ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘শিক্ষকদের সম্মানের জায়গাটা ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে’

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৫:২১, ১৯ নভেম্বর ২০২২

আপডেট: ২০:৩০, ১৯ নভেম্বর ২০২২

‘শিক্ষকদের সম্মানের জায়গাটা ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে’

রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও শিক্ষকরা সমাজের সাধারণ মানুষের কাছে সম্মানিত ব্যক্তি। আমরা যখন ছাত্র ছিলাম এবং এর অনেক পরেও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও শিক্ষকদের দেখলে এবং তাদের কথা শুনলে শ্রদ্ধায় মাথা নত হয় আসত। কিন্তু ইদানীংকালে কিছু কিছু উপাচার্য ও শিক্ষকের কর্মকাণ্ডে সমাজের শিক্ষকদের সম্মানের জায়গাটা ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে।

শনিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ঢাবির ৫৩তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতির ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি। 

রাষ্ট্রপতি বলেন, আপনাদের প্রতি সর্ম্পূণ আস্থা ও শ্রদ্ধা রেখে বলছি, কিছু সংখ্যক অসাধু লোকের কর্মকাণ্ডের জন্য গোটা শিক্ষক সমাজের মর্যাদা যেন ক্ষুণ্ন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

ঢাবি আচার্য বলেন,  কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পরিবারের লোকদের চাকরি দেয়া। কিন্তু সেটা এই পেশার সঙ্গে যায় না। 

তিনি বলেন, একজন উপাচার্যের মূল দায়িত্ব হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমের তত্ত্বাবধায়ন, পরিচালন, মূল্যায়ন ও উন্নয়নকে ঘিরে। কিন্তু ইদানীং পত্রিকা খুললে মনে হয়, পরিবার-পরিজন ও তাদের অনুগতদের চাকরি দেয়া এবং বিভিন্ন উপায়ে প্রশাসনিক ও আর্থিক সুবিধা নেয়াটাই যেন কিছু উপাচার্যের মূল দায়িত্ব।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শুধুমাত্র উচ্চ শিক্ষার একটি প্রতিষ্ঠান নয়, এটি নেতৃত্বেরও পথপ্রদর্শক। মুক্তিযোদ্ধাসহ বাঙালির প্রতিটি সংগ্রামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে গৌরবময় ভূমিকা। প্রতিটি আন্দোলনের নিউক্লিয়ার ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। কলাভবনে প্রথম উত্তোলন করা হয়েছিল স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনও ইতিহাসের অংশ। বাংলাদেশের অর্থ সামাজিক উন্নয়নে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে অবদান। জাতির পিতার শেখ মুজিবুর রহমান থেকে শুরু করে শেখ হাসিনা পর্যন্ত বহু নেতৃবৃন্দ এখান থেকে শিক্ষা নিয়ে আলোকিত হয়েছেন। আলোকিত মানুষ হয়ে অনেকে সমাজ সংস্কারের ভূমিকা রেখেছেন এবং ভবিষ্যতে রাখবেন বলে আশাবাদী।  

রাষ্ট্রপতি বলেন, প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় হলো এক একটি গবেষণাগার। বিশ্বের উন্নত রাষ্ট্রগুলো জ্ঞান চর্চার মাধ্যমেই সাফল্য লাভ করেছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, গবেষণায় আমরা অনেক পিছিয়ে গেছি। এক সময় প্রাচ্যের অক্সফোর্ডকে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশেষ নজরে দেখা হতো। অথচ সে ঐতিহ্য সংকুচিত হয়ে আসছে। ছাত্র-শিক্ষক এবং সুযোগ সুবিধা পর্যাপ্ত না হলেও অনেক গুণ বেড়েছে। কিন্তু সেই তুলনায় শিক্ষার মান কতটুকু বেড়েছে বা কমেছে সেটার মূল্যায়ন করতে হবে। গবেষণা বিষয়ে গণমাধ্যমে যেসব খবর প্রচারিত হয় তা দেখলে আমাকেও লজ্জা পেতে হয়।

তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে জাতির প্রত্যাশা অনেক। সম্মানিত শিক্ষকদের প্রতি আমার আহ্বান, শিক্ষার্থীদের গবেষণার পরিবেশ তুলে ধরুন যাতে তাদের বিদেশ যেতে না হয়। বর্তমান ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রযুক্তি আর আধুনিকতায় অনেক এগিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কর্মঠ আর যোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশ। আশা করি, কিছুদিনের মধ্যেই ডিজিটাল বাংলাদেশ হবে 'স্মার্ট বাংলাদেশ'। কিন্তু এই ডিজিটাল যুগেও প্রায়ই অভিযোগ শোনা যায় যে, ভর্তি প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে সার্টিফিকেট উত্তোলন পর্যন্ত বিভিন্ন স্তরে ছাত্র-ছাত্রীরা অবহেলা আর হয়রানির মুখোমুখি হন। আমি শিক্ষার্থীদের কাঙ্ক্ষিত সেবা দিতে ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টার, কাউন্সেলিং অ্যান্ড সাপোর্ট সেন্টার, ক্যারিয়ার প্লানিং ইউনিট ইত্যাদি চালুর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাই। পাশাপাশি সেসন জট কমানোর প্রচেষ্টা হিসেবে লস রিকভারি প্ল্যান, গবেষণা মেলার আয়োজন, স্টুডেন্ট সাপোর্ট ইউনিট ইত্যাদি চালু করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আজকে আমি বসে বক্তব্য রাখার জন্য অত্যন্ত দুঃখিত। আমি শারীরিকভাবে খুবই অসুস্থ। তিনদিন আগে বিদেশে চিকিৎসা করে ফিরেছি। চিকিৎসা করলেও তেমন ভালো হয়ে আসতে পেরেছি তা নয়। এই কনভোকেশনে আসার মত অবস্থা আমার নেই, কিন্তু মনের জোরে এসেছি। আমি পূর্বেও বলেছি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির যোগ্যতা আমার ছিল না। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ে চ্যান্সেলর হয়েছি আমি। রাষ্ট্রপতি হিসেবে আমার দ্বিতীয় মেয়াদের প্রায় শেষ। গত তিন বছর করোনার জন্য আসা সম্ভব হয়নি। আমার জন্য এটাই হয়তো শেষ সমাবর্তন। তবে নাকের আগে দম থাকা পর্যন্ত আমি চেষ্টা করবো, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে উপস্থিত থাকার। সেজন্য শরীরের জোর না থাকলেও মনের জোর এখানে এসেছি।

তিনি বলেন, ২০২৩ সালের এপ্রিলে রাষ্ট্রপতির দুই মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। ভবিষ্যতে আমার থেকে আরও জ্ঞানী-গুণী রাষ্ট্রপতি আপনারা পাবেন। তবে আমি আপনাদের কাছে এটুকুই বলতে চাই, যদিও এই ইউনিভার্সিটির ছাত্র আমি ছিলাম না তবে ৬০ দশকের প্রথম বা ৫০ দশকের শেষ থেকে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুসরণ করেই রাজনীতি করেছি, আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি এবং দেশ স্বাধীন করেছি। সুতরাং আমি চাই, এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আগামীতেও তাদের নেতৃত্বের মাধ্যমে এই দেশকে আর উন্নত করবে-এটাই আমি আশা করি।

এর আগে বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল প্রাঙ্গণ থেকে সমাবর্তনের শোভাযাত্রা শুরু হয়। পরে দুপুর ১২টার দিকে ঢাবি কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে শুরু হয় সমাবর্তনের মূল আনুষ্ঠানিকতা। সমাবর্তন অনুষ্ঠান উদ্বোধন ঘোষণা করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমাবর্তন বক্তা নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. জাঁ তিরল।  সমাবর্তনে তাকে সম্মানসূচক ডক্টর অব ল’জ ডিগ্রি প্রদান করা হয়।  

৫৩তম সমাবর্তনে ৩০ হাজার ৩৪৮ জন গ্র্যাজুয়েট ও গবেষক অংশ নেন। অনুষ্ঠানে ১৩১ জন কৃতী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীকে ১৫৩টি স্বর্ণপদক, ৯৭ জনকে পিএইচ.ডি, দুজনকে ডিবিএ এবং ৩৫ জনকে এমফিল ডিগ্রি প্রদান করা হয়। অধিভুক্ত সাত কলেজের রেজিস্ট্রেশন করা গ্র্যাজুয়েটরাও ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে ঢাকা কলেজ ও ইডেন মহিলা কলেজ ভেন্যু থেকে সমাবর্তনে অংশগ্রহণ করেন।

ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এসএম মাকসুদ কামাল, রেজিস্ট্রার প্রবীর কুমার সরকার এবং বিভিন্ন অনুষদের ডিনরা উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে।