ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ই-টিকিটিংয়ের পর বাস কমিয়েছেন মালিকরা, অভিযোগ যাত্রী কল্যাণ সমিতির

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:৪৫, ২৪ নভেম্বর ২০২২

ই-টিকিটিংয়ের পর বাস কমিয়েছেন মালিকরা, অভিযোগ যাত্রী কল্যাণ সমিতির

ই-টিকিটিং আধুনিক গণপরিবহন সেবার একটি অংশ। সম্প্রতি ঢাকা শহরে এই সেবা চালু করা হয়েছে। ই-টিকিটিংয়ের কারণে বন্ধ হয়েছে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ও। তবে মালিকরা কমিয়ে দিয়েছেন বাসের সংখ্যা এমনটাই দাবি করছেন যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী। 

বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি হলে এক আলোচনা সভায় এই দাবি করেন তিনি।

মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, সংগঠনের এক পর্যবেক্ষণ বলছে, শুরুতেই ই-টিকিটিং নিয়ে যাত্রী ও বাস মালিক-শ্রমিকের মধ্যে নানা মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। ই-টিকিটিং চালুর পর বিভিন্ন রুটে বাসের সংখ্যা কমিয়ে দেন মালিকরা। এছাড়া বাসে দূরত্বের ব্যবধানে স্বাভাবিকের চেয়ে ৫-১০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেন নগরীর যাত্রীরা।

তবে ই-টিকিটিং ব্যবস্থাকে স্বাগত জানিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির নেতারা বলছেন, পরিবহন খাতে দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি এই খাতের আমূল সংস্কার করা না গেলে ই-টিকিটিং সিস্টেমে সিটিবাস সার্ভিস ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না।

সভায় উপস্থিত ছিলেন পরিবহন খাত সংশ্লিষ্টরা তারা জানান, যানজট, চাদাঁবাজিসহ নানা কারণে দীর্ঘদিন সিটি সার্ভিসে নতুন বিনিয়োগ আসছে না। ফলে লোকসানের কারণে এই খাত আগামী দিনে গভীর সংকটে পড়ার শঙ্কা রয়েছে।

তারা বলছেন, ই-টিকিটে দূরত্ব অনুযায়ী ভাড়া আদায় নিশ্চিত করায় যাত্রী ভাড়া কমে আসছে, ফলে বাস মালিকের আয়ও কমে যাচ্ছে। এমন অবস্থায় গণপরিবহনে অদৃশ্য খরচ বন্ধ করা না গেলে অনেক পরিবহন মালিককে লোকসান দিয়ে বাস চালাতে হবে।

সংগঠনের সহ-সভাপতি তাওহিদুল হক লিটন সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় ই-টিকিটের ছবি ও যাত্রী কল্যাণ সমিতি প্রস্তাবিত ই-টিকিটের নমুনা প্রদর্শন করা হয়।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব বলেন, দীর্ঘদিন পর নগরীর সিটি সার্ভিসের বাসে ই-টিকিটিং সেবা চালু করায় ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির নেতাদের ধন্যবাদ।

তিনি বলেন, প্রতিটি টিকিটে বাসের নাম, বাসের নিবন্ধন নম্বর, যাত্রা ও গন্তব্যের নাম, দূরত্ব, ভাড়ার অংক, ভ্রমণ তারিখ ও অভিযোগ কেন্দ্রের নম্বর থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে ই-টিকিটিং ব্যবস্থায় এসব পূর্ণাঙ্গ তথ্য নেই। কোনো কোনো টিকিটে শুধুমাত্র ভাড়ার অংক লেখা রয়েছে। ফলে এসব টিকিট দিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হলে যাত্রীদের প্রতিকার পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই বলে দাবি করেন যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব।

কিছু উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, যেমন রামপুরা থেকে ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার আগে এই পথে ভাড়া ছিল ২০ টাকা, ই-টিকিটিং এই পথের ভাড়া আদায় হচ্ছে ২৫ টাকা। অথচ ৮ কিলোমিটার এই পথে ২০ টাকা ভাড়া আদায় হওয়ার কথা। এছাড়া খিলক্ষেত থেকে মিরপুর-২ আগে ১৫ টাকা ভাড়া আদায় হলেও ই-টিকিটিং চালুর পর ২০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

ই-টিকিটিংয়ের কারণে কোনো কোনো রুটে ভাড়া কমেছে বলেও জানান যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব। তিনি বলেন, খিলক্ষেত থেকে মিরপুর-১১ পথে আগে ৩০ টাকা নিলেও ই-টিকিটিং চালুর পর থেকে ২২ টাকা ভাড়া হয়েছে। এছাড়া আসাদগেট থেকে মিরপুর-১ আগে ২৫ টাকা ভাড়া নেওয়া হলেও ই-টিকিটিংয়ে এই পথের ভাড়া ১৩ টাকায় নেমে আসে। শেওড়াপাড়া থেকে ধানমন্ডি-২৭ পর্যন্ত আগে ২০ টাকা ভাড়া নেওয়া হলেও ই টিকিটিং এ পথের ভাড়া ১৩ টাকায় নেমে আসে। রামপুরা থেকে কুড়িল বিশ্বরোড পর্যন্ত আগে ২০ টাকা ভাড়া আদায় করা হলেও ই-টিকিটিংয়ে নেওয়া হচ্ছে ১৫ টাকা। মিরপুর-১ থেকে গাবতলী আগে ভাড়া ছিল ২০ টাকা ই-টিকিটিংয়ে নেওয়া হচ্ছে ১০ টাকা। মিরপুর-১ থেকে সাভার আগের ভাড়া ৪০ টাকা হলেও ই-টিকিটিংয়ে ৩০ টাকায় নেমে এসেছে।

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেন, ই-টিকিটিং উন্নত বিশ্বে আগে চালু হলেও গত চার বছর আগে বাংলাদেশে চালু হয়। রাজধানীর বাসভাড়া নৈরাজ্য দূরীকরণে এটা চালু করা হয়েছে। ফলে ওয়েবিলের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধের পাশাপাশি বাসে বাসে অসম প্রতিযোগিতা বন্ধ হবে।

তিনি আরও বলেন, রাজধানীতে ৩০ নভেম্বরের পর থেকে লক্কড়-ঝক্কড় বাস বন্ধ হয়ে যাবে। সব বাস সার্ভিস দৃষ্টিনন্দন করা হবে।

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির অপর সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান বলেন, ঢাকা মহানগরীর বাসে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় আমরা নানাবিধ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি। আমাদের মহাসচিবের নেতৃত্বে একাধিকবার প্রান্তিক পর্যায়ের বাস মালিকদের নিয়ে সভা হয়েছে। ই-টিকিটিং চালুর পর যেসব ত্রুটি-বিচ্যুতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে এবং যাত্রীদের যেসব অভিযোগ আসছে সব অভিযোগ ধীরে ধীরে নিষ্পত্তি করা হবে।

বিআরটিএ’র ঢাকা বিভাগের (ইঞ্জিনিয়ারিং) উপ-পরিচালক স্বদেশ কুমার দাশ বলেন, বিআরটিএ রাজধানীর বাসে সরকার নির্ধারিত ভাড়া কার্যকর করার লক্ষ্যে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আসছে। আগামীতে এই কার্যক্রম আরও জোরদার করা হবে।