ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

সাদুল্লাপুরে এলজিইডির রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৮:৩৬, ১২ মে ২০২২

সাদুল্লাপুরে এলজিইডির রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ

রাস্তার কাজে তিন ইঞ্চি খোয়া না দিয়ে ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে গাইবান্ধা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ছাবিউল ইসলাম, সাদুল্লাপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. মেনজ, উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মশিউর রহমান ও ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। 

এ বিষয়ে গত ৮ মে এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন সাদুল্লাপুর উপজেলার ইদিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান সরকার।

অভিযোগে বলা হয়, বন্যা ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন প্রকল্পের আওতায় সাদুল্লাপুর উপজেলার জামলারজান থেকে ঠুটিয়াপাকুর সড়কের ৪ দশমিক ২২৪ কিলোমিটার থেকে ১০ দশমিক শূন্য ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত মোট ৫ দশমিক ৮২৬ কিলোমিটার রাস্তা মেরামত কাজ চলছে, যার ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। 

এর আগে ২০১৭-১৮ সালে একই রাস্তায় ৬ ইঞ্চি খোয়া দিয়ে ডব্লিউবিএম করে নতুন কার্পেটিং কাজ করা হয়। রাস্তাটি বন্যা ও বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় মেরামতের জন্য দরপত্র আহ্বান করে ২০২১ সালের ২০ ডিসেম্বর রাসেল এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়া হয়। 

মেরামতকাজে নতুন করে তিন ইঞ্চি খোয়া দেয়ার কথা থাকলেও তা না দিয়ে পুরনো খোয়া আলগা করে রোলার করে তার ওপর প্রায় ২ কিলোমিটার কার্পেটিং করা হয়েছে। নতুন খোয়া ব্যবহার না করলেও ঠিকাদারকে এ কাজের জন্য ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা বিল দেয়া হয়েছে। 

এছাড়া কার্পেটিং কাজে পুরনো মালামাল ব্যবহার করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, রাস্তাটিতে ডব্লিউবিএমের পুরুত্ব মোট ৯ ইঞ্চি হওয়ার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। ডব্লিউবিএমে নতুন কোনো খোয়া ব্যবহার না করেও ঠিকাদারকে প্রথম চলতি বিল প্রায় ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে, যা সুস্পষ্ট দুর্নীতি বলে প্রমাণ হয়। 

ইদিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান সরকার সরেজমিন তদন্ত করে সুষ্ঠুভাবে কাজটি বাস্তবায়ন করার জন্য অনুরোধ জানান তার অভিযোগে। তবে অভিযোগ দায়েরের পরও এ বিষয়ে কোনো তদন্ত হয়নি বলে জানান তিনি।
 
এসব বিষয়ে রাসেল এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী এবং সাদুল্লাপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. মেনজের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। 

এদিকে গাইবান্ধা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ছাবিউল ইসলাম বলেন, খোয়া না দিয়ে ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা ভাগাভাগি করে আত্মসাতের অভিযোগটি সঠিক নয়। নিয়ম অনুযায়ী কাজ চলছে। অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই। এছাড়া কাজ চলাকালে একজন প্রকৌশলী তদারকি করেন।