ঢাকা Saturday, 15 June 2024

মরুর বুকে লুকিয়ে থাকা ভূতুড়ে গ্রাম আল মাদাম 

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 13:41, 10 November 2023

মরুর বুকে লুকিয়ে থাকা ভূতুড়ে গ্রাম আল মাদাম 

আকাশসীমা ভেদ করা অট্টালিকা ও জৌলসপূর্ণ আধুনিক আরব আমিরাতের জাঁকজমকের মাঝে লুকিয়ে থাকা ভৌতিক গ্রাম আল মাদাম। মরুভূমির বালিতে চাপা পড়ে থাকা এই পরিত্যক্ত গ্রামে পার্শ্ববর্তী এলাকার কোনো লোকই আসতে চায়না। কারণ লোকমুখে প্রচলিত যে, গ্রামটি ভৌতিক। 

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্ববৃহৎ এবং সবচেয়ে জনবহুল শহর। দুবাই থেকে মাত্র ৭৪ কি.মি. দূরেই রয়েছে পরিত্যক্ত গ্রাম আল মাদাম। দুবাই শহর হতে ঘণ্টাখানেকেরও কম সময়ে গাড়ি চালিয়ে পৌঁছানো যায় শারজার সীমান্তবর্তী নির্জীব এই গ্রামে। পরিত্যক্ত ১২টি বাড়ি এবং কেন্দ্রে নির্মিত একটি মসজিদে ঘেরা আল-মাদাম গ্রামে প্রথমে পা রাখতেই জনশূন্যতার বিস্ময়কর নিরবতা এবং রহস্যময় বালির ঘ্রাণ পাওয়া যাবে। পুরো গ্রামটিকে ধীরে ধীরে গ্রাস করে নিচ্ছে মরুভূমির বালি। পরিত্যক্ত বাড়িগুলোর দরজা পুরোপুরি খোলা, আবার কোনো কোনো বাড়িতে দরজার অস্তিত্বই নেই। বাড়িগুলোর ভেতরে রাখা এলোমেলো আসবাবপত্রগুলোকেও গ্রাস করেছে বালির প্রতিটি কণা। গ্রামের এই দৃশ্য দেখে যে কেউ বুঝতে পারবে, গ্রামের বাসিন্দারা আচমকা কোনো বিপদে নিজেদের জীবন রক্ষার্থে সবকিছু ছেড়ে গ্রাম হতে পালিয়েছে। আবার অনেকে এই কথাও বলে থাকে, অতিপ্রাকৃত কোনো শক্তি এই গ্রামের বাসিন্দাদের গ্রাম ছেঁড়ে পালাতে বাধ্য করেছে। 

আশ্চর্যজনক বিষয় হচ্ছে, স্থানীয়দের কারোরই এই ভৌতিক গ্রামের ইতিহাস সম্পর্কে জানা নেই। তবে কেউ যে, এই গ্রামের ইতিহাস সম্পর্কে জানার চেষ্টা করেনি তা কিন্তু নয়। ২০১৮ সালে শারজাহ আর্ট ফাউন্ডেশন গ্রামের ইতিহাস খুঁজে বের করার উদ্দেশ্যে জনসাধারণের মাঝে একটি জরিপ চালায়। জরিপে কিছু স্থানীয়রা জানান, এই রহস্যময় গ্রামটি ১৯৭০ দশকের মাঝামাঝি সময়ে নির্মাণ করা হয় এবং সেখানে আল কুতবি সম্প্রদায় বসবাস করতো। কিন্তু এই জরিপের ফলাফল জনসাধারণের মাঝে সরাসরি প্রকাশ করা হয়নি।

একটি তত্ত্বে উঠে আসে যে, বেদুইন জনসংখ্যাকে সুনির্দিষ্ট বসতি প্রদানের উদ্দেশ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারের শা’বি প্রজেক্টের একটি অংশ ছিল এই আল-মাদাম গ্রাম। তবে এই গ্রামের বর্তমান অবস্থা দেখেই বোঝা যাচ্ছে যে, সরকারের নেয়া প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়নি।

এই গ্রামে বসবাসরত জনগণ হঠাৎ কেন তাদের সবকিছু ছেড়ে এই স্থান ত্যাগ করেছিল তা আজও একটা রহস্য হয়েই আছে। গ্রামের অবকাঠামোগত অবস্থা, প্রতিকূল পরিবেশ এবং মরুঝড়কে এর প্রধান কারণ বলে মনে করেন অনেক স্থানীয়রা।  

তবে গ্রামটি পরিত্যক্ত হওয়ার পিছনে স্থানীয়দের মাঝে একটি বহুল প্রচলিত বিশ্বাস রয়েছে। তা হলো, এই গ্রামটি মূলত জ্বিনদের বাসস্থান। অনেকে বলে থাকেন, এই স্থানে “উম্মে আল দুওয়াইস” নামের একজন মহিলা জ্বিন বাস করে, যার চোখ বিড়ালের মতো এবং হাতে সর্বদা ধারালো অস্ত্র থাকে। 

উম্ম আল দুওয়াইস চরিত্রটি মূলত আরব সম্প্রদায়ের মাঝে বহু প্রজন্ম ধরে প্রচলিত। এই নারী জ্বিনকে মূলত রাতে দেখতে পাওয়া যায়। যেসকল পুরুষ খারাপ উদ্দেশ্যে রাতের বেলা নারীদের খোঁজ করতে থাকে, তাদের সামনে অতি সুন্দরী এক নারীর বেশে হাজির হয় উম্ম আল দুওয়াইস। এই নারী জ্বিনের শরীর হতে বেশ মিষ্টি এক ঘ্রাণের উদ্রেক হয় যা অসাধু পুরুষদের তার প্রতি আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলে। 

উম্ম আল দুওয়াইস রাতের বেলা পথ হারিয়ে ফেলা তরুণ ভ্রমণকারী হিসেবে অসাধু পুরুষদের সামনে হাজির হয় এবং এক পর্যায়ে, তাদের কাছে টেনে তাদের মাথা শরীর হতে আলাদা করে ফেলে নির্মমভাবে হত্যা করে। আর এই নারী জ্বিনের মূল বাসস্থান আল মাদাম গ্রাম।  

জনশূন্য, নির্জীব আল মাদাম গ্রামের অতিপ্রাকৃত ঘটনার চেয়েও বিস্ময়কর রহস্য হচ্ছে, গ্রামটি সন্ধ্যায় অদৃশ্য হয়ে যায় এবং ভোরের আলোর সাথে সাথেই আবার দেখা মিলে। সত্যিকার অর্থেই এমনটা ঘটে থাকে বলে জনসাধারণের মাঝে গ্রামটি ভৌতিক গ্রাম হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। 

দুবাইয়ের শিল্পায়নের আগে এই গ্রামে আসার অনুমতি না থাকলেও, বর্তমানে সকল পর্যটকই দিনের বেলা এই গ্রামে ঘুরে বেড়াতে পারে। এমনকি অনুসন্ধান চালাতে পারবে বালির নিচে চাপা পড়ে থাকা গ্রামবাসীর পরিত্যক্ত বাড়িগুলোতে।