ঢাকা Wednesday, 04 October 2023

মতলব উত্তরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ভ্রাম্যমাণ ধান ভাঙানোর কল

মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 18:43, 5 June 2023

আপডেট: 18:44, 5 June 2023

মতলব উত্তরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ভ্রাম্যমাণ ধান ভাঙানোর কল

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় চলতি মৌসুমের রোপা, ইরি ও আউশ ধান কাটা শেষে গোলায় তোলার কাজও শেষ পর্যায়ে। এখন কৃষকরা ব্যস্ত শুকানো ধান ভাঙাতে। এই সময়ে জেলায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ ধান ভাঙানোর মেশিন বা কল। 

এই উপজেলার বেকার যুবকরা শ্যালো মেশিনে ধান ভাঙানোর যন্ত্র যুক্ত করে কৃষকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান ভাঙিয়ে দিচ্ছেন। এর ফলে গৃহস্থদের আর হাট-বাজার কিংবা মিলে গিয়ে ধান ভাঙানোর ঝক্কি পোহাতে হচ্ছে না। 

এছাড়া লোডশেডিং কিংবা বিদ্যুৎ বিভ্রাটেও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে না ধান ভাঙানো। 

উপজেলার ছেংগারচর পৌরসভার ঠাকুর গ্রামের কৃষক আ. জব্বার এখন শ্যালো মেশিনে ধান ভাঙার চাকি হলার (যন্ত্র) সংযোজন করে কৃষকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান ভাঙাচ্ছেন। তিনি প্রায় ১২ বছর ধরে এই কাজ করছেন। 

গত রোববার (৪ জুন) দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার দক্ষিণ ঠাকুরচর গ্রামের মোল্লা বাড়িতে শ্যালো মেশিনে ধান ভাঙাতে ব্যস্ত আব্দুল জব্বার। 

তিনি জানান, একটি পাওয়ার টিলার মেশিনের সঙ্গে ১টি হলার যোগ করে ধান ভাঙার মেশিন তৈরি করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান ভাঙানোর কাজ করছেন। 

জব্বার বলেন, বিভিন্ন মৌসুমে ভ্রাম্যমাণ রাইস মেশিন নিয়ে কৃষকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান ভাঙাই। কৃষকদের এখন দূরে বাজারে কিংবা মিলে গিয়ে ধান ভাঙাতে হয় না। এতে তাদের সময় ও কষ্ট অনেক কমেছে। 

তিনি বলেন, যাদের প্রয়োজন হয় তারা যোগাযোগ করলে বাড়িতে গিয়ে ধান ভাঙিয়ে দিয়ে আসি। মণপ্রতি ধান ভাঙাতে নিই ৭০ টাকা। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১০০ মণ ধান ভাঙানো যায় আমার মেশিন দিয়ে। এতে যে পাই তাতে আমার খরচ বাদে দৈনিক ২ হাজার টাকা আয় হয়। 

মেশিনে ধান থেকে চাল করতে আসা কৃষক মো. মাহাবুব (৪৫) বলেন, এবার ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আমাদের গ্রাম থেকে ধান ভাঙাতে অনেক দূরে যেতে হয়। এতে সময় লাগে বেশি, কষ্টও হয়। এই মেশিনে ধান ভাঙাতে খরচ সামান্য বেশি হলেও বাড়তি কষ্ট করতে হয় না। ঘরে বসেই ধান ভাঙাতে পেরে আমি খুশি। 

এই এলাকা একজন গৃহিণী শারমিন বেগম বলেন, এই মেশিনের মাধ্যমে বাড়িতে ধান ভাঙাতে পেরে আমাদের অনেক সুবিধা হয়েছে। আগে বস্তায় করে মিলে গিয়ে ধান ভাঙাতে হতো। এতে অনেক কষ্ট হতো। এখন অনেক সুবিধা হয়েছে।