ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বাল্যবিয়ের বলি মেয়েরা, দায়ী অভাব-আতঙ্ক

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ২০:১০, ৮ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ২০:১০, ৮ জানুয়ারি ২০২২

বাল্যবিয়ের বলি মেয়েরা, দায়ী অভাব-আতঙ্ক

ছবি সংগৃহীত

মরিয়ম আক্তার, নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। পরিবারে সে ছাড়াও আছে দুই বোন ও বাবা-মা, গ্রামের বাড়ি বরিশালে। বাবা প্রবাসী হওয়ায় পরিবারে নেই অভাব-অনটন। কিন্তু সৌদি প্রবাসী এক ছেলে পাওয়ায় হাতছাড়া করতে চায়নি মরিয়মের পরিবার। প্রথমে মোবাইল ফোনে বিয়ে হয়। এর কয়েক মাস পর ছেলে দেশে ফিরলে ধুমধাম করে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে দুই পরিবার।

এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল তৃষ্ণা ইসলাম। করোনা ভাইরাসের প্রকোপের সময় বন্ধ হয়ে যায় তার পড়াশোনা। পারিবারিক টানাপোড়েনের কারণে সচ্ছল পরিবার দেখে তাকে বিয়ে দেয়া হয়। পরে শ্বশুরবাড়ি থেকেই এসএসসি পরীক্ষা দেয় তৃষ্ণা। তবে শ্বশুরবাড়ি তাকে আর পড়াতে রাজি নয়। 

খুলনার বাগেরহাটের শরণখোলায় বাড়ি রেশমা আক্তারের। সে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী। পারিবারিক অবস্থা অসচ্ছল না হলেও ২০২১ সালে রেশমাকে বিয়ে দিয়ে দেয় পরিবার।

এমনসব ঘটনা দেশের সব জেলাতে প্রতিনিয়ত প্রকাশ্যে ঘটে চলেছে, বাল্যবিয়ের বলি হচ্ছে মেয়েরা। এর কারণ হিসেবে উঠে এসেছে পরিবারে অসচ্ছলতা ও অভিভাবকদের মেয়েকে নিয়ে দুশ্চিন্তার বিষয়টি। তবে কিছু ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রমও আছে। শুধু ‘ভালো পাত্র হাতছাড়া’ করতে না চাওয়ার জন্যও অনেক অভিভাবক মেয়েদের ঠেলে দেন বাল্যবিয়ের ফাঁসিকাষ্ঠে।   

করোনা মহামারিকালে দেশজুড়ে প্রকট আকার ধারণ করেছে বাল্যবিয়ে দেয়ার প্রবণতা। এর একটা নমুনা পাওয়া যায় কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা অফিসারের দেয়া তথ্যে। তিনি জানিয়েছেন, করোনাকালে এই জেলায় ১০টি স্কুলের ২০০ শিক্ষার্থীর বাল্যবিয়ে হয়েছে।  

এর কারণ হিসেবে জানা যায়, ধরলা নদীর ভাঙনে জেলার অনেক মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়েছেন। ঘরভাঙা এসব মানুষ এখন অনাহার-অর্ধাহারে দিনযাপন করছেন। এমন পরিস্থিতিতে মেয়েদের পড়াশোনা তাদের কাছে অবান্তর বিষয়। পরিবারগুলো চাইছে যত দ্রুত সম্ভব মেয়েকে বিয়ে দিয়ে ঝামেলামুক্ত হওয়া।  

শুধু কুড়িগ্রামই নয়, দেশের অন্যান্য জেলার চিত্রও প্রায় এক। মূলত দারিদ্র্যই এখানে আবির্ভূত হয়েছে ‘ভিলেন’ রূপে। 

জানা গেছে, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলীপুর আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ৪৭০ ছাত্রীর মধ্যে ৬৭ জনেরই ২০২১ সালে বিয়ে হয়ে গেছে। তারা সবাই ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী এবং বয়স ১৭ বছরের মধ্যে।  

এদিকে মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়ে অনিশ্চয়তা-দুশ্চিন্তাও পরিবারকে বাল্যবিয়ের পথে হাঁটতে বাধ্য করছে। পুরুষশাসিত এ সমাজে এখনো কোনো নারী ধর্ষিত হলে ধর্ষকের চেয়েও বেশি লজ্জায় পড়তে হয় মেয়েটিকে। কারণ সমাজ তখন মেয়েটিকে ভিন্নচোখে দেখা শুরু করে। এছাড়া পথে-ঘাটে এমনকি নিজ বাড়িতেও বিভিন্নভাবে যৌন হয়রানি ও নিগ্রহের শিকার হয়ে থাকে অনেক মেয়ে। তাই অভিভাবকরা চান, তাড়াতাড়ি মেয়ের বিয়ে দিয়ে নিশ্চিন্ত হতে। 

বাল্যবিয়ে প্রসঙ্গে মানবাধিকারকর্মী খুশি কবির স্টার সংবাদকে বলেন, করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় ছেলেরা বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। তারা অসামাজিক কার্যকলাপ ও পর্নোগ্রাফিতে যুক্ত হচ্ছে। করোনার সময়টাতে স্কুল খোলা রাখা গেলে এসব ঘটনা কমে আসত। 

তিনি আরো বলেন, এ সময়টায় কিশোর অপরাধের প্রবণতা বেড়ে গেছে। ফলে বাবা-মা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগার কারণে করোনাকালে বাল্যবিয়ে বেশি হয়েছে। তবে অনেক মেয়ে বেশ সাহসী। ৯৯৯-এ ফোন করে তারা বিয়ে বন্ধ করেছে। প্রশাসনও ভূমিকা রেখেছিল। তবে যেখানেই প্রশাসনের উদাসীনতা ছিল সেখানেই বাল্যবিয়ে বেশি হয়েছে। 

খুশি কবির বলেন, সমস্যাটা শুধু আইন নয়, আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে মানসিকতা, পরিবারের ও সমাজের চিন্তাভাবনায় পরিবর্তন না এলে বাল্যবিয়ে কখনো বন্ধ হবে না। এ বিষয়ে সচেতনতা আরো বাড়ানো দরকার। 

নার্গিস নাহার নামে কুড়িগ্রামের এক শিক্ষার্থী জানায়, করোনাকালে ২০২১ সালে তার ক্লাসের সব বান্ধবীর বিয়ে হয়ে গেছে। তাই নিজের পরিণতি নিয়ে সে শঙ্কিত। নার্গিসের ইচ্ছা সে পড়াশোনা শেষ করে চাকরি করবে। নিজের পায়ে দাঁড়াবে। 

বাল্যবিয়ের ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই মাদ্রাসাগুলোও। তালা উপজেলার শার্শা বাহারুল উলুম মাদ্রাসার ৮৭ ছাত্রীর ৪০ জনেরই বিয়ে হয়ে গেছে। 

আন্তর্জাতিক শিশু অধিকার সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, নিরাপত্তাজনিত কারণে বাবা-মা মেয়েদের বাল্যবিয়ে দিচ্ছেন। সংস্থাটি জানায়, করোনায় বাবা-মায়ের চাকরি হারানো এবং সহিংসতা ও ধর্ষণের ঘটনা বাড়ায় নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে পরিবার মেয়েদের জোর করে বিয়ে দিচ্ছে। 

দেশে করোনা ভাইরাসের কারণে বাল্যবিয়ে শতকরা ১৩ ভাগ বেড়েছে, যা গত ২৫ বছরে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের এক গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। 

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের গবেষণায় বলা হয়েছে, করোনাকালে বাংলাদেশে গড়ে প্রতিদিন ৬৫টি বাল্যবিয়ে হয়েছে। গত সাত মাসে ২১ জেলার ৮৪ উপজেলায় মোট ১৩ হাজার ৮৮৬টি বাল্যবিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্র ও তথ্য-উপাত্ত থেকে স্পষ্ট, মাতৃমৃত্যু রোধে ও নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় বাল্যবিয়ে আইন থাকলেও তা কার্যকরে যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। এলাকার মেম্বার, চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরাও বাধা দেন না বাল্য বিয়ে। এমনকি প্রশাসনের দিক থেকে উদ্যোগের ঘাটতি রয়েছে। অন্যদিকে স্বজনদের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হলেও ৯৫ শতাংশ ক্ষেত্রে তা মানা হয় না। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিন্নাত হুদা স্টার সংবাদকে বলেন, এর সঙ্গে পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা ও মানসিকতা জড়িত। তবে এটাও সত্য যে, নারীর ক্ষমতায়নে, উন্নয়নে ও কর্মক্ষেত্রে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে রোল মডেল। আমরা মনে করি, একটা মেয়ের জন্য তার ভাগ্য বা পুরো ব্যবস্থাটাই হলো বিয়ে, এ বিষয়ে আমরা খুবই গুরুত্ব দিই। দীর্ঘদিনেও চিন্তার সে জায়গা থেকে আমরা খুব একটা সরে আসতে পারিনি। বাল্যবিয়ের এটি একটি মূল কারণ। 
তিনি বলেন, সম্পত্তিতে এখনো নারীর সমানাধিকার নেই। এ কারণে পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা থেকেও আমরা বের হতে পারিনি। বাবা-মা মেয়েদের একটা নিশ্চিত ভবিষ্যৎ গড়ে দিতে চান। তাই ভালো পাত্রের হাতে মেয়েকে তুলে দেয়াই থাকে তাদের লক্ষ্য। তারা মনে করেন, এমনটা করতে পারলেই তাদের মেয়ে সুখে থাকবে। এসব কারণেই আমরা মেয়েদের বিয়ের বিষয়টাকে সবচেয়ে বড় করে দেখি। করোনার সময় এ ধরনের মানসিকতা আরো বেশি দেখা গেছে। 

ড. জিন্নাত হুদা বলেন, আমরা যতটা এগিয়েছিলাম করোনার সময় অনেকটা পিছিয়ে গেছি। করোনায় আমাদের মনস্তাত্ত্বিক, সামাজিক ও পারিবারিক অবস্থায় বিপর্যয় নেমে এসেছে। যখনই কোনো অনিশ্চয়তা নেমে আসে তখনই বাবা-মা মেয়েদের একটা আবদ্ধ ব্যবস্থার মধ্যে রাখতে চান। 

বাল্যবিয়ে নিয়ে সরকার ও প্রশাসনের উদ্যোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা সরকার ও প্রশাসনের বিষয় নয়। কারণ বাবা-মা অনেক সময় আক্রমণাত্মকভাবে বলেন - ‘আমার মেয়েকে আমি বিয়ে দেব, তাতে আপনাদের কি?’ মেয়েকে পাত্রস্থ করতে পারলেই বাবা-মা মনে করেন, তাদের দায়িত্ব পালন হলো। এই ধারণা থেকে উত্তরণ খুব সহজ নয়। এটা চরম একটি পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা। প্রশাসন বাবা-মাকে ধরে নিয়ে যেতে পারে, যে বিয়ে করতে আসে তাকে ধমক দিতে পারে। কিন্তু এটা তো সমাধান নয়, এটা সামাজিক ইস্যু। তবে সরকার একটা নীতি বা আইন করতে পারে। যতক্ষণ সামাজিকভাবে এটা রোধ করা না হবে, ততক্ষণ এভাবে চলতেই থাকবে।