ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা তালা দিয়েছে চবির প্রধান ফটকে 

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:৩২, ১ আগস্ট ২০২২

আপডেট: ১৬:৪৫, ১ আগস্ট ২০২২

ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা তালা দিয়েছে চবির প্রধান ফটকে 

ছবি সংগৃহীত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান বা কাঙ্ক্ষিত পদ না পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন ছাত্রলীগের কিছু নেতার অনুসারীরা। এতে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে ক্যাম্পাস। 

জানা গেছে, রোববার (৩১ জুলাই) রাত সোয়া ১২টার দিকে ছাত্রলীগের ফেসবুক পেইজে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ৩৭৬ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর রাতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে তালা দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীদের একদল নেতাকর্মী।

এদিকে সোমবার (১ আগস্ট) সকালে নগরীর পুরাতন রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেনের লোকো মাস্টারকে ধরে নিয়ে গেছে একদল যুবক। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন চলাচলও বন্ধ রয়েছে। বিষয়টি জানিয়েছেন ষোলশহরের স্টেশন মাস্টার তন্ময় চৌধুরী। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ৭টায় নগরীর পুরাতন স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনটি ৭টা ৪০ মিনিটে নগরীর ঝাউতলা স্টেশনে থামার পরপরই একদল যুবক ট্রেনে উঠে লোকোমাস্টারকে ধরে নিয়ে যায়।

এদিকে ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী সকালে শিক্ষক-কর্মকর্তাদের কোনো বাসও ক্যাম্পাস থেকে ছেড়ে আসতে দেয়নি। রাত থেকে তারা ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার পর পদবঞ্চিতরা রাতে প্রধান ফটকে বিক্ষোভ দেখায়। তখন তাদের আমরা বুঝিয়ে হলে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম। সকালে আবার তারা বাস, ট্রেন অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে। ফলে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। পরীক্ষার নতুন তারিখ পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।

বিক্ষোভকারীরা বলেন, তিন বছর আগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়েছিল এক বছরের জন্য। তাদের মেয়াদ পার হওয়ার পর পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সেখানে ‘অবৈধ আর্থিক লেনদেন’ হয়েছে।

তারা আরো দাবি করেন, এই কমিটিতে ছাত্রলীগের অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীকে বঞ্চিত করা হয়েছে। অনেকে অছাত্র, মাদকসেবী এবং ছাত্রশিবিরের মতাদর্শে বিশ্বাসীরা কমিটিতে স্থান পেয়েছে।

এ বিষয়ে চবি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে যারা পদ পায়নি তারা প্রধান ফটকে বিক্ষোভ করছে। শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই রেজাউল হককে সভাপতি ও ইকবাল হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে এক মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দায়িত্ব দেয়া হলেও তা হয়নি। পরবর্তীকালে তিন বছর পর রোববার মধ্যরাতে ৩৭৬ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।