ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ঈদ যাত্রায় ভোগান্তি-দুর্দশা নিত্যসঙ্গী, উৎসব রূপ নেয় বিষাদে

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৯:৫৭, ১৮ এপ্রিল ২০২২

আপডেট: ১৫:২৪, ১৯ এপ্রিল ২০২২

ঈদ যাত্রায় ভোগান্তি-দুর্দশা নিত্যসঙ্গী, উৎসব রূপ নেয় বিষাদে

ঈদ যাত্রার আরেক নাম ভোগান্তি। নানা দুর্দশার মধ্য দিয়ে প্রতি বছরই ঈদের সময় সাধারণ মানুষকে বাড়ি ফিরতে হয়। কিন্তু তারপরও নেই যেন এর কোনো সমাধান। এবার করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায় মানুষের মাঝে উৎসাহ-উদ্দিপনা লক্ষ করা গেলেও চোখ রাঙাচ্ছে অব্যবস্থাপনা মহাসড়কে যাত্রীসাধারণের পুরনো সেই ভোগান্তির চিত্র।    

প্রতি বছরই ঈদ যাত্রার সময় দেখা দেয় ফেরি সংকট, মাইলের পর মাইল দীর্ঘ যানযট। যার অন্যতম কারণ, অব্যবস্থাপনা। ফলে প্রতিবারই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

এদিকে মহাসড়কগুলোর বেহাল অবস্থা এবং ঈদ যাত্রার সময়ে শুরু হয় এর মেরামতের কাজ। নির্মাণকাজ চলমান থাকায় ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ সিরাজগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কাঁচপুর সেতু, বন্ধবন্ধু সেতু শিমুলিয়া ফেরিঘাটে তীব্র যানজটের আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া রয়েছে বাড়তি টাকা আদায়সহ ফিটনেসহীন গণপরিবহন লঞ্চ চলাচলের অভিযোগ। আছে টিকিট কালোবাজারির মতো ঘটনাও।

এ বিষয়ে সড়ক জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী কে এম মনির হোসেন পাঠান স্টার সংবাদকে জানান, ঈদ যাত্রায় গাড়ির চাপের কারণে যানজট বাড়ে, এটা নতুন কিছু নয়। ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। সড়কের কাজের জন্য যানজট তৈরি হওয়ার কথা না। হাইওয়ে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে আমরা কাজ করব।    

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায় এবার ঈদে দ্বিগুণ মানুষ ঢাকা ছাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে আশঙ্কাও রয়েছে দুর্ঘটনার। বিষয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব অধ্যাপক হাদিউজ্জামান বলেন, ঈদ যাত্রায় প্রতিবারের চেয়ে এবার অনেক বেশি ঝুঁকি রয়েছে। ঝুঁকি কিছুটা এড়াতে ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন সহজ করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের পরপরই পরিবারের সদস্যদের আগে বাড়ি পাঠানো যেতে পারে বলে মনে করছেন তিনি।

স্থপতি ইকবাল হাবীব স্টার সংবাদকে বলেন, সবাই চায় একসঙ্গে পরিবার নিয়ে ঈদ করতে। আর তাই নারীর টানে তারা গ্রামে ফিরতে চায়। আর এই ঈদকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর দুর্ঘটনায় অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে। এছাড়া পোহাতে হয় নানা ভোগান্তি। যারা দায়িত্বে আছেন তাদের উচিৎ ঈদের মাস খানেক আগেই সবকিছু ঠিক আছে কিনা তা মনিটরিং করা। সবকিছু সঠিকভাবে মনিটরিং করা হলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তিগুলো অনেকটাই কমবে। যখন দুর্ঘটনা ঘটে তখন তদন্তে আমরা দেখতে পাই বাস বা লঞ্চের ফিটনেস চালকের লাইসেন্স নিয়ে প্রশ্ন উঠে। এগুলো আগে থেকেই দেখভাল করতে পারলে আমাদের ঈদযাত্রা অনেকটাই স্বাভাবিক হবে বলে মনে করছি।

এদিকে বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা কেন্দ্রের ২০১৮ ২০১৯ সালের তথ্যানুযায়ী, করোনার আগে কোটি ১৫ লাখ মানুষ প্রতি ঈদে বাড়ি গেছেন। করোনার সময় তা কম হওয়ায় এবার তা দ্বিগুণ বাড়তে পারে।

করোনা ভাইরাসের কারণে গত দুই বছর একপ্রকারে থমকে ছিল ঈদ যাত্রা। স্বাভাবিকের চেয়ে কম সংখ্যক মানুষকেও ভোগান্তি মাথায় নিয়ে ঢাকা ছাড়তে হয়েছে। পরিবহন স্বল্পতায় গাদাগাদিতে মানুষের পায়ে পিষ্ট হয়ে প্রাণও হারাতে হয়েছে। এমন কি হেঁটে হেঁটে কর্মময় গন্তব্যে ফিরতে দেখা গেছে সাধারণ মানুষকে।