ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

সপ্তাহে একেক দিন বন্ধ থাকবে একেক এলাকার শিল্পকারখানা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৮:২৪, ৭ আগস্ট ২০২২

সপ্তাহে একেক দিন বন্ধ থাকবে একেক এলাকার শিল্পকারখানা

ছবি সংগৃহীত

এখন থেকে সপ্তাহে একেক দিন একেক এলাকার সব ধরনের শিল্পকারখানা বন্ধ রাখা হবে। দেশে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে চলমান লোডশেডিং কমাতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। 

রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে রোববার (৭ আগস্ট) ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। সেই সভাতেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানা গেছে। 

সভাশেষে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখন শিল্পাঞ্চলে শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি আছে। একদিনে সব এলাকায় ছুটি না দিয়ে, যদি রেশনিংয়ের মাধ্যমে একেক দিন একেক এলাকায় ছুটি চালু করা যায়, তাহলে বিদ্যুৎ কিছুটা সাশ্রয় হবে, লোডশেডিং কিছুটা কমে আসবে। শিল্পমালিকরা এ বিষয়ে আমাদের সঙ্গে একমত হয়েছেন।

এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বলেন, বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে ৪৯০ মেগাওয়াটের মতো বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে দিনে। আমরা বলেছি, কেবল ঢাকায় নয়, সারা দেশেই যেন এরকম ছুটি কার্যকর করা হয়।

বিকেএমইএর সহসভাপতি ফজলে এহসান শামীম জানান, আগে একেক এলাকায় সপ্তাহে একদিন শিল্পকারখানা বন্ধ রাখার নিয়ম ছিল। মাঝে বিদ্যুৎ পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় আমরা শিল্পমালিকরা সেটি মানতাম না। বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রতিমন্ত্রী আবারো সপ্তাহে একদিন কারখানা বন্ধ রাখতে অনুরোধ করেছেন। আমাদের তাতে কোনো আপত্তি নেই। আমরা শুধু আগের রুটিন অনুযায়ী কারখানা সাপ্তাহিক বন্ধ রাখার কথা বলেছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবে।

তিনি বলেন, প্রতিমন্ত্রী আমাদের জানিয়েছেন, আগামী অক্টোবর থেকে বিদ্যুৎ পরিস্থিতির উন্নতি হবে। তখন নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হবে। ভারত থেকেও বিদ্যুৎ আসবে। তাছাড়া শীতের কারণে বিদ্যুতের চাহিদাও কম থাকবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী, তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সহসভাপতি শহিদউল্লাহ আজিম, বস্ত্রকল মালিকদের সংগঠন বিটিএমএর পরিচালক রাজীব হায়দার প্রমুখ।

বিজিএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শহিদউল্লাহ আজিম জানান, প্রতিমন্ত্রী আমাদের বললেন, পোশাক ও বস্ত্র কারখানা সপ্তাহে একদিন বন্ধ রাখলে প্রায় ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বাঁচবে। তাতে কি আমরা নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাব - প্রশ্ন করলে প্রতিমন্ত্রী আমাদের গ্যারান্টি দিতে পারেননি। তবে বলেছেন, পরিস্থিতির উন্নতি হবে। তারপর আমরা বিষয়টি মেনে নিয়েছি। 
তবে গ্যাসচালিত ক্যাপটিভ জেনারেটরভিত্তিক কারখানা ও কাপড় ডায়িংয়ের কারখানায় প্রতিদিনই উৎপাদন চালানোর বিষয়ে প্রতিমন্ত্রীকে জানিয়েছেন পোশাকশিল্প মালিকরা।