ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

খালেদা জিয়ার চিকিৎসা : বিএমএ’র বক্তব্য নাকচ ড্যাবের

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৫:৫৪, ১ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৯:২৫, ১ ডিসেম্বর ২০২১

খালেদা জিয়ার চিকিৎসা : বিএমএ’র বক্তব্য নাকচ ড্যাবের

ফাইল ছবি

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) বক্তব্যকে নাকচ করে দিয়েছে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব)। 

সম্প্রতি বিএমএ বলেছে, বিদেশ থেকে চিকিৎসক এনে দেশেই খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সম্ভব। কিন্তু ড্যাব জানিয়েছে, বিএমএ নেতাদের এ বক্তব্য ‘কালক্ষেপণ’ মাত্র এবং ‘সরকারের অবস্থানে’র প্রতি সমর্থন। 

বুধবার (১ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে অবহিতকরণ, বিদেশে সুচিকিৎসা ও স্থায়ী মুক্তির দাবিতে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ড্যাব। 

সেখানে ড্যাব সভাপতি ডা. হারুন আল রশিদ বলেন, খালেদা জিয়ার যে অসুস্থতা, তার রক্তক্ষরণ হচ্ছে, কয়েকবার রক্তক্ষরণ হয়েছে। এটা এমন একপর্যায়ে আছে, এখানে কালক্ষেপণ করার সুযোগ নেই। তার চিকিৎসার পুরোটাই একটা টিমওয়ার্ক। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও জার্মানির জায়গায় জায়গায় এই চিকিৎসা হয় না, দু-একটা সেন্টারে হয়। এটা টোটাল একটা টিমওয়ার্ক। যদি চিকিৎসক আনা হয়, তিনি বলবেন, আমি তো একা পারব না। ওই টিমে যে নার্স, ওয়ার্ডবয়, যন্ত্রপাতি - প্রত্যেকেই ইকুইপড (প্রশিক্ষিত)। একজনের ভুলে পুরো জিনিস পণ্ড হয়ে যেতে পারে। সেজন্য যারা বলছে যে, বিদেশ থেকে চিকিৎসক এনে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করানো যেতে পারে, এটা কালক্ষেপণ এবং সরকারের অবস্থানকে সমর্থন করা। সরকার যেহেতু বিদেশে যেতে দিতে চাইছে না, সেজন্য তাকে ব্যাকআপ দেয়া।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসক প্যানেলের সদস্যরা দেশের প্রথিতযশা যত চিকিৎসক আছেন, তাদের মধ্যে স্বনামধন্য। তারা সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, তার (খালেদা জিয়া) বাংলাদেশে চিকিৎসা এ মুহূর্তে সম্ভব নয়। এমনকি উপমহাদেশেও সম্ভব নয়। এর বিপক্ষে সরকারের অবস্থান যা, ঠিক তারই পুনরাবৃত্তি ঘটিয়েছে বিএমএ। তারা খালেদা জিয়ার চিকিৎসার মৌলিক অধিকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

এ সময় ড্যাব মহাসচিব মো. আবদুস সালাম বলেন, খালেদা জিয়ার লিভার সিরোসিস হয়েছে। লিভার সিরোসিস তো দূরের কথা, বাংলাদেশে লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট পর্যন্ত হয় না। আজ পর্যন্ত দুটি ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়েছে, তার মধ্যে একজন মারা গেছেন, আরেকজনের অবস্থা ভালো নয়। সুতরাং লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা বাংলাদেশে হয়, এটা ভুল তথ্য।

খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার তথ্য তুলে ধরে হারুন আল রশিদ বলেন, তার হিমোগ্লোবিনের লেভেল কিছুটা কমেছে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে, সেগুলোর রেজাল্ট এখনো আসেনি। তার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে। তবে গত পরশু রাতে তার আবারো রক্তক্ষরণ হয়েছে। সে কারণেই হয়তো হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কিছুটা কমেছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ড্যাব মহাসচিব মো. আবদুস সালাম। লিখিত বক্তব্যে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার মৌলিক সুযোগ দেয়ার দাবি জানানো হয়।