ঢাকা Sunday, 26 May 2024

রহস্যময় উপজাতি হুনজা, যারা বাঁচেন কমপক্ষে ১২০ বছর

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:22, 12 September 2023

রহস্যময় উপজাতি হুনজা, যারা বাঁচেন কমপক্ষে ১২০ বছর

বর্তমান বিশ্বের মানুষ শারীরিকভাবে সক্ষম থাকতে, যৌবন ধরে রাখতে, দীর্ঘায়ু হতে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করছে। সেখানে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বসবাস করা হুনজা সম্প্রদায় বার্ধক্যকে  ঠেকিয়ে রেখেছেন প্রাকৃতিকভাবেই। 

জানা যায়, হুনজা সম্প্রদায়ের একজন ৯০ বছরের বৃদ্ধও বাবা হওয়ার ক্ষমতা রাখেন। ৬০ থেকে ৭০ বছরের হুনজা মহিলাও  অনায়াসে গর্ভবতী হন ও সুস্থ সন্তান প্রসব করেন। এছাড়া এ সম্প্রদায়ের মানুষদের মধ্যে ১৬৫ বছর বাঁচার রেকর্ডও রয়েছে।

হুনজা জনগোষ্ঠীর দীর্ঘায়ু হওয়ার রহস্য নিয়ে প্রায় একশ বছর ধরে চর্চা চললেও, তা বিশ্বের কাছে আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে ওঠে ১৯৮৪ সালে। ইংল্যান্ডের হিথরো বিমানবন্দরে পাকিস্তান থেকে আসেন সৈয়দ আব্দুল মবুদু নামে এক বৃদ্ধ হুনজা। পাসপোর্টে তাঁর জন্ম তারিখ দেখে চমকে যান ইমিগ্রেশন অফিসাররা। পাসপোর্টে সৈয়দ আব্দুল মবুদু্র জন্ম সাল দেওয়া ছিল ১৮৩২। মানে তাঁর বয়স তখন ছিল ১৫২ বছর। ইমিগ্রেশন অফিসাররা বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না যে মানুষ এতদিন বাঁচতে পারে। সংবাদমাধ্যমের কল্যাণে সাড়া পড়ে যায় বিশ্বে। গবেষকরা দলে দলে আসতে শুরু করেন হুনজা উপত্যকায়।

গবেষকদের দাবি হুনজাদের জীবনযাত্রার মধ্যেই কি লুকিয়ে আছে রহস্য! তারা দিনে মাত্র দু’বার খাবার খান। সূর্য ওঠার পরে একটা ভারি ব্রেকফাস্ট ও সূর্যাস্তের পরেই হালকা ডিনার করে নেন। এর মাঝে হুনজারা আর কোনও খাবার খান না। তাঁদের খাদ্যতালিকায় রাখেন প্রচুর পরিমাণে শুকনো অ্যাপ্রিকট, লেবু জাতীয় ফল, বাদাম, শিম, ভুট্টা, বার্লি ও বাজরার মতো শস্য। মাখন, পনির, ডিম ও দুধ তুলনায় কম খান হুনজারা। মাংস প্রায় খানই না। খেলেও বছরে এক দুবার ভেড়া বা মুরগির মাংস খান। অন্য কোনও মাংস খান না। এছাড়াও, তুমুরু নামে, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টে ভরপুর এক প্রকার উদ্ভিদের পাতা ফুটিয়ে চায়ের মতো পান করেন হুনজারা।

এছাড়াও প্রাচীন রীতি মেনে, হুনজারা বছরে চার মাস শুকনো অ্যাপ্রিকট ফলের গুঁড়োর শরবত ছাড়া আর কিছু খান না। দুর্গম স্থানে বাস করার কারণে এবং বিভিন্ন কাজে প্রতিদিনই হুনজাদের প্রায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার হাঁটতে হয়। এ ছাড়া হুনজারা সব কথাতেই  হাসেন। হাসি ঠাট্টা তামাসা তাঁদের জীবনের অন্যতম অঙ্গ। 

অনেক গবেষক মনে করেন, হুনজাদের দীর্ঘায়ু ও বেশী বয়সেও কর্মক্ষম থাকার পিছনে অ্যাপ্রিকট ফলটির ভূমিকা আছে।কারণ অ্যাপ্রিকট ফলের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অ্যামিগডালিন (ভিটামিন বি-১৭) আছে, যা ক্যানসার ও অনান্য রোগ প্রতিরোধে সক্ষম। হুনজারা বছরে চার মাস সারাদিন শুধু অ্যাপ্রিকটের শরবত খান বলে, তাঁদের শরীরে কোনও রোগ বাসা বাঁধে না। এই গবেষকদের মতে, হুনজারাই সম্ভবত বিশ্বে একমাত্র ‘ক্যানসার-টিউমার ফ্রি সম্প্রদায়।

তবে আরেক দল গবেষক মনে করেন, হুনজাদের দীর্ঘ জীবন আর নিরোগ থাকার পিছনে আছে দূষণমুক্ত বাতাস, হিমবাহ থেকে আসা প্রাকৃতিক মিনারেল ওয়াটার, সারাবছর হিমশীতল জলে স্নানের অভ্যাস। শীতকালে হুনজা উপত্যকা বরফে ঢেকে যায়, তখনও হুনজারা গরম জলে স্নান করেন না। এবং হুনজারা খান কম, কিন্তু পরিশ্রম করেন বেশি।