ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

কচুপাতা ও কলাপাতা নিয়ে ঢাবিতে বিক্ষোভ 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ২১:৩৮, ১৪ নভেম্বর ২০২২

কচুপাতা ও কলাপাতা নিয়ে ঢাবিতে বিক্ষোভ 

কাগজসহ বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে কচুপাতা ও কলাপাতা নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা। শিক্ষা উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির জন্য সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছে সংগঠনটির নেতারা। তারা বলেন, আগামী জানুয়ারিতে শিক্ষার্থীরা নতুন বই না পেলে সরকার পতনের আন্দোলনে নামবেন তারা। 

সোমবার (১৪ নভেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। 

ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক মাহির শাহরিয়ার রেজার সঞ্চালনায় মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দীপক শীল, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমাইয়া সেতু, ঢাকা মহানগর সংসদের সাধারণ সম্পাদক লাভলী হক, ঢাবি শাখার আহ্বায়ক কাজী রাকিব হোসাইন প্রমুখ। 

দীপক শীল বলেন, আজকে আমাদের সর্ব অঙ্গে ব্যথা ঔষধ দিব কোথা! যে সেক্টরে যাওয়া হোক না কেন সেখানেই সংকট। এর মাঝে নতুন করে যুক্ত হয়েছে শিক্ষা উপকরণের দাম বৃদ্ধিজনিত সংকট। আজকে বাজারে কাগজ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ছাপাখানার মালিকরা দায়ী করছেন মিল মালিকদের। মিল মালিকরা দায়ী করছেন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধকে। এভাবে সংকট ধীরে ধীরে ঘনীভূত হচ্ছে। 

বাণিজ্যমন্ত্রীকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে দায়িত্ব হস্তান্তর করুন, আমরা দায়িত্ব নেব। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আমরা বাজার নিয়ন্ত্রণে আনব এবং সিন্ডিকেট চক্রকে দেশ থেকে বিতাড়িত করব। বাণিজ্যমন্ত্রীর সৎসাহস থাকলে দায়িত্ব হস্তান্তর করুন। তিনি আরো বলেন, আমরা তথাকথিত উন্নয়ন চাই না। দু-মুঠো খেয়ে-পরে বাঁচতে চাই। 

সুমাইয়া সেতু বলেন, খাতা, কলম ও ক্যালকুলেটরসহ সব শিক্ষা উপকরণের দাম ১০ থেকে ১৫ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাসিক বেতনও অনেক বেড়ে গেছে। শিক্ষা উপকরণের মূল্য এমন বেশি থাকলে শিক্ষার্থীরা কীভাবে পড়াশোনা করবে? করোনা মহামারির কারণে সরকারের কথা ছিল, শিক্ষার্থীদের প্রণোদনা দেয়া হবে, বৃত্তি দেয়া হবে এবং আবাসিক শিক্ষার্থীদের মিলের ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু তা করা হয়নি।  

তিনি আরো বলেন, শিক্ষা আমার অধিকার। টাকা দিয়ে কেন কিনবো? সরকার এখন যেভাবে শিক্ষা উপকরণের দাম বৃদ্ধি করেছে, এ অবস্থা চলতে থাকলে শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করতে পারবে না। এই ডিজিটাল যুগে কলাপাতায় লিখতে চাই না। কচুপাতায় লিখতে চাই না। যদি শিক্ষা উপকরণের দাম কমানো না হয়, তাহলে শিগগির দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। 

লাভলী হক বলেন, দেশে এ মুহূর্তে একদিকে যেমন চলছে লোডশেডিং। অন্যদিকে বেড়েছে কাগজসহ সব শিক্ষা উপকরণের দাম। সবকিছুর দাম এত বেশি, আমরা খেয়ে বাঁচবো নাকি পড়াশোনা করব?