ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘লাগবে নাকি’ – বোরকার আড়ালে যৌন-বাণিজ্যের গল্প

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১২:১১, ৭ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ১৫:৩৩, ৭ অক্টোবর ২০২১

‘লাগবে নাকি’ – বোরকার আড়ালে যৌন-বাণিজ্যের গল্প

ছবি : স্টার সংবাদ

ফার্মগেট আনন্দ সিনেমা হলের সামনের ফুটপাত। সময় সন্ধ্যা। বাসের জন্য অনেক মানুষ দাঁড়িয়ে। তাদের মধ্যে ঘোরাফেরা করছেন বোরকা পরা কয়েকজন নারীও। ঠিক যেন বাস নয়, অন্য কিছুর অপেক্ষা। কিছুক্ষণ পর্যবেক্ষণের পর দেখা গেল কয়েকজন ব্যক্তির সঙ্গে তারা কথা বললেন। এসব ব্যক্তি দলবদ্ধ নন, বোঝাই যাচ্ছে তারা একা কিংবা সঙ্গী একজন কি দুজন। ওই নারীদের মধ্যেই একজন, নীল আঁটোসাঁটো বোরকা পরা। এমন কয়েকজন পুরুষের সঙ্গে কথা বলার পর একজনের সঙ্গে চলে গেলেন ছন্দ সিনেমা হলের দিকে। এরই মধ্যে একজন নারী এগিয়ে এলেন, পাশে দাঁড়িয়ে মৃদু স্বরে বললেন, ‘লাগবে নাকি?’ 

‘লাগবে নাকি’ - ফার্মগেট এলাকায় এই শব্দ দুটি অনেকেরই চেনা। যারা এই শব্দ দুটি বলেন তারা আবৃত থাকেন বোরকায়, শুধু চোখ দেখা যায়। এরা দেহপসারিণী, চলতি ভাষায় ‘পতিতা’ বা ‘বেশ্যা’। দেহ বিক্রি করেই এদের জীবন চলে, সংসার চলে।  

ফার্মগেটসহ রাজধানীর শাহবাগ, শ্যামলী, বনানীসহ বিভিন্ন ব্যস্ততম এলাকায় আঁধার ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে বোরকা পরা এসব নারীর আনাগোনা। কেউ না জানলে প্রথম দেখাতে তাদের শনাক্ত করা বেশ মুশকিল। তবে কেউ কৌতূহলী হয়ে তাদের দিকে তাকালে বা অনেকক্ষণ তাকিয়ে থাকলে, তারাই এগিয়ে আসেন, জিজ্ঞেস করেন - ‘লাগবে নাকি?’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সময় অনুযায়ী তাদের রেট ৫০০ থেকে কয়েক হাজার টাকা। খদ্দেরের সঙ্গে বনিবনা হলে চলে যান আশপাশের পরিচিত এবং আগে থেকে ঠিক করে রাখা কোনো আবাসিক হোটেলে।

উন্নয়নের রাজপথে থাকা বাংলাদেশে এই নারীরা যেন বাতির নিচে অন্ধকার। এমনিতেই দেশে বেকারের সংখ্যা অনেক, তার ওপর করোনা অতিমারির থাবায় সে সংখ্যা বেড়েছে কয়েকগুণ। এদিকে দ্রব্যমূল্যও বেড়ে চলেছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাড়ছে জীবনযাত্রার ব্যয়। সবমিলিয়ে একটা কোণঠাসা পরিস্থিতি। এ পরিস্থিতিতে অর্থ উপার্জনের সহজ ও প্রাচীন পন্থাই বেছে নিয়েছেন, বা নিতে বাধ্য হচ্ছেন, অনেক নারী। কিন্তু তাদের অনেকে যেমন অন্যের জন্য হুমকির কারণ হচ্ছেন, তেমনি তারাও নিরাপদ নন অপরিচিত পুরুষের হাতে।

সম্প্রতি রাজধানীর শ্যামলীতে এক আবাসিক হোটেলে খুন হন এক দেহপসারিণী। জানা যায়, ফার্মগেট ওভারব্রিজ এলাকা থেকে এক খদ্দেরের সঙ্গে তিন হাজার টাকা চুক্তিতে শ্যামলীর একটি আবাসিক হোটেলে সারারাতের জন্য ওঠেন তিনি। কিন্তু গভীর রাতে ওই নারী ২০ হাজার টাকা দাবি করেন, অন্যথায় চিৎকার করে লোক জড়ো করার হুমকি দেন। এতে খদ্দেরটি ঘাবড়ে গিয়ে রাতের কোনো একসময় ওই নারীকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যান। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে সেই ব্যক্তি আটক হলে জানা যায় এ ঘটনা। 

বাংলাদেশে দেহব্যবসা নিষিদ্ধ। কিন্তু অনৈতিক এ কর্মকাণ্ড দিনের পর দিন একপ্রকার প্রকাশ্যেই চলছে। দেহপসারিণীদের সহযোগিতা করছেন বিভিন্ন আবাসিক হোটেলের লোকজন এবং একশ্রেণীর দালাল। তারা এর বিনিময়ে পাচ্ছেন নারীর দেহ বেচা টাকার একটি অংশ। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এসব নারীকে মূলত পরিচালিত করে থাকেন গডফাদার বা গডমাদাররা, যারা বরাবরই থেকে যান লোকচক্ষুর অন্তরালে। এদিকে চোখের সামনে এসব ঘটনা দেখেও যেন দেখেন না প্রশাসন।

শ্যামলীতে পারভেজ নামে একজনের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, সন্ধ্যার পর এরা (বোরকা পরা দেহপসারিণী) এখানে হাঁটাহাঁটি করেন। দূর থেকে খদ্দের টার্গেট করে কাছে গিয়ে নিজের লোকের মতো করে কথা বলেন। ফলে অনেকেই বিষয়টি বুঝতে পারেন না।
 
ফার্মগেটে সুমন নামে আরেকজন বলেন, অনেক সময় বাসের জন্য এখানে অপেক্ষা করতে হয়। সে সময় বোরকা পরা নারীরা পাশে এসে কথা বলেন। জানতে চান আমার ‘লাগবে নাকি’। কৌতূহলবশে তাদের সঙ্গে একবার কথা বলি। তারা ২০০ টাকা থেকে দরদাম শুরু করে সময় অনুযায়ী মূল্য বাড়ান।

তিনি আরো বলেন, যারা ২০০ থেকে ৫০০ টাকা দেন তাদের আনন্দ সিনেমা হলের পাশে ছন্দ সিনেমা হলে নিয়ে যাওয়া হয়। অন্য কোনো হোটেলে যেতে চাইলে ঘণ্টাপ্রতি দুই হাজার টাকা নেন বলে জানান এই নারীরা।

কথা হলে বোরকা পার্টির এক সদস্য সাবিনা (ছদ্মনাম) জানান, তিনি যে এ কাজ করেন তা পরিবার জানে না। আর্থিক সংকটের কারণে বাধ্য হয়ে এ পেশায় নেমেছেন। 

এমনই আরেকজন রোকসানা (ছদ্মনাম)। তিনি জানান, পড়ালেখা কম, তাছাড়া চাকরিও পাচ্ছেন না। তাই এই কাজে নেমেছেন।

 

এদিকে বনানীর সৈনিক ক্লাব মোড় থেকে কাকলী মোড় পর্যন্ত বেশ কয়েকটি আবাসিক হোটেল রয়েছে। সেখানেও এমন অনৈতিক কার্যকলাপ হয়ে থাকে, যা ওপেন সিক্রেট। সরেজমিন দেখা যায়, এসব হোটেলের প্রবেশপথে বসে আছেন বেশ কয়েকজন ব্যক্তি। তারা দালাল; খদ্দের পেলে হোটেলে নিয়ে যান। তাদের অনেকে আবার একটু এগিয়ে গিয়ে যদি মনে করেন কেউ খদ্দের, তবে তাকে জিজ্ঞেস করেন সেই একই প্রশ্ন, ‘লাগবে নাকি?’ এছাড়াও বনানী এলাকায় স্পা বা শরীর ম্যাসাজ পার্লারের আড়ালে চলছে দেহব্যবসা।

এসব বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নূরে আজম মিয়া স্টার সংবাদকে বলেন, বনানী এলাকায় এ ধরনের কোনো কাজ হয় না। স্পার আড়ালেও কোনো ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ হয় না। আপনাদের কাছে তথ্য থাকলে আমাদের জানাতে পারেন, আমরা অ্যাকশন নেব।

অ্যাকশন নেয়া হোক, বা না হোক - এসব নারী এই সমাজেরই অংশ। তারা কারো না কারো আপনজন। তাদের পুনর্বাসনের দায়িত্ব রাষ্ট্র, সমাজের। সমাজ বিশ্লেষকদের মতে, সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিই পারে এসব নারীকে এপথ থেকে ফিরিয়ে এনে সুন্দর জীবন দিতে।