ঢাকা Sunday, 26 May 2024

বাঁশফুলের বীজ থেকে চাল উৎপাদন করলেন ফুলবাড়ীর সাঞ্জু

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 19:13, 21 April 2024

বাঁশফুলের বীজ থেকে চাল উৎপাদন করলেন ফুলবাড়ীর সাঞ্জু

বাঁশফুলের বীজ সংগ্রহ করছেন সাঞ্জু রায় (বামে)। মাঝে ওপরে সংগৃহীত বীজ, নিচে উৎপাদিত চাল। ডানে বাঁশফুলের বীজের চাল হাতে সাঞ্জু

সাধারণত ধান থেকে চাল উৎপাদন হয়ে থাকে। কিন্তু এই চাল যদি হয় বাঁশফুলের বীজ থেকে হয় তাহলে কেমন হয়? এমনি এক বিরল ঘটনা ঘটেছে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়নের পাকাপান গ্রামে।

বাঁশফুলের বীজ থেকে চাল উৎপাদন করে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন ওই গ্রামের ২৫ বছর বয়সী দিনমজুর সাঞ্জু রায়। তিনি ওই গ্রামের কৃষক ছিমল রায়ের ছেলে। 

জানা গেছে, দেশে ২৩ প্রজাতির বাঁশ রয়েছে। এর মধ্যে গ্রাম্য ভাষায় যাকে বেইড়া বাঁশ বলে, সেই বাঁশের ফুল থেকে বীজ সংগ্রহ করে উৎপাদন করা হচ্ছে চাল। অন্যান্য চালের মতোই ধানের মিলে বাঁশফুলের বীজ ভাঙিয়ে এই চাল তৈরি করা হচ্ছে।

বাঁশফুলের বীজ থেকে উৎপাদিত এই চাল দিয়ে ভাত, খিচুড়ি, পায়েশসহ আটা তৈরি করে তা দিয়ে পিঠা এবং রুটি বানিয়ে খাওয়া হচ্ছে, যা অত্যন্ত সুস্বাদু বলে জানান স্থানীয়রা।

এই চাল ৪০ টাকা কেজি দরে অনেকেই কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। ফলে বাঁশফুলের চাল থেকে রোজগারের সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিনে শনিবার (২০ এপ্রিল) সকালে উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়নের পাকাপান গ্রামে সাঞ্জু রায়ের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তার বাড়ির পাশে বাঁশের ঝাড় থেকে বাঁশফুল থেকে ধান আকৃতির বীজ সংগ্রহ করছেন তিনি। সেই বীজ পানিতে ধুয়ে পরিষ্কার করে রোদে শুকান। পরে সেগুলো চালের মিলে ভাঙানো হয়। 

বাড়ির উঠনে প্রস্তুতকৃত এমন কয়েকটি বীজের বস্তা দেখা যায়। তিনি কিছু চাল ভাঙিয়ে রেখেছেন, যা গ্রামের অনেকে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। 

সাঞ্জু রায়ের প্রতিবেশী মিনতি রানী, সুনিল রায় ও লিপি রানী বলেন, বাঁশের ফুল থেকে চাল সংগ্রহ করার বিষয়টি আমরা প্রথমে ছেলেমানুষি মনে করেছিলাম। পরে তার এই চাল তৈরি এবং খেয়ে আমরা বুঝতে পেরেছি তিনি একটি ভালো কাজ করেছে। বর্তমানে তার এই উৎপাদিত চাল অনেকেই কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। এটি এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

সাঞ্জু রায় বলেন, আমি একজন দিনমজুর। এক মাস আগে পাশের গ্রামে কাজ করতে যাই। সেখানে কাজের ফাঁকে কালিচন্দ্র রায় (৭০) নামে একজন ব্যক্তি আমাকে বাঁশের ফুল থেকে চাল সংগ্রহ করে খাওয়ান। তার কথামতো আমি বাঁশফুল সংগ্রহ করে প্রথমে নিজে খাই। খেয়ে ভালো লাগায় এরপর থেকে আমি তা সংগ্রহ করছি। এতে নিজেদের খাবারের চাহিদাও পূরণ হচ্ছে, পাশাপাশি এই চাল ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করছি।

এক প্রশ্নের জবাবে সাঞ্জু জানান, এটি কষ্টসাধ্য কাজ। প্রতিদিন ২০ কেজি বীজ সংগ্রহ করা যায়। এসব পরিষ্কার করে ভাঙিয়ে  চাল করলে প্রচলিত ধানের সমপরিমাণ চাল হয়।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রুম্মান আক্তার বলেন, এটি গবেষণার বিষয়। গবেষণা প্রতিষ্ঠান কোনো কৃষিপণ্য সার্টিফাই করলে তখন আমরা সেই বিষয়ে সম্প্রসারণের কাজ করি। 

রংপুরের ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. রকিবুল হাসান জানান, বাঁশের ফুল থেকে চাল উৎপাদন হয়, এটা এই প্রথম জানলাম। দেশের কোথাও এমন ঘটনা শোনা যায়নি। এটি একটি বিরল ঘটনা। বিষয়টি নিয়ে আমরা দ্রুত গবেষণার কাজ শুরু করবো।