ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

হঠাৎ জামায়াতের ‘নড়াচড়া’, রাজনীতির মাঠে গুঞ্জন

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৪:৫৩, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৫:০৬, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

হঠাৎ জামায়াতের ‘নড়াচড়া’, রাজনীতির মাঠে গুঞ্জন

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের প্রধান শরিক জামায়াতে ইসলামী এখন আর রাজনৈতিক দল নয়, সংগঠন। আদালতের নির্দেশে দলীয় প্রতীক হারিয়ে বিএনপির কাঁধে ভর দিয়ে চলা সংগঠনটি ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে একরকম আন্ডারগ্রাউন্ডেই চলে গিয়েছে। কিন্তু সম্প্রতি যেন হঠাৎ নড়েচড়ে বসতে শুরু করেছে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি জামায়াত।

গোপন বৈঠক করতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরাও পড়েছেন সংগঠনটির আট শীর্ষ নেতা। তাতেই নতুন করে গুঞ্জন-আলোচনা চলছে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে - তাহলে কি আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে জামায়াত? যেহেতু দলের কোনো বৈধতা নেই, সেক্ষেত্রে আবারো কি বিএনপির ঘাড়ে সওয়ার হয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে চাইছে সংগঠনটির নেতারা? নাকি নতুন করে দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির ছক কষছে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী সংগঠনটি?

এমন নানা প্রশ্ন এখন ঘুরে ফিরছে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে। এরই মধ্যে গত ৯ সেপ্টেম্বর ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের জাতীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। করোনা মহামারির কারণে প্রায় এক বছর পর অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে জোর দেয়া হয়েছে দলের সাংগঠনিক ভিত্তি তৃণমূল থেকে সর্বস্তরে আরো জোরদার করার ওপর। দলনেত্রী শেখ হাসিনা সব বিভেদ-কোন্দল ভুলে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী করার পাশাপাশি দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন। এটা থেকে বেশ পরিষ্কার যে, সব রাজনৈতিক দলই এখন আসন্ন জাতীয় নির্বাচনমুখী পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে তৎপর।

দেশের অন্যতম বৃহৎ দল বিএনপিও বসে নেই। দলটির নেতারা বিভিন্ন সভা-সমাবেশ, বক্তৃতা-বিবৃতির মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতে, আন্দোলনে ফেরাতে, রাজপথমুখী করতে। মূলত এসবই যে আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগাম প্রস্তুতিমূলক কর্মকাণ্ড তা বেশ স্পষ্ট। 

এর মধ্যে হঠাৎ জামায়াত নেতাদের গোপন বৈঠক সন্দিহান করে তুলেছে দেশের রাজনৈতিক মহলকে। কারণটা হলো, ২০১২ সাল থেকে প্রায় তিন বছর সরকারবিরোধী আন্দোলনে বিএনপির হয়ে মাঠে সক্রিয় ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীরা। সে আন্দোলনে দলটির জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ছিল মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের দণ্ডপ্রাপ্ত নেতাদের মুক্তি। তবে সে সময় সরকারের যথোপযুক্ত পদক্ষেপের কারণে মাঠের আন্দোলনে সফল হতে পারেনি বিএনপি তথা ২০-দলীয় জোট। এর ফলে ধীরে ধীরে রাজপথের দখল হারিয়ে ২০১৫ সাল থেকে একরকম আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যায় জামায়াত। পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ইস্যুতে ঝটিকা মিছিল করলেও জামায়াতের আর কোনো তৎপরতা চোখে পড়ার মতো ছিল না। 

এদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের ফাঁসির আদেশ কার্যকর হলে আরো কোণঠাসা হয়ে পড়ে সংগঠনটি। মাঝে ২০১৩ সালে হাইকোর্টের এক রায়ে নিবন্ধন অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করা হয় জামায়াতে ইসলামীর। ফলে কার্যত রাজনৈতিক দল থেকে সংগঠনে পরিণত হয় জামায়াত। আদালতের রায়ের প্রায় পাঁচ বছর নির্বাচন কমিশনের নেয়া পদক্ষেপের ফলে রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধনের পাশাপাশি দলীয় প্রতীক দাঁড়িপাল্লাও হারায় জামায়াত। এতে জাতীয় নির্বাচনে দল হিসেবে জামায়াতের অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ হয়ে যায়। এরপরই বিএনপির কাঁধে ভর করে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দলটি।

২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন সংগঠনটির অনেক শীর্ষ নেতা। ঢাকা-১৫ আসনে সর্বশক্তি নিয়োগ করে আওয়ামী লীগের প্রধান বিরোধীশক্তি হিসেবে ২০-দলের হয়ে জামায়াতের নায়েবে আমির ডা. শফিকুর রহমান নির্বাচনে দাঁড়ান। তবে তাদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। নির্বাচনে হেরে গিয়ে আরো যেন খোলসে ঢুকে পড়ে একসময় ধর্মের নাম ব্যবহার করে বিপুল জনপ্রিয়তা পাওয়া জামায়াতে ইসলামী। পরবর্তীকালে সংগঠনটির জ্যেষ্ঠ নেতা আব্দুর রাজ্জাক পদত্যাগ করলে জামায়াতের কর্মকাণ্ড ও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিতর্ক তীব্র আকার ধারণ করে। 

সম্প্রতি জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেলসহ বেশ কয়েকজন সক্রিয় নেতা গ্রেফতার হওয়ায় তাদের তৎপরতা ও পরিকল্পনা নিয়ে ফের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। তাহলে আবারো কি সক্রিয় হওয়ার চেষ্টায় রয়েছে জামায়াতে ইসলামী? আবারো কি ফিরে আসবে অতীতের রাজনৈতিক সংঘাত-সংঘর্ষের দিনগুলো? 

এদিকে জামায়াতের নেতাদের গ্রেফতারের পর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামের বক্তব্যেও মিলেছে তেমন ইঙ্গিত। তিনি বলেছেন, গোপন বৈঠক করার সময় তাদের (জামায়াতে ইসলামীর নেতাদের) গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছে যেসব আলামত পাওয়া গেছে, সেগুলো রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডের।

এ প্রসঙ্গে রাজনীতিবিদ, গবেষক এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক প্রেসিডিয়াম মেম্বার নূহ-উল-আলম লেলিন স্টার সংবাদকে বলেন, জামায়াতে ইসলামী নানা কায়দায় নিজেদের অর্গানাইজড (সংগঠিত) করার চেষ্টা করছে। বাংলাদেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার জন্য যারা দায়ী তাদের মধ্যে জামায়াত অন্যতম একটি শক্তি। জামায়াত যা করে তা বাংলাদেশের স্বার্থে নয়, মানুষেরও কল্যাণে নয়।

২০-দলীয় জোটের অন্যতম বৃহৎ শরিক জামায়াতে ইসলামীকে কখনোই জোটছাড়া করতে রাজি হয়নি জোটের নেতৃত্বে থাকা বিএনপি। এমনকি জোটের অন্যান্য শরিকের ভিন্নমতও এক্ষেত্রে অগ্রাহ্য করেছে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব। দীর্ঘদিন আলোচনার বাইরে থাকা জামায়াতের হঠাৎ করে এমন নড়েচড়ে বসার সঙ্গে আগামী জাতীয় নির্বাচনের সম্পর্ক রয়েছে বলে মনে করছেন রাজনীতি সংশ্লিষ্টরা। বিশেষ করে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন বিষয়ে রাজনৈতিক মেরুকরণের সম্ভাবনা দেখছেন অনেকে। 

দেশের রাজনীতি পর্যবেক্ষকদের মতে, ইসি পুনর্গঠন ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে জামায়াতের যে কোনো ধ্বংসাত্মক ও রাষ্ট্রবিরোধী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন রোধে তৎপর রয়েছে সরকার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সে সূত্র ধরে গ্রেফতার করা হতে পারে জামায়াতের নেতাকর্মীদের। এছাড়া নতুন রাজনৈতিক মেরুকরণের সম্ভাবনার দিকেও আঙুল তুলছেন অনেক রাজনীতি বিশেষজ্ঞ। 

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)-এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান স্টার সংবাদকে বলেন, যুদ্ধাপরাধী দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার দাবি উঠেছিল আগেই। কিন্তু সরকার সেটা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করেনি। বিভিন্ন সময়ে জামায়াতের নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের মহড়া দেয়া হয়, সেটা অনেক সময় মানুষের কাছে বোধগম্য হয় না। এর মধ্যে একটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চলে আসতেই পারে। ফলে জামায়াতে ইসলামীকে সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করার বিষয়ে সরকারের দৃষ্টি দেয়া অতি আবশ্যক বলে মনে করি। তিনি আরো বলেন, ধর্মভিত্তিক গোষ্ঠীকে রাজনৈতিক কাজে যেন ব্যবহৃত করা না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

দীর্ঘদিন পর জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীদের হঠাৎ আবির্ভাব ও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে যোগসূত্র রয়েছে কি না জানতে চাইলে রাজনীতি পর্যবেক্ষক অধ্যাপক ড. শাহেদা ওবায়েদ বলেন, জামায়াত সবসময়ই সক্রিয় ছিল। হয়তো তাদের দৃশ্যমান দেখা যায়নি, কিন্তু আপাত দৃষ্টিতে তারা সক্রিয় ছিল। তাদের বিভিন্ন সময়েই বিনা কারণে গ্রেফতার করা হচ্ছে, রিমান্ডে নেয়া হচ্ছে। তাদের কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে, তা অন্যসব গ্রেফতারের মতোই রহস্যময়। 

তিনি আরো বলেন, নির্বাচন হলো ক্ষমতায় যাওয়ার একটি উপায়। তারা (জামায়াতে ইসলামী) তো চেষ্টা করবেই নির্বাচনে যাওয়ার। যেহেতু তারা দল হিসেবে নিষিদ্ধ, সেহেতু কোনো না কোনোভাবে অন্যের কাঁধে চেপে হলেও তারা চাইবে ক্ষমতার ভাগ পেতে। এক্ষেত্রে সংগঠনটি ভর করে আছে বিএনপির ওপর।