ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লকডাউন উঠলেও রাজপথ ছাড়েনি রিকশা, যানজট-ভোগান্তি

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৭:২২, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

লকডাউন উঠলেও রাজপথ ছাড়েনি রিকশা, যানজট-ভোগান্তি

করোনা মহামারির কারণে কিছুদিন আগেও গণপরিবহন নিষিদ্ধ ছিল রাজধানীসহ দেশব্যাপী। সে সময় কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছতে জনসাধারণের ভরসা ছিল রিকশা। তবে সময়ের সঙ্গে এখন অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে এসেছে জনজীবন। তুলে নেয়া হয়েছে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ (লকডাউন), খুলেছে অফিস-আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠান। চলছে গণপরিবহনও। কিন্তু এখনো রাজপথে রিকশার ব্যাপক চলাচল বন্ধ হয়নি। এতে রাজধানীর মহাসড়কগুলোয় যান্ত্রিক-অযান্ত্রিক পরিবহনের সমন্বয়হীন চলাচলে যানজট বাড়ছে, ভোগান্তি পোহাচ্ছে সাধারণ মানুষ।   

সরেজমিনে দেখা যায়, সড়কগুলোতে বাস, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিকশাসহ সব ধরনের পরিবহন চলছে। সড়ক-মহাসড়কগুলোতে লকডাউনের সময় বিশেষ প্রয়োজনে রিকশা চলাচলের অনুমতি দেয়া হলেও এখনো সে অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। ফলে রাজধানীর সর্বত্র অবাধে চলছে এই ত্রিচক্রযান। বাস ও প্রাইভেটকার চালকদের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান রিকশা নিয়ে তাদের নানা অভিযোগের কথা। 

লকডাউন উঠে গেলেও কেন রাজপথে রিকশা নিয়ে নামছেন চালকরা- এ বিষয়ে জানতে কথা হয় কয়েকজন রিকশাচালকের সঙ্গে। তাদের একজন ওমর ফারুক। ফার্মগেট এলাকায় রিকশা চালান। তিনি বলেন, অলিগলিতে রিকশা চালিয়ে সংসার চলে না। তাই মহাসড়ক আর গলি মিলিয়েই রিকশা চালান তিনি।

আগারগাঁও মোড়ে রিকশাচালক হাবিব জানান, সংসারে তার দুই ছেলে, স্ত্রী ও মা-বাবা রয়েছেন। সারাদিনে গলিতে রিকশা চালিয়ে জমা দেয়ার পর ৩০০ টাকা আয় করে সংসার চালানো যায় না। সবকিছুর দামও এখন বেড়েছে। বড় রাস্তায় (মহাসড়ক) রিকশা চালালে একটু বেশি ভাড়া পাওয়া যায়।

মগবাজারের রিকশাচালক রিপন বলেন, সব সময় বলে আসছে আমাদের জন্য নাকি জ্যাম সৃষ্টি হয়। মহাখালী, বিজয় সরণি, ফার্মগেটসহ আরো জায়গায় দেখুন, যে জ্যাম হচ্ছে সেখানে রিকশা খুঁজে পাবেন না। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন বলেন, ‘সবাই পারে শুধু গরিবের পেটে লাত্থি মারতে।’

এদিকে রাজধানীর মহাসড়ক-সড়কগুলোয় দায়িত্ব পালনরত কয়েকজন ট্রাফিক সার্জন এ বিষয়ে জানান, ইঞ্জিন ছাড়া আর ইঞ্জিনসহ গাড়ি এক রাস্তায় চললে সমস্যা তো হবেই। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি যানজট নিয়ন্ত্রণের। কিন্তু ঊর্ধ্বতন থেকে নির্দেশ পেলে আরো ভালো হতো। যেখানে-সেখানে রিকশার অবাধ চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা গেলে যানজটও কমবে। 

এ বিষয়ে স্থপতি ইকবাল হাবিব স্টার সংবাদকে বলেন, নিয়মের ব্যত্যয় হলে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। স্কুলগুলো খোলার আগে সরকারের উচিত ছিল গণপরিবহনভিত্তিক ব্যবস্থার উন্নয়ন করা। কিন্তু হঠাৎ করে অনিয়মটা, যেটা করোনার কারণে বিকল্প হিসেবে চালু করা হয়েছিল, সেটা আমাদের আরো পর্যুদস্ত করেছে। এখন প্রতিটি গলির মুখেই যানজট। আমি মনে করি, নিয়ন্ত্রণহীন কোনো ব্যবস্থা যানজট নিরসনে কাজে আসবে না। এখন এই নিয়ন্ত্রণ কাকে করবে, কখন করবে- সে বিষয়ে সরকারের পরিকল্পনা রাখা প্রয়োজন। 

তিনি আরো বলেন, নগরীর প্রধান সড়কগুলোতে অনুমোদনহীন এবং ব্যক্তিগত গাড়ির পাশাপাশি মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ করা অত্যন্ত জরুরি। সেই সঙ্গে গুরুত্বসহকারে বাসের জন্য ট্রাফিক্যাল লেন তৈরি করা প্রয়োজন।