান্নাতের খোঁজে ছবি হাতে মেয়ে।

আজ ২৪ এপ্রিল, রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির ১১ বছর পূর্ণ হবে। সেদিনের সেই মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশসহ পুরো বিশ্ব স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিল। ভয়াবহ সেই বিপর্যয়ের রেশ রয়ে গেছে আজও। 

রানা প্লাজার সেই দিনের দুঃসহ স্মৃতি বহন করে চলেছেন দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর রেবেকা খাতুন। তার কথায়, দুই পা হারানোর দুঃসহ স্মৃতি বহন করতে হবে আমাকে, যতদিন বেঁচে থাকব। 

এই উপজেলার আরো একটি পরিবারের স্বামী-সন্তানরা ফিরে আসার অপেক্ষায় আছেন গুলশানে জান্নাত শাবানার। সেদিনের দুর্ঘটনার পর থেকে তিনি নিখোঁজ, এমনকি মেলেনি লাশও। 

সোমবার (২৩ এপ্রিল) সকালে কথা হয় রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় দুই পা হারিয়ে পঙ্গু হয়ে যাওয়া রেবেকা খাতুনের সঙ্গে। একইদিন ওই ঘটনায় নিখোঁজ উপজেলার কাজিহাল ইউনিয়নের ডাঙ্গা গ্রামের গুলশানে জান্নাত শাবানার পরিবারের সঙ্গেও কথা হয় এই প্রতিবেদকের।

রেবেকা বলেন, দুই পা হারিয়ে আজ কর্মহীন হয়ে সারাদিন বাড়িতে বসে কাটাতে হয়। সন্তানদের নিয়ে কোথাও যেতেও পারি না। তাদের প্রয়োজনেও তেমন কাজে আসতে পারি না। 

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি আরো বলেন, হয়তো কিছু টাকা পেয়েছি, কিন্তু কেউ কী আমার পা দুটো ফিরিয়ে দিতে পারবে, যা দিয়ে আমি আগের মতো কাজ করতে পারবো, স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারব? 

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল ঢাকার সাভারে রানা প্লাজাধ্বসে দুই পা হারিয়েছেন দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার আলাদীপুর ইউনিয়নের বারাই চেয়ারম্যানপাড়া গ্রামের মোস্তাফিজার রহমানের স্ত্রী রেবেকা খাতুন (৩৪)।

সেদিনে বর্ণনা দিতে গিয়ে রেবেকা বলেন, ঘটনার আগের দিন অর্থাৎ ২৩ এপ্রিল রানা প্লাজায় ফাটল দেখে বিকেল ৪টায় ছুটি দিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। পরদিন সকাল ৮টায় যথারীতি কাজে এসে বিল্ডিংয়ের ফাটলের কারণে কাজে যোগ দিতে না চাইলে কর্তৃপক্ষ বলেন, বেতন-ভাতাসহ ওভারটাইমের টাকা দেয়া হবে না। সেই সঙ্গে চাকরিচ্যুত করার কথাও জানান তারা। পরিশ্রমের টাকা এবং চাকরি হারানোর ভয়ে সব শ্রমিকের সঙ্গে সেদিন বাধ্য হয়ে রেবেকাও কাজে যোগ দেন। 

তিনি বলেন, ঘটনার দিন সকাল ৯টায় তার মা নিখোঁজ চান বানু নাস্তা খাওয়ার কথা বললে রেবেকা বলেন, অল্প কিছু কাজ আছে মা, এটা শেষ করে একটু পরেই নাস্তা খাব। এরপর তিনদিন আর খাওয়া হওয়া হয়নি। দুর্ঘটনায় অচেতন হয়ে তিনদিন আটকে পড়েছিলাম ওই বিল্ডিংয়ের ধ্বংসস্তূপের নিচে। জ্ঞান ফিরলে দেখি চাদিকে অন্ধকার, বাঁচাও বাঁচাও বলে কারা যেন চিৎকার করছে। তখন আমার তৃষ্ণায় বুক ফেটে যাচ্ছিল। পানি পানি করে চিৎকার করেও পানি পাইনি। নিরুপায় হয়ে গায়ের ঘাম শুষে নেয়াসহ নিজের মূত্র পান করেছি, এরপর আর কিছুই বলতে পারি না। কখন যেন উদ্ধারকর্মীরা এসে আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন। জ্ঞান ফিরলে নিজেকে হাসপাতালের বিছানায় আবিষ্কার করি। আরো পরে জানাতে পারি আমার শরীরে অপরিহার্য অঙ্গ দুটি পা ঊরু পর্যন্ত কেটে ফেলা হয়েছে। এরপর দুই পায়ে আটবার অপারেশন করা হয়। দীর্ঘ এক বছর ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে কর্মহীন হয়ে গ্রামে ফিরি। 

রেবেকা বলেন, সবচেয়ে কষ্টের বিষয় হলো, ওইদিন আমি আমার মা চান বানু ও দাদি কোহিনুর বেওয়াকে হারিয়েছি। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাদের মরদেহ পাইনি। এরই মধ্যে আমার পঙ্গুজীবন জুড়ে আসে প্রথম সন্তান ছিদরাতুন মুনতাহা। বর্তমানে তার বয়স ১০ বছর। সে স্থানীয় বারাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। অপর সন্তান মাদানী আন নুরের বয়স ৪ বছর। 

আক্ষেপ করে রেবেকা বলেন, একটা জীবন্ত লাশ হয়ে বেঁচে আছি। পঙ্গুত্বের কারণে সন্তানদের সব আবদার পূরণ করতে পারি না। ইচ্ছে হলেও অন্য মায়েদের মতো নিজের সন্তানদের বাইরে বেড়াতে নিয়ে যেতে পারি না। স্বামীর প্রয়োজনেও কাজে আসতে পারি না। একটা অভিশপ্ত জীবন নিয়ে বেঁচে আছি।

তিনি বলেন, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী দুই পা হারানো ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১৫ লাখ টাকা পাওয়ার কথা। কিন্তু সেই সময় চিকিৎসাজনিত কারণে ক্ষতিপূরণের ৫ লাখ টাকা কম পেয়েছি। ১৫ লাখ টাকার স্থলে পেয়েছি ১০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র। সেই সঞ্চয়পত্রের লভ্যাংশ প্রতিমাসে ৯ হাজার ১০০ টাকা করে পাই। তা দিয়েই বর্তমানে কোনো রকমে কষ্ট করে চলে আমাদের সংসার।

অন্যদিকে উপজেলার কাজিহাল ইউনিয়নের ডাঙ্গা গ্রামের আতাউর রহমানের স্ত্রী গুলশানে জান্নাত শাবানার স্বামী আতাউর রহমান জানান, শাবানা রানা প্লাজায় সুইং অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন। প্রতিদিনের মতো শাবানা ওইদিন রানা প্লাজায় কাজ করতে যান। এরপর ঘটে সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনা। 

তিনি বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার খোঁজ পাইনি। তবে নিখোঁজ তালিকায় শাবানার নাম ছিল। সেই সূত্র ধরে ওই সময় ১৩ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ পেয়েছি; কিন্তু পাইনি স্ত্রীকে, কিংবা স্ত্রীর মরদেহ। আমার সাজানো সংসার তছনছ হয়ে গেছে। তাকে হারানোর ব্যথা আজো বয়ে বেড়াই। স্মৃতিগুলো মনে পড়ে। সেই সময় আমাদের ছেলে সাজ্জাদ আহম্মেদ সজীবের বয়স ছিল পাঁচ বছর। সে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। মেয়ে সোহানা আফরিন সানু। তখন তার বয়স ছিল তিন বছর। সানু বর্তমানে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণীতে পড়ে। 

শাবানার মেয়ে সানু বলেন, তখন আমি অনেক ছোট ছিলাম। মায়ের চেহারাটা মনে নেই। মা কী জিনিস বুঝি না। অন্যের মাকে দেখি। মাকে খুব কাছে পেতে ইচ্ছে করে। আজ মা থাকলে আমাদের কত আদরযত্ন করতেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজাধ্বস বিশ্বের সবচেয়ে বড় শিল্প দুর্ঘটনার একটি। ওই দুর্ঘটনায় ১ হাজার ১৩৮ জন পোশাক শ্রমিক নিহত হন। পঙ্গুত্ব বরণ করেন ১ হাজার ১৬৯ জন শ্রমিক। আহত হন আরো দুই সহস্রাধিক শ্রমিক। সেদিনের সেই মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় পুরো বিশ্ব স্তম্ভিত হয়ে পড়ে। ভয়াবহ সেই বিপর্যয়ের রেশ রয়ে গেছে আজো। আহতদের অনেকে এখনো আতঙ্কগ্রস্ত। এরই মাঝে বেঁচে থাকার তাগিদে নতুন পথ খুঁজছেন অনেকে। জীবনযুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন ঘুরে দাঁড়ানোর। এ ঘটনায় হওয়া মামলার বিচার এখনো চলমান।