ঢাকা বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

হলুদ রঙে ছেয়ে গেছে কিশোরগঞ্জের হাওর

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৬:০৩, ২১ ডিসেম্বর ২০২২

আপডেট: ১৬:০৬, ২১ ডিসেম্বর ২০২২

হলুদ রঙে ছেয়ে গেছে কিশোরগঞ্জের হাওর

কিশোরগঞ্জের হাওর অধ্যুষিত মিঠামইন উপজেলা হলুদ রঙে রঙিন হয়েছে উঠেছে। সরিষা ফুলের হলুদ রঙ, ঘ্রান আর মৌমাছির গুঞ্জন আকৃষ্ট করছে প্রকৃতি প্রেমিদের। এবার সরিষার বাম্পার ফলনে খুশি কৃষকরা। ফুলে ফুলে মৌমাছির গুঞ্জন। সরিষা ফুলের ঘ্রান আর হালকা বাতাসে গাছের দুলনিতে উঠে হলুদ ঢেউ। এ দৃশ্য মুগ্ধ করবে যেকোন প্রকৃতি প্রেমিকে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মাঠে মাঠে সরিষার রাশি রাশি হলুদ। অনেক দর্শনার্থী সরিষার মাঠে আসছেন সৌন্দর্য দেখতে। 

ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা জানান, ভরা বর্ষায় হাওরের থৈ থৈ পানির সৌন্দর্য দেখতে এসেছিলাম। এখন যেখানে পানি ছিলো সেখানে সরিষা ফুলের মনোমুগ্ধকর সৌন্দর্য দেখতে এসেছি। সরিষা ফুলের সাথে ছবি তুলছি, খুব ভালো লাগছে। হাওরে আসার জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই ভালো, তাই আসা-যাওয়া সহজ।

কৃষক আঞ্জু মিয়া জানান, আমার বাড়ি করিমগঞ্জ উপজেলায়। এ হাওরে আমার জমি আছে। পানি নেমে যাওয়ার পর ছয় মাসের জন্য অস্থায়ী ঘর বানিয়ে আমি এ জমিতে বোরো আবাদ করি। কয়েক বছর ধরে কৃষি বিভাগের পরামর্শে পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে সরিষার আবাদ করছি। এর আগে এমন সময়ে জমি পতিত থাকতো। ৭০ থেকে ৭২ দিনে সরিষার ফলন হয়। পরে আবার এ জমিতেই বোরো আবাদ করি। তাই এটা আমার বাড়তি ফসল। এ ফসলের টাকা দিয়ে বোরো আবাদের খরচ হয়ে যায় আমার। ১৫ একর জমিতে সরিষার আবাদ করেছি। এবছর সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে, তাই খুশি আমি।

মিঠামইন উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. আনিছুর রহমান জানান, সরকারি আদেশ ৪০ শতাংশ ভোজ্য তেল দেশেই উৎপাদন করতে হবে। সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি আমরা। হাওরের জমি গুলো ৬ মাস পানির নীচে থাকে। বাকি ৬ মাসে একটিমাত্র ফসল হয় বোরো ধান। পানি নেমে যাওয়ার পর বোরো আবাদ ব্যহত না করে স্বল্প সময়ে এ সরিষার আবাদ হচ্ছে। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে আমরা কৃষকদের উৎসাহ দিয়ে পাশে থেকে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। এছাড়াও, সরিষা বীজ এবং সার বিনা মূল্যে বিতরণ করা হচ্ছে কৃষকদের মাঝে। এতে করে প্রতি বছরই সরিষার আবাদ বাড়ছে।

কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. আব্দুস ছাত্তার জানান, জেলায় এবার সরিষা আবাদ হয়েছে ৯ হাজার ৩ শত হেক্টর জমিতে। যা থেকে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার মেট্রিক টন সরিষা।