ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বিমানের টিকিট জালিয়াতি, গ্রেফতার ১

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৯:০৪, ১২ মে ২০২২

আপডেট: ১৯:০৬, ১২ মে ২০২২

বিমানের টিকিট জালিয়াতি, গ্রেফতার ১

বিমানের টিকিট বিক্রি করে জালিয়াতির অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি)  গোয়েন্দা গুলশান বিভাগ। গ্রেফতারকৃতের নাম মাহবুব উর রশিদ। 

গতকাল বুধবার (১১ মে) রাত ১০টার দিকে রাজধানীর কলাবাগানের ২৪ গ্রিন রোডের একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের ৮১টি ভুয়া টিকিট, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ২টি মোবাইল ফোন, ২টি কম্পিউটার, ১টি জিপ গাড়ি, ১২টি বিভিন্ন ব্যাংকের চেক ও একটি ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের এটিএম কার্ড জব্দ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) এ কে এম হাফিজ আক্তার এসব তথ্য জানান।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, বেশ কিছু ট্রাভেলিং অ্যান্ড ট্যুর এজেন্সি মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা ও আফ্রিকার দেশগুলোতে যাওয়ার জন্য বিমানের টিকিট আগাম বিক্রি করছে। কিন্তু যাত্রীরা বিমানবন্দরে গিয়ে বিদেশ যেতে না পেরে প্রতারিত হচ্ছেন। এ বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ ও গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করে গোয়েন্দা গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমানের নেতৃত্বে একাধিক টিম।

গ্রেফতারকৃত মাহবুবের প্রতারণার কৌশল সম্পর্কে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, প্রতারক মাহবুব বিভিন্ন দেশে যাতায়াত, ওমরাহ পালন, সিঙ্গেল টিকিট, আপ-ডাউন টিকিট সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য ফেসবুকের মাধ্যমে প্রচার করে থাকেন। কোনো বিদেশযাত্রীর টিকিট প্রয়োজন হলে হোয়াটসঅ্যাপ বা মেসেঞ্জারের মাধ্যমে পাসপোর্টের ছবি নেন। পরবর্তী সময়ে দুবাইয়ে অবস্থিত বাংলাদেশি নাগরিক সাদের মাধ্যমে বেশকিছু এজেন্সির সহায়তায় টিকিট সংগ্রহ করে বিপুল পরিমাণ টাকার বিনিময়ে যাত্রীকে প্রদান করেন। কিন্তু মাহবুব যাত্রার পূর্বেই সামান্য জরিমানা দিয়ে টিকিট রিফান্ড করিয়ে নেন।

তিনি বলেন, ফ্লাইটের দিন মেডিক্যাল অ্যাপয়েন্টমেন্ট বা স্টাডি অ্যাডমিশন বা পবিত্র ওমরাহ পালন করতে যাওয়া যাত্রীরা টিকিট ইনভ্যালিড দেখতে পান। তখন ওইসব যাত্রীর মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ার মতো অবস্থা হয়। পরবর্তী সময়ে যাত্রীরা আবার তার সঙ্গে কথা বলে আরো অর্থের বিনিময়ে পুনরায় টিকিট সংগ্রহ করেন এবং আবারো তারা একইভাবে প্রতারিত হন। যাত্রীরা আবার যোগাযোগ করলে মাহবুব মোবাইল বন্ধ করে অফিস পরিবর্তন করেন।

ডিবি কর্মকর্তা বলেন, মাহবুব ইতোপূর্বে ২০১৫ সালে প্যান্টেট ওভারসিজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বিদেশে লোক পাঠাতে গিয়ে ডিএমপির মোহাম্মদপুর ও ধানমন্ডি থানায় পৃথক মানবপাচার মামলার আসামি হন। এরপর থেকে ঢাকার একাধিক স্থানে এমকিউ ট্রেড, এমকিউ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস কনসালট্যান্সি নামে বিভিন্ন অফিস পরিবর্তন করে এ প্রতারণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

গ্রেফতারকৃতের বিরুদ্ধে ডিএমপির ভাটারা থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।