ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

মিথিলেশ থেকে নটবরলাল, বিশ্বের সেরা প্রতারকের গল্প 

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 21:29, 9 March 2024

মিথিলেশ থেকে নটবরলাল, বিশ্বের সেরা প্রতারকের গল্প 

একজন সরকারি আধিকারিক সেজে বিদেশি পর্যটকদের বোকা বানিয়ে বেচে দিয়েছিলেন মুঘল স্থাপত্যশৈলীর আকর্ষণীয় নিদর্শন তাজমহল। তাও আবার একবার নয় শোনা যায় তিনি নাকি তিন তিনবার বেচে দিয়েছিলেন তাজমহল। শুধুই কী তাজমহল? নটবরলাল নাকি বেচে দিয়েছিলেন লালকেল্লা, ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনের মত স্থাপনাও। শোনাযায় একবার নাকি তিনি এক বিদেশির কাছে বেচে দিয়েছিলেন খোদ ভারতের সংসদ ভবনও। পরে ধরা পরার পর অপরাধের জন্য তাঁকে ১১৩ বছরের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ২০ বছরই সব মিলিয়ে জেলে কাটান তিনি।

ইতিহাসের সেরা এই প্রতারককে সকলে চেনেন নটবরলাল নামে। আসলে তার নাম মিথিলেশ কুমার শ্রীবাস্তব। প্রতারক হিসাবে পরিচিত নটবরলালকে কারাগারেও বন্দি করে রাখা যেত না। কোনও না কোনও ফন্দি বার করে ঠিক কারাগার থেকে পালাতেন তিনি। তারপর নতুন বুদ্ধি খাটিয়ে ফেঁদে বসতেন একের পর এক ঠকানোর ব্যবসা।

১৯১২ সালে ভারতের বিহারের জিরাদাই গ্রামে জন্ম হয় মিথিলের শ্রীবাস্তবের। মেধাবী মিথিলেশ স্নাতক পাশ করার পরেই আইন নিয়ে পড়াশোনা শুরু করে। আর তখন থেকেই সে প্রতারণা শুরু করে।

নিজের গ্রামের এক লোকের সঙ্গেই তার প্রথম প্রতারণা শুরু। ১৯৩০ সালের দিকে সেই ব্যক্তি শহরের ব্যাংকে টাকা জমা করতে দিয়েছিলেন। জমা করার পর ওই ব্যক্তির সই নকল করে ব্যাংক‌ থেকে প্রায় এক হাজার টাকা তুলে নেন নটবর। 

সই জাল করার ব্যাপারেও তিনি ছিলেন বিরাট ক্ষমতার অধিকারী। শোনাযায় প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি রাজেন্দ্র প্রসাদ থেকে শিল্পপতি ধীরুভাই আম্বানি, টাটা, বিড়লা সকলের সই নকল করতে পারতেন তিনি। এতো বড় বড় রাঘব বোয়ালদের ঘোল খাওয়ানো এই মানুষটির পিছনে যে পুলিশ ছুটবে, সেটাই তো স্বাভাবিক। ১০০টিরও বেশি মামলাও ছিল তাঁর নামে।

তবে অসম্ভব বুদ্ধি এবং চতুরতার সঙ্গে তিনি ছিলেন ছদ্মবেশ ধারণেও পটু। ৫০টিরও বেশি ছদ্মবেশ ধারণ করেছিলেন নটবরলাল! ভারতের ৮টা রাজ্যের পুলিশ তাঁর খোঁজে দৌড়ে বেড়িয়েছে। মোট ৯ বার আটকও হয়েছিলেন নটবরলাল। কিন্তু প্রত্যেকবারেই পালিয়ে এসেছিলেন তিনি, কেউ ধরতেও পারেনি। শেষবারটি ছিল ১৯৯৬ সালে, শরীর অসুস্থ বলে কানপুর জেল থেকে দিল্লি এইমসের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়ার সময় তিনি বেপাত্তা হয়ে যান। তখন তাঁর বয়স ৮৪! 

তবে নটবরলাল তাঁর নিজের গ্রামে ছিলেন রবিন হুড। তিনি অধিকাংশ সময় গা ঢাকা দিয়ে থাকতেন। কারণ তাঁকে তাঁর অপরাধের জন্য পুলিশ খুঁজে বেড়াত। গা ঢাকা দিয়ে থাকাকালীন অনেক সময় তিনি নিজের গ্রামে হাজির হতেন। সেখানে গ্রামের মানুষদের খাওয়াতেন। টাকা দিতেন। 

নিজের মৃত্যু নিয়েও দন্দ্ব করে রেখে গেছেন নটবরলাল। অবশ্য গা ঢাকা দিতে যিনি এত পারদর্শী, তাঁর পক্ষে তো এ আর কিছুই নয়! ২০০৯ সালের ২৫ জুলাই মারা গিয়েছিলেন নটবরলাল। যদিও তার আসল মৃত্যু তারিখ জানা যায়নি।