ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

কালাইয়ে শ্রমিক সংকটে পাকা ধান নিয়ে বিপাকে কৃষক

কালাই (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: 18:23, 10 June 2024

কালাইয়ে শ্রমিক সংকটে পাকা ধান নিয়ে বিপাকে কৃষক

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে জয়পুরহাটে কয়েকদিন টানা বৃষ্টিপাত হয়েছে। অতিরিক্ত এই বৃষ্টিপাতের কারণে জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার ফসলি মাঠগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। ডুবে গেছে পাকা ও আধাপাকা ধান। অনেক জমিতে ডুবে যাওয়া ধান থেকে চারা বের হচ্ছে। 

এমন সংকটকালে অতিরিক্ত অর্থ খরচ করেও মিলছে না ধান কাটার শ্রমিক। উপজেলাজুড়ে কষ্টার্জিত বোরো ফসল ঘরে তুলতে কৃষকরা হয়ে পড়েছেন দিশেহারা। 

কালাই উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে এই উপজেলার বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ হাজার ৯৫ হেক্টর। এর মধ্যে ১২ হাজার ৫৫ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ হয়েছে। এতে ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৭৭ হাজার ৯৬৮.৫ মেট্রিক টন এবং চাল উৎপাদনের ৫১ হাজার ৯৭৯ মেট্রিক টন নির্ধারণ করা হয়েছে। আলু উৎপাদনের কারণে এই উপজেলায় দেরিতে ধান কাটা ও মাড়াই শুরু হয়েছে। 

গত শুক্রবার (৭ জুন) সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার জিন্দারপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কুজাইল, করিমপুর ও বেগুনগ্রাম, পুনট ইউনিয়নের পাঁচগ্রাম ও শিকটা গ্রাম, উদয়পুর ইউনিয়নের তেলিহার ও দুধাইল গ্রাম, আহম্মেদাবাদ ইউনিয়নের ঝামুটপুর, হাতিয়র
ও হারুঞ্জা গ্রাম, মাত্রাই ইউনিয়নের উলিপুর ও বানদিঘিসহ বিভিন্ন গ্রামের ফসলি জমির ধান বৃষ্টির পানিতে জমে রয়েছে। 

এর মধ্যে বৃষ্টি ও আকাশ মেঘাছন্ন দেখলে আতঙ্কিত হয়ে উঠছেন কৃষকরা। তারা বিভিন্ন জেলায় ধান কাটার শ্রমিকদের খবর পাঠালেও বাইরের কোনো জেলা থেকে এবার কৃষি শ্রমিক না আসায় তীব্র শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে।

এবারে শ্রমিকের মজুরিও অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। দৈনিক ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা ছাড়া বর্তমানে কাজ করতে রাজি হচ্ছেন না শ্রমিকরা।

তেলিহার গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, জমির ধান পানিতে ডুবে গেছে কিন্তু শ্রমিক নেই। দু-একজন যা পাওয়া যায় তারাও বেশি মজুরি চায়। প্রতিবছর রংপুর ও গাইবান্ধা থেকে ধান কাটার জন্য শ্রমিকরা আমাদের এখানে আসে। কিন্তু এ বছর এখনো অধিকাংশ গৃহস্থের বাড়িতে কোনো শ্রমিক আসেনি। তাই শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে।

কালাই পৌর এলাকার নয়াপাড়া গ্রামের কৃষক সোহেল মিয়া বলেন, সবাই ধান কাটতে শ্রমিক খুঁজছেন। গত বছর এক বিঘা জমির ধান কাটতে শ্রমিকের মজুরি দিতে হয়েছিল তিন হাজার থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা। এবারে একই পরিমাণ জমির জন্য মজুরি দিতে হচ্ছে পাঁচ হাজার থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা। এরপরও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। বাধ্য হয়ে অনেকে নিজেই যতটুকু পারছেন জমি থেকে ধান কেটে রাখছেন।

কালাই পৌরসভার সরদারপাড়া গ্রামের কৃষক আমিরুল ইসলাম বলেন, গত কয়েকদিনের বৃষ্টির কারণে আমার জমির পাকা ধান পানিতে ডুবে নষ্ট হওয়ার পথে। শ্রমিকের অভাবে ধান কাটতে পারছি না। এই ধান যদি দুই-চারদিনের মধ্যে কাটতে না পারি তাহলে আমার অনেক লোকসান হবে। 

কালাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অরুণ কুমার রায় বলেন, চলতি বোরো মৌসুমের শুরু থেকে কৃষি বিভাগের মাঠকর্মীসহ কর্মকর্তারা কৃষকদের নানা দিকনির্দেশনা দিয়ে উৎসাহিত করেছেন। মাঠের শ্রমিক সংকটের কারণে ধান কাটা নিয়ে কৃষকরা যে সমস্যায় পড়েছেন তা হয়তো বেশিদিন থাকবে না। ঈদের পরে শ্রমিকরা কাজে যোগ দিতে চলে আসবেন বলে তিনি মনে করেন।