ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

আইলার ১৫ বছর, ক্ষতিগ্রস্থ অনেক পরিবারের রাত কাটছে বেড়িবাঁধে

বাবুল আকতার, খুলনা ব্যুরো

প্রকাশিত: 12:45, 25 May 2024

আইলার ১৫ বছর, ক্ষতিগ্রস্থ অনেক পরিবারের রাত কাটছে বেড়িবাঁধে

আজ সেই ভয়াবহ ২৫ মে। ২০০৯ সালের এই দিনে বয়ে যাওয়া প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের আঘাতে মুহুর্তের মধ্যে লোনা পানিতে তলিয়ে যায় গোটা দক্ষিণ-পশ্চিমের উপকুল। লন্ডভন্ড হয় সুন্দরবন, খুলনার কয়রা, দাকোপ, পাইকগাছাসহ উপকূলীয় বেশ কিছু উপজেলা। সবুজ, শষ্য-শ্যামলে ভরা এ জনপদ স্তম্ভিত হয়ে যায়। প্রাণহানী ঘটে প্রায় অর্ধ শতাধিক মানুষের। ঘর-বাড়ি, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মন্দির, রাস্তা-ঘাট, সেতু-কালভার্ট, মাছ-ফসল, গাছ-পালা, গৃহ-পালিত প্রাণিসহ ভেসে যায় মানুষের নিত্য ব্যবহার্য জিনিসপত্র। 

আজ থেকে ১৫ বছর আগে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলবাসীর জন্য এ দিনটি ছিল অভিশপ্ত। এই দিনটির কথা মনে করলে আজও ভয়ে শিওরে ওঠে উপকূলবাসী। স্বজন হারানোদের মনে করিয়ে দেয় তাদের প্রিয়জনের মুখখানি। মাটি দেয়ার জায়গা অভাবে অনেকের লাশ ভাসিয়ে দিতে হয়েছে। দেখতে দেখতে আইলার ১৫ বছর পার হলেও এখনো ক্ষতিগ্রস্থ বহু পরিবার ঘুরে দাড়াতে পারেনি। কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে ১৫ বছর ধরে দুর্যোগের সাথে যুদ্ধ করে আজও টিকে আছে এ অঞ্চলের অসহায় মানুষ। ক্ষতিগ্রস্থ অনেক পরিবারের ভেড়ীবাধের উপরই এখনও রাত কাটছে।
 
সরেজমিন জানা যায়, দক্ষিণ বেদকাশি, উত্তর বেদকাশি, কয়রা সদর ও মহারাজপুর ইউনিয়নের পাউবোর বেড়িবাঁধের ওপর এখনও অনেক মানুষ সেই থেকে ঝুপড়ি বেঁধে বসবাস করে আসছে। মাথা গোজার ঠাই না পেয়ে শত কষ্টের মধ্যে দিয়ে বেড়িবাঁধকে আকড়ে ধরে রেখেছে তারা। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সম্পদ বলতে যা কিছু ছিল তার সবটুকু জলোচ্ছাসে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। তাছাড়া ঐ সময়কার নদীর প্রবল ভাঙনে শাকবাড়িয়া, কপোতাক্ষ ও কয়রা নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষের বসতভিটা ও আবাদি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। 

গাছপালা শূণ্য কয়রা উপজেলার পরিবেশ এখনো সম্পূর্ণ ফিরে পায়নি তার পূর্বের রূপ। যে কারণে শুকনা মৌসুমে প্রচণ্ড তাপদাহে মানুষের জীবনে বিপর্যয় নেমে এসেছে। লবণাক্ততার কারণে হাজার হাজার হেক্টর ফসলি জমিতে কৃষকরা আজো ঠিকমতো ফসল লাগাতে পারছে না। 

স্থানীয় কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, অত্র এলাকায় কৃষকরা আইলার পর থেকে বিগত কয়েক বছর ধরে বেশকিছু জমিতে ফসল উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছে। এখনও লবণাক্ততার গ্রাস থেকে পূর্ণাঙ্গ রক্ষা পায়নি সমগ্র কয়রা এলাকা। ভেঙে যাওয়া ভয়াবহ পবনা বাঁধ, হারেজখালি, পদ্মপুকুর, শিকারিবাড়ি, পাথরখালি মেরামত হলেও সেই থেকে ১৫ বছর কেটে গেলেও কয়রার ক্ষতিগ্রস্থ ছয়টি ইউনিয়নের কপোতাক্ষ ও শাকবাড়িয়া নদীর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রায় ৬০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধে পর্যাপ্ত মাটি নেই। সুদীর্ঘ কালধরে এ সব বেড়িবাঁধে পাউবো কর্তৃপক্ষ মাটি না দেওয়ায় বাঁধগুলোর সর্বত্র দুর্বল অবস্থা বিরাজ করছে। 

দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের আংটিহারা, খাসিটানা, জোড়শিং, মাটিয়াভাঙা উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের গাতিরঘেরি, গাববুনিয়া, গাজিপাড়া, কাটকাটা, কয়রা সদর ইউনিয়নের ৬নং কয়রা, ৪নং কয়রার পুরাতন লঞ্চঘাট সংলগ্ন এলাকা, ঘাটাখালি, হরিনখোলা, মহারাজপুর ইউনিয়নের উত্তর মঠবাড়ি, দশালিয়া, লোকা, মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের কালিবাড়ি, নয়ানি, শেখেরটেক এলাকার বেড়িবাঁধগুলো অধিকতর ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এ সকল বেড়িবাঁধ সংস্কার করা না হলে যে কোন মুহুর্তে ভেঙে আবোরো গোটা উপজেলা লোনা পানিতে তলিয়ে যেতে পারে। ইতোমধ্যে গাজী পাড়া বাধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তাছাড়া কাটকাটার অবস্থা ভয়াভয়। এ ছাড়া, কয়রা সদর ইউনিয়নের মদিনাবাদ লঞ্চঘাট থেকে গোবরা পর্যন্ত প্রায় এক কিলো মিটার, হরিণখোলা-ঘাটাখালী এলাকায় এক কিলোমিটার, ৬ নম্বর কয়রা এলাকায় ৬০০ মিটার, ২ নম্বর কয়রা এলাকায় ৫০০ মিটার, মহারাজপুর ইউনিয়নের মঠবাড়ি-দশহালিয়া এলাকায় দুই কিলোমিটার, উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের কাটকাটা থেকে শাকবাড়িয়া গ্রাম পর্যন্ত এক কিলোমিটার, কাশির হাটখোলা থেকে কাটমারচর পর্যন্ত৭০০ মিটার, পাথরখালী এলাকায় ৬০০ মিটার ও মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের শেখেরকোনা, নয়ানি, শাপলা স্কুল, তেঁতুলতলার চর ও চৌকুনি এলাকায় তিন কিলোমিটারের মতো বাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে।

স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে বলে জানা গেছে, সেই সময় গোটা জনপদে মানুষের কোন কর্মসংস্থান না থাকায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাড়ি জমালেও ১৫টি বছর শেষে তারা অনেকে এখনো বাস্তভিটায় ফিরতে পারিনি। আইলার ধ্বংসলীলায় ক্ষতিগ্রস্থ কয়রার মানুষের দাবি টেকসই পদ্ধতিতে বেড়িবাঁধ নির্মিত না হলে আগামী দিনগুলো এ অঞ্চলে তাদের বসবাস করা দুরূহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়াবে। আইলার জলোচছাসের পর থেকে এখানকার মানুষ খাবার পানির উৎস্য হারিয়ে বিশুদ্ধ পানির জন্য হাহাকার করছে। অনেক জায়গার অসহায় মানুষগুলো দীর্ঘ ১০/১২ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে নলকুপ থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করছে। ঐ সব এলাকায় পরিকল্পনা মাফিক গভীর নলকুপ স্থাপন ও পুকুর সংস্কার করে পিএসএফ স্থাপন করা গেলে খাবার পানির সংকট থেকে পরিত্রান মিলতে পারে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন অনেকেই। আইলায় ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ঠিকমতো সংস্কারের অভাবে আজো জরার্জীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। প্রায় তিন লক্ষাধিক মানুষের দুর্যোগকালীন সময় নিরপদ স্থানে সরিয়ে নিতে কয়েকটি আশ্রয়কেন্দ্র নির্মিত হয়েছে। তবে এটি পর্যাপ্ত নয় বলে জানা গেছে। উপজেলার অভ্যন্তরীন রাস্তাঘাটগুলো এখনো পুরোপুরি সংস্কার না হওয়ায় অনেকের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

ঝড় থেমেছে, কিন্তু দীর্ঘ ১৫ বছরে কান্না থামেনি। আইলার তাণ্ডবে বিধ্বস্ত খুলনার দাকোপ উপকূলের মানুষের পাশে কেউ নেই। বিশুদ্ধ খাবার পানির হাহাকারে উপজেলার প্রায় দেড়লক্ষাধিক মানুষ। এইদিন এলেই স্বজন হারা কাঁন্নাই আইলা দুর্গত এলাকার আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠে এবং তাদের প্রিয় ছেলে-মেয়ে,বাবা-মা,ভাই বোন,স্বামী-স্ত্রী হারাদের  আত্মার শান্তি কামনায় বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে যায়। আবার কোন কোন পরিবার পৈত্রিক সম্পত্তি বসতভিটা, ঘরবাড়ি সহায় সম্বল হারিয়ে জীবন জীবিকার সন্ধানে চলে গেছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। 

বর্তমানে আইলা দুর্গত এলাকার গ্রামে গ্রামে চলছে খাদ্যবস্ত্র বাসস্থান ও বিশুদ্ধ খাবার পানির তীব্র সংকট। ঘরবাড়ি হারা দুটি উপজেলার এখনো প্রায় সাড় তিন হাজার পরিবার তাদের বসত ভিটা নদী গর্ভে হারিয়ে এবং অনেকে অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বাড়ি ফিরতে পারছে না। ওই সকল পরিবার তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে বাঁধে আশ্রয় গ্রহণ পূর্বক মানবেতর জীবনযাপন করছেন। খুলনার উপকূলীয় দাকোপ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামঘুরে এমন চিত্রই পাওয়া গেছে। বর্তমানে আইলাদুর্গত উপজেলার কামারখোলা ও সুতারখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে মানুষের কপালে কোন রকম দু’বেলা দু’মুঠো ভাত জুটলেও কিন্তু পানি জোটা দায় হয়ে পড়েছে। ওই সকল গ্রামের বেড়িবাঁধের উপর আশ্রিত মানুষের ঘর নেই, জমি নেই, স্কুল নেই, নেই খাবার পানি। এখনো বিভিন্ন স্থানের দুর্গত মানুষেরা লোনা পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে। এলাকায় দিনমজুর শ্রমিকের কোন কাজ নেই। দুর্গত এলাকায় ঘরে ঘরে চলছে নিরব দুর্ভিক্ষ। সরকারি ও বেসরকারিভাবে ত্রাণ হিসাবে পাওয়া পলিথিন এবং বাশ খুটি লাগিয়ে ঝুঁপড়ির মধ্যেই মানবেতর বসবাস করছে দুর্গত এলাকার পরিবার পরিজনেরা। 

সুতারখালী ইউনিয়নের গুনারী গ্রামের তৈয়বুর রহমান, ফজলুল গাজী, কালিপদ সানা, মহিবুর মীর কামারখোলা ইউনিয়নের ফকিরডাংঙ্গা গ্রামের অবনী রায়, প্রহলাদ মন্ডল, বিনোদ বিহারী রায়, শফিকুল ঢালী জানান, আইলার পরবর্তী সময় অনেক জনপ্রতিনিধিদের পদচারণা দেখা গেছে এবং তারা আমাদেরকে পুর্নবাসন করার জন্য অনেক প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিল কিন্তু এখন তাদেরকে আর দেখা যায়না। বর্তমানে এলাকায় কোন কাজ না থাকায় আমাদের পরিবারের পরিজন নিয়ে এখন অনেক দুর্দিনে রয়েছেন। এখন আমাদের খোজ কেউ রাখেনা। এলাকায় খাবার পানির উৎসহ যে সকল পুকুর ছিলো সে গুলি সবই প্রায় শুকিয়ে গেছে। কোথাও খাবার পানি তেমন একটা মিলছেনা। ভাত না খেয়ে থাকা যায় কিন্তু একটু খানি পানির তৃষ্ণা মিটাবার জন্য এলাকায় চলছে হাহাকার। আমরা দুর্গতরা ভাত কাপড় চাইনা আমরা খাবার পানি চাই।

সুতারখালী ইউনিয়ন সূত্রে জানা যায়, এই ইউনিয়নে প্রতিদিন এক লাখ লিটার খাবার পানির প্রয়োজন। প্রতিটি গ্রামে খাবার পানির জন্য হাহাকার চলছে। এখনো পর্যন্ত এ ইউনিয়নের অনেক পরিবার অর্থনৈতিক অভাবের কারণে গৃহ নিমার্ণ করতে না পারায় তারা খোলা আকাশের নিচে ওয়াপদা বেড়িবাঁধের উপর মানবেতর জীবন যাপন করছে। এলাকার পুকুর গুলিতে এ সময়ে খাবার পানির উৎসহ গুলি হারিয়ে যাওয়ায় মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে নতুন মাত্রার দুর্যোগ। 

এদিকে সম্প্রতি বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় রেমেল মোকাবেলায় পাউবো কর্তৃপক্ষ ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে বলে জানা গেছে । এ মুহূর্তে কয়রার প্রায় ১২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের কোথাও কোথাও দেড় থেকে দুই হাত মাটি অবশিষ্ট রয়েছে। বাঁধের অনেক জায়গা দিয়ে বড় জোয়ারে উপচে পানি ছাপিয়ে পড়বে। বেড়িবাঁধের স্পর্শকাতর স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে উপজেলার ১৩-১৪/২নং পোল্ডারের হরিনখোলা ও ঘাটাখালি এলাকায় ১৭০০ মিটার, উত্তর বেদকাশির কাঠমার চর ১০০ মিটার,হোগলা ৪০ মিটার, দশালিয়া থেকে হোগলা পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার বেড়িবাঁধ খুবই নিচু ছোটখাটো  যেকোনো দুর্যোগ গেলেই পানি উপচে লোকালয় প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছ। 

খুলনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় জানায়, গত এক দশকে মে মাসে সাতটি ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছে। এর মধ্যে ২০০৯ সালের ২৫ মে ঘূর্ণিঝড় আইলা, ২০১৩ সালের ১৬ মে ঘূর্ণিঝড় মহাসেন, ২০১৬ সালের ২১ মে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু ২০১৭ সালের ৩০ মে ঘূর্ণিঝড় মোরা, ২০১৯ সালের ৪ মে ঘূর্ণিঝড় ফণী, ২০২০ সালের ২০ মে আম্পান, ২০২১ সালের ২৬ মে ইয়াসে সুন্দরবনসংলগ্ন কয়রায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।এ কারণে মে মাসেই আরেকটি ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাসে আতঙ্কিত কয়রার মানুষ।

কয়রা উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোস্তফা শফিকুল ইসলাম বলেন, কয়রার প্রধান সমস্যা নদী ভাঙন। এটি রোধ করা গেলে মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বেড়িবাঁধ এখনও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জরুরি ভিত্তিতে দেখা দরকার। 

খুলনা পাউবোর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মশিউল আবেদীন বলেন, কয়রার বেড়িবাঁধের ঝুকিপূর্ণ স্থান গুলো চিহ্নিত করে পাউবোর উধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।পর্যায়ক্রমে সেগুলোর কাজ করা হবে। তাছাড়া যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় আমরা সর্বক্ষণ প্রস্তুত আছি।