ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লকডাউন না দিতে এফবিসিসিআইয়ের আহ্বান

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৫:২৩, ১২ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ১৯:৪০, ১২ জানুয়ারি ২০২২

লকডাউন না দিতে এফবিসিসিআইয়ের আহ্বান

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাড়লেও দেশে ‘লকডাউনে’র মতো কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ না করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের মতে, লকডাউনের কারণে ব্যবসা-বাণিজ্যে যে ক্ষতি হয় তা পুষিয়ে নেয়াটা অত্যন্ত কষ্ট ও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এক্ষেত্রে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি জনসচেতনতার ওপর জোর দিয়েছে দেশে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই)। 

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আজ বুধবার (১২ জানুয়ারি) ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, পৃথিবীতে এখন কোনো দেশ লকডাউন দিচ্ছে না। কারণ লকডাউনের কারণে ব্যবসার ক্ষতি হচ্ছে। গত বছর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার কারণে আমাদের রফতানি বাড়ছে। করোনা ভাইরাস মহামারির মধ্যেও আমরা জিডিপির ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। অথচ আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ পৃথিবীর অনেক দেশে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

তিনি বলেন, নতুনভাবে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ আবার বৃদ্ধি পাওয়ার এই সময়ে লকডাউন নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ী সমাজ।

গতবারের লকডাউনের কারণে পোশাক কারখানাগুলোতে এখনো ১৫ শতাংশ শ্রমিক সংকটে রয়েছে জানিয়ে জসিম উদ্দিন বলেন, গত বছর ১৩ থেকে ১৪ দিন পোশাক কারখানা বন্ধ থাকায় শ্রমিকরা চাকরি ছেড়ে বাড়ি গিয়ে আর ফিরে আসেনি। সুতরাং লকডাউনই সমাধান নয়, এর কারণে ক্ষতি হচ্ছে।

এক্ষেত্রে স্বাস্থ্য সচেতনতার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, সরকার যে টিকা ছাড়া হোটেল-রেস্টুরেন্টে যাওয়া কিংবা সমাবেশ বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে, এটাকে আমি সমর্থন করি। আমাদের জোর দিতে হবে টিকা এবং স্বাস্থ্য সচেতনতায়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব। ডিআরইউর সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠুও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, নতুন ধরন ওমিক্রনের প্রভাবে বিশ্বের অন্যান্য দেশেরে মতো বাংলাদেশেও করোনা রোগী বাড়ছে। এমন পরিস্থিতি সামাল দিতে বেশকিছু বিধিনিষেধ ফিরিয়ে এনেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার থেকে উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান কিংবা সভা-সমাবেশ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। ট্রেন, বাস এবং লঞ্চে সক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিতে হবে। রেস্তোরাঁয় বসে খেতে, আবাসিক হোটেল থাকতে দেখাতে হবে টিকা সনদ। ১২ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীদের টিকা সনদ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।