ঢাকা Saturday, 15 June 2024

কী হচ্ছে নিষিদ্ধ ‘এরিয়া ৫১’-এ 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 22:37, 29 August 2023

কী হচ্ছে নিষিদ্ধ ‘এরিয়া ৫১’-এ 

যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা রাজ্যের পশ্চিম প্রান্তের একটি রহস্যময় জায়গা ‘এরিয়া ৫১’। ২৪ ঘণ্টা সরকারের কঠোর নজরদারিতে থাকা এই এলাকায় কী হয়, তা নিয়ে রয়েছে হাজারো প্রশ্ন। শোনা যায়, এই এলাকাতে দেখা গেছে ভিনগ্রহের নভোযান, এমনকি ভিনগ্রহের প্রাণী বা এলিয়েনও। 

কিন্তু যত যা-ই শোনা যাক না কেন সুরক্ষিত এই এলাকায় প্রবেশ নিষেধ সাধারণ মানুষের। এমনকি গুগল ম্যাপ থেকে স্যাটেলাইট ভিউতে এখন পর্যন্ত দেখা যায় না ‘এরিয়া ৫১’-এ কী কী রয়েছে, বা কারা এখানে কাজ করেন। 

মূল গল্পে যাওয়ার আগে রহস্যময় ‘এরিয়া ৫১’ সম্পর্কে কিছু সাধারণ তথ্য -

* নেভাদার দক্ষিণাংশে গ্রুম লেক এলাকায় ‘এরিয়া ৫১’। দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার এডওয়ার্ড এয়ার ফোর্স বেস এলাকাটি নিয়ন্ত্রণ করে। 

* উড়োজাহাজ নিয়ে দেশটির বিমান বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালায় এই এলাকাতে। 

* দেশটির আণবিক শক্তি কমিশনের তৈরিকৃত মানচিত্রে দেয়া নামানুসারে এলাকাটি ‘এরিয়া ৫১’ নামে পরিচিত।   

* দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই এলাকাটি বিমান হামলার জন্য ব্যবহার করা হতো। 

* ১৯৫৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ তাদের তৈরিকৃত অত্যাধুনিক অনুসন্ধান বিমান ‘লকহেড ইউ-২’-এর পরীক্ষা চালায় এই এলাকায়।

* ১৯৫৬ সাল থেকে ‘ইউ-২’ বিমানটি কাজে লাগাতে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। এরপর থেকে ‘এরিয়া ৫১’-এ অন্যান্য বিমান আধুনিকীকরণের কাজ শুরু হয়। এসব বিমানের মধ্যে রয়েছে ‘এ-১২’ এবং যুদ্ধবিমান ‘এফ-১১৭ নাইটহক’।

যুদ্ধবিমান ‘এফ ১১৭’

তবে গোলমাল লাগে ১৯৮৯ সালে। সে সময় রবার্ট (বব) নামে এক ব্যক্তি জানান, তিনি ‘এরিয়া ৫১’-এ মহাশূন্য গবেষণা বিষয়ক কাজ করেছেন। রবার্ট বলেন, তিনি এখানে ভিনগ্রহের প্রাণী বা এলিয়েনের ময়নাতদন্ত করা ছবি দেখেছেন। তিনি আরো জানান, যুক্তরাষ্ট্র সরকার চেষ্টা করছে এলিয়েনদের ব্যবহৃত স্পেস শিপ বা নভোযান উদ্ধার করতে। 

অবশ্য পরবর্তীকালে রবার্ট তার বক্তব্য থেকে সরে আসেন। কিন্তু ততক্ষণে প্রশ্নের ঝড় বইতে শুরু করে এই এলাকা নিয়ে - তাহলে কি ‘এরিয়া ৫১’-এ ভিনগ্রহের প্রাণী ও তাদের নভোযান নিয়ে গবেষণা করছে যুক্তরাষ্ট্র? নাকি অন্য কোনো ষড়যন্ত্র চলছে এই এলাকায়? 

এরপর সন্দেহের ঢেউ আরো বড় হতে থাকে। অনেক ব্যক্তি বলেন, তারা ‘এরিয়া ৫১’-এ এবং এর আশেপাশে ভিনগ্রহের প্রাণীদের নভোযান বা ‘ইউএফও’ দেখেছেন। 

এদিকে ২০১৩ সালের ২৫ জুন সিআইএ আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের ‘ইউ ২’ এবং ‘ওক্সকার্ট’ বিমান সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ করে। ২০০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা ইতিহাসবিদ জেফরি টি রিচেলসনের ‘তথ্য জানার অধিকার আইন’-এ করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সিআইএ এসব তথ্য প্রকাশ করে। এর মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্র সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে ‘এরিয়া ৫১’-এর অস্তিত্ব স্বীকার করে নেয়। 

সিআইএর তথ্যানুসারে, তারা যেসব উড়োজাহাজ নিয়ে এই এলাকায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছিল, সেগুলোকেই হয়তো সাধারণ মানুষ ইউএফও বলে মনে করেছে। তবে এ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য আর জানা যায়নি। 

এদিকে ‘এরিয়া ৫১’-এ যারা কাজ করেন তাদের যাতায়াতের মাধ্যম উড়োজাহাজ। এজন্য ম্যাককারেন এয়ারপোর্টের একটি বিশেষ স্থান সংরক্ষিত। সেখানে অন্য কোনো বিমান বা ব্যক্তির প্রবেশাধিকার নেই। আর যে বিমানগুলো এ কাজে ব্যবহৃত হয়, সেগুলো অন্য কোনো কাজে ব্যবহৃত হয় না। 

এত কিছু জানার পরও অনেক কিছুই যেন অজানা। আসলেই কী হচ্ছে ‘এরিয়া ৫১’-তে? সেই প্রশ্নের উত্তর এখনো মেলেনি।

সূত্র : ইন্টারনেট।