ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

নামে নয়, সুরে সুরে একে অপরকে ডাকেন যে গ্রামের মানুষেরা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 19:00, 17 May 2024

আপডেট: 19:34, 17 May 2024

নামে নয়, সুরে সুরে একে অপরকে ডাকেন যে গ্রামের মানুষেরা

ভারতের সুন্দর রাজ্যে মেঘালয়। রাজ্যটি নানা রহস্য ঘেরা। এর সংস্কৃতির যেমন বিচিত্র তেমনি রাজ্যটির জীবনযাত্রাও বৈচিত্র্যময়। অপরূপ সুন্দর রাজ্যে রয়েছে অসংখ্য গ্রাম। এর মধ্যে একটি পাহাড়ি গ্রাম কংথং যা মেঘালয়ের সুরেলা গ্রাম নামে পরিচিত। এই গ্রামটি বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে “হুইসেলিং ভিলেজ” হিসেবে। কারণ গ্রামের মানুষদের নাম দেওয়া হয় সুরে সুরে। 

মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলং থেকে ৫৪ কিলোমিটার দূরত্বে মেঘের আড়ালে লুকিয়ে থাকা গ্রাম কংথং। দেখতে ছবির মতো হলেও পাহাড়ের কোলে এই গ্রামের অধিবাসীদের জীবন অত্যন্ত কঠিন। দরিদ্র এই গ্রামের মানুষেরা চাষাবাদ ও গবাদি পশু লালন পালন করে জীবিকা নির্বাহ করে। গ্রামের অধিবাসীরা গবাদি পশু নিয়ে চোষে বেড়ান এক পাহাড় থেকে অন্য পাহাড়ে। বির্স্তিন্ন এই পাহাড়ি এলাকায় কথাবার্তার মাধ্যমে যোগাযোগ করা কঠিন বলে তারা এই বিচিত্র উপায় অবলম্বন করে। অভিজ্ঞ মেষ পালকেরা সুর করে শিস বাজান। সেই সুর পৌঁছে যায় পাহাড়ের আড়ালে থাকা মানুষটির কাছে। তিনিও জবাব দেন তীক্ষ্ণ সুরে। বাহিরের মানুষের কাছে তা কেবল সুরেলা শব্দ মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে এটি আসলে ব্যক্তির নাম। বিস্ময়কর ব্যাপার হলো এই গ্রামের সবারই একটি সুরেলা নাম আছে যে কারণে গ্রামটি মেঘালয়ের সুরেলা গ্রাম নামে পরিচিত।

কংথং একটি মাতৃপ্রধান গ্রাম। এ গ্রামের পরিবারগুলোতে জীবিকা বা সমাজতান্ত্রিক সিদ্ধান্তের কেন্দ্রে থাকেন একজন নারী। সন্তান জন্মের পর তার নাম রাখার কাজটি করেন তার মা। পরিবারের শিশু জন্মাবার পর নাম রাখার অনুষ্ঠানে মা নিজেই তার পছন্দের সুরটি সবাইকে শোনান। আর সেই সুরের মধ্য দিয়েই শিশুটি সমাজে পরিচিতি পায়। সুরে সুরে কথা বলার ঐতিহ্যের কথা উঠলে অনেকেই বলবেন তুরস্কের কুসকোয় গ্রামের নাম। মজার ব্যাপার হলো তুরস্কের কুসকোয় গ্রামে কথাবার্তা বলার জন্য পাখির ডাকের ব্যবহার হলেও শুধু নাম রাখার ক্ষেত্রে বছরের পর বছর ধরে অধিবাসীরা শিস ব্যবহার করে আসছে। কংথং গ্রামে মোট ৭০০ জন মানুষ বাস করে। তারা দুটি নাম ব্যবহার করে ,একটি বড় এবং একটি ছোট। বড় নামটি সাধারণত বাহিরের মানুষ বা প্রতিবেশীদের জন্যে। আর ছোট নামটি ব্যবহার করা হয় ঘরের মানুষ ও আত্মীয়-স্বজনদের জন্য।

মজার ব্যাপার হলো প্রতিটি সুর আলাদা এবং এক সুর কখনো দ্বিতীয়বার ব্যবহার করা হয় না। একজন কংথং গ্রামের বাসিন্দার মৃত্যুর সাথে সাথে সেই নাম বা সুরেরও মৃত্যু হয় চিরতরে। কতদিন ধরে এই সুরেলা নাম প্রচলিত আছে তা জানা না গেলেও প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে এটি চলে আসছে। মূলত পাহাড়ের কঠিন জীবন নিয়ে দৈনন্দিন প্রয়োজনীয়তা থেকেই এমন নামের উদ্ভব। স্থানীয় ভাষায় একে বলা হয়ে থাকে ” জিংওয়াই লইবে ”। তবে এমন নাম এর বাহিরেও এখানকার বাসিন্দাদের নাম আছে। সময়ের প্রয়োজনেই সেসব নামের সৃষ্টি। মূলত বাইরে থেকে আসা মানুষের জন্য আর সরকারি বা দাপ্তরিক কাজে সে নাম ব্যবহার করা হয়। কংথং বাসীরা নিজেদের এমন সুরেলা নাম নিয়ে গর্ববোধ করে। তারা তাদের ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে চায় অনন্তকাল।