ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ না, তবে উৎপাদন বেড়েছে : কৃষিমন্ত্রী

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৭:৩০, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ না, তবে উৎপাদন বেড়েছে : কৃষিমন্ত্রী

ছবি : পিআইডি

দেশ এখনো খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে পারেনি বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। একই সঙ্গে তিনি এটাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, দেশে আগের তুলনায় খাদ্য উৎপাদন বেড়েছে এবং সরকার এজন্য বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। 

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে আদর্শ প্রাণীসেবা লি.-এর উদ্যোগে ‘প্রাণিসম্পদ খাতে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি বৃদ্ধি ও প্রাণিবীমা সম্প্রসারণে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব প্রযুক্তির ভূমিকা : আমাদের অবস্থান ও করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন তিনি। 

কৃষিমন্ত্রী বলেন, খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ না, তবে খাদ্য উৎপাদন বেড়েছে। আগে মানুষ একদিন, দুদিন খেতে পারতো না। এখন দিনে অন্তত দুই মিল খেতে পারে।

দেশে এখনো ২০ ভাগ মানুষ বা তারও বেশি দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে জনসংখ্যার হিসাবে এটি প্রায় ৩ কোটি। আগে মাথাপিছু জমি ছিল ২৮ ডেসিমেল, এখন সেটি কমে ১০ ডেসিমেল হয়েছে। ছোট থেকেই আমরা দেখেছি গ্রামে মায়েরা দুধ, ডিম বাজারে পাঠিয়ে দিচ্ছে। কাজেই আমরা যেটি বলছি, তাদের আয় কম।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমরা যদি টেকসই উন্নয়ন করতে চাই, অর্থনীতির কোন কোন খাতে আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে, সেটি নির্ধারণ করতে হবে। প্রাণিসম্পদের অবদান জিডিপিতে ২ শতাংশ হলেও এর গুরুত্ব অনেক বেশি। এই খাতের প্রচুর সম্ভাবনা আছে। স্কিলড লেবার দিয়ে যদি লাইভস্টক খাতটা পরিচালনা করা যায়, এই খাত অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে এসডিজি সূচকের সব শর্তই আমরা ২০১৫ সালের মধ্যে অর্জন করেছি। আমাদের মাথাপিছু আয় ২০৩০ সালের মধ্যে ৫ হাজার ডলার ছাড়িয়ে যাবে।

প্রাণিসম্পদে অবশ্যই বীমা প্রয়োজন উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে একটি গাভীর দাম ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা। সেজন্য প্রাণিসম্পদের অবশ্যই বীমা হওয়া উচিত। তবে বীমা কোম্পানির ওপর দেশের মানুষের বিশ্বাস নেই। হয়রানি ও প্রতারণা বন্ধ করে বীমাকে গ্রাহকবান্ধব করতে হবে।

তিনি জানান, ডিমের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে, তবে এটি সাময়িক এবং শিগগির দাম কমে আসবে। 

ভোজ্যতেলের উৎপাদন বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আগামী ৩ থেকে ৪ বছরের মধ্যে ভোজ্যতেলের চাহিদার শতকরা ৪০ ভাগ দেশে উৎপাদনের জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে।

বর্তমানে ‘সারের দাম ইতিহাসে সর্বনিম্ন আছে’ জানিয়ে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বিএনপির আমলে ৯২ টাকার সার এই সরকার ক্ষমতায় এসে ১৬ টাকায় নিয়ে এসেছে। এই যে খাদ্যে এত উন্নতি, এটি আমাদের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার ফলেই সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, আজকে খাদ্যদ্রব্যের দাম নিয়ে কথা হচ্ছে, এই যে খাদ্যের এত দাম, আমি যদি সারেই ভর্তুকি দিই, তাহলে খাদ্যে ভর্তুকি আমি কেন দেব? গত ৩ বছরে হ্যাচারি মালিকেরা একদিনের মুরগির একটি বাচ্চাও বিক্রি করতে পারে নাই। কাজীর মতো ফার্ম ১ লাখ মুরগির বাচ্চা পুঁতে ফেলেছে। 

সেমিনারে কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইসমাইল হোসেন, কৃষি ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আব্দুল্লাহ হারুন পাশা, কৃষিবিদ আওলাদ হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং ও বীমা বিভাগের অধ্যাপক হাসিনা শেখ, ব্যাংক এশিয়ার সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কায়সার হামিদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

আলোচকরা প্রাণিসম্পদ খাতে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, ঋণ ও বিনিয়োগের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তারা বলেন, কৃষিঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে ব্যাংকারদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন দরকার।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইউনিডোর ন্যাশনাল প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক আইনুল হক। 

প্রবন্ধে জানানো হয়, ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রাণিসম্পদ খাতে ঋণ বিতরণের পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা, যা মোট কৃষিঋণের ১৪ শতাংশ।