ঢাকা Wednesday, 19 June 2024

আজব প্রথা, বিয়ের যৌতুক বিষধর সাপ

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:32, 22 July 2023

আজব প্রথা, বিয়ের যৌতুক বিষধর সাপ

বহু সংস্কৃতির দেশ ভারত। আয়তনে বিশালতার কারণে ভারতের নানা প্রান্তের জনপদে নানা ধরনের সংস্কৃতি ও প্রথার প্রচলন রয়েছে। এসব প্রথার মধ্যে কিছু এতটাই অদ্ভুত যে শুনলে বিস্মিত হতে হয়। এমনই এক প্রথা রয়েছে ভারতের অন্যতম প্রধান রাজ্য মধ্যপ্রদেশে বসবাস করা গৌড়ীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে। এ সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে এ ধরনের একটি অদ্ভুত প্রথার প্রচলন রয়েছে বহু যুগ ধরে। অদ্ভুত এই প্রথাটি মেনে এই সম্প্রদায়ের মানুষেরা মেয়ের বিয়েতে জামাইকে যৌতুক হিসেবে ২১টি বিষধর সাপ দিয়ে থাকেন। তাদের বিশ্বাস নতুন জামাইকে সাপ প্রদান করলে নবদম্পতির বিবাহোত্তর জীবন সুখের হয়ে থাকে, আর তা নাহলে নাকি বিয়ে খুব তাড়াতাড়ি ভেঙে যায়।

মেয়ের বিবাহ ঠিক হওয়ার পর পরই সাপের খোঁজে বেরিয়ে পড়েন পাত্রীর বাবা। খুঁজে খুঁজে ২১ খানা বিষধর সাপ জোগাড় করেন তিনি। বিয়ের শুভদিনে তা একটি বাক্সে করে জামাইয়ের হাতে তুলে দেন শ্বশুরমশাই । এই ক্ষেত্রে সাপেদের রক্ষণাবেক্ষণ এবং দেখভালের একটি নিয়মও প্রচলিত রয়েছে। পরিবারের অন্য সদস্যদের মতো সাপগুলিকেও যত্ন সহকারে দেখাশোনা করতে হয়। সাপগুলি যতক্ষণ বাক্সে থাকছে সেই অবস্থায় কোনও সাপের মৃত্যু হলে চলবে না। আর যদি কোন কারণবশত একটি সাপেরও মৃত্যু ঘটে তাহলে সেই পরিবারের সকল সদস্যকে শোকপালন করার জন্য নিজেদের মাথা কামিয়ে ফেলতে হবে। 

গৌড়ীয় সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষেরা পেশাগতভাবে বেদে অর্থাৎ তাঁরা সাপ ধরার কাজ করেন ও সাপের খেলা দেখিয়ে অর্থ উপার্জন করে থাকেন। । এই সম্প্রদায়ের মানুষের জীবনের ভরণপোষণের সাথে তাই সাপ অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িয়ে রয়েছে। অতএব এরা সাপ কে খুবই শুভ বলে মনে করেন। এই সম্প্রদায়ের ছোট ছোট বাচ্চারাও সাপকে ভয় পায় না। এরা অবলীলায় বিষধর সাপের সঙ্গে খেলা করে থাকে আর এই কারণেই মেয়ের বিয়ের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজে যৌতুক হিসেবে শ্বশুরমশাইরা তাঁদের জামাইকে সাপ প্রদান করে থাকেন।

তাঁরা মনে করেন যে বিয়ের উপহার হিসেবে সর্প দান করলে সর্পদেবীর আশীর্বাদে তাঁদের মেয়ের জীবনে কখনো অন্ন, বস্ত্র ও বাসস্থানের অভাব হবে না। বিয়ে সুখের হওয়ার সাথে সাথে খাদ্য বস্ত্রের অভাব না থাকাটাও তাঁদের কাছে একটি বড় বিষয়। তাই সাপ প্রদান করার এই অদ্ভুত রীতিটি এখনো চলে আসছে এই গ্রামে আর এটি একটি অত্যন্ত শুভ কার্য হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।