ঢাকা Saturday, 15 June 2024

এই দ্বীপে শুধু সাপেদের, মানুষের যাওয়া মানা 

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 14:08, 21 July 2023

এই দ্বীপে শুধু সাপেদের, মানুষের যাওয়া মানা 

আমাদের পৃথিবীতে সাপের ৩৫ কোটি প্রজাতি রয়েছে। যার মধ্যে প্রায় ৬০০ প্রজাতি বিষাক্ত। ১ লাখ ৪৭ হাজার বর্গকিলোমিটারের বাংলাদেশে বিকশিত হয়েছে ৯৪ প্রজাতির সাপ। এদের মধ্যে ২৬টি প্রজাতি মারণ বিষের অধিকারী। তবে পৃথিবীতে এমন একটি জায়গা আছে যা একান্তই সাপেদের। এখানেই দেখা মেলে পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত সাপের। যেখানে কোন মানুষের যাওয়ার অনুমতি নেই।

ব্রাজিলের উপকূল থেকে কিছুটা দূরে অবস্থিত সর্প দ্বীপ বা স্নেক আইল্যান্ড। এখানে প্রায় প্রতি পদক্ষেপেই দেখতে পাওয়া যায় সাপ। বিশ্বের সবচেয়ে বিষধর সাপও এখানেই থাকে। এটাই পৃথিবীর একমাত্র জায়গা যেখানে গোল্ডেন ল্যান্সহেড সাপ দেখতে পাওয়া যায়। মূলত এই সাপের কারণেই মানুষ দ্বীপটিকে এড়িয়ে যান। 

সর্প দ্বীপের আসল নাম অবশ্য ইলহা দা কুইমাদা গ্র্যান্ডে। সাও পাওলে থেকে মাত্র ৯০ মাইল দূরে অবস্থিত ছোট দ্বীপ যা ব্রাজিলের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত। এটি সাও পাওলো রাজ্যের অংশ এবং  রেইনফরেস্টের জন্য পরিচিত। স্নেক আইল্যান্ডটি ব্রাজিলের সাও পাওলোর মূল ভূখণ্ডের সমুদ্রতট থেকে প্রায় কুড়ি মাইল দূরে অবস্থিত। এত দূরে থাকায়, তাই সাপগুলি সমুদ্রের প্রবল ঢেউ উপেক্ষা করে সাঁতরে দ্বীপ পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে না। মনে করা হয় ১১ হাজার বছর আগে যখন হিমযুগের সমাপ্তি ঘটে, তখন সমুদ্রের পানি বাড়তে থাকায় এই ভূখণ্ডটি আইল্যান্ডের মতো থেকে যায় এবং মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ফলে সাপগুলো আর সমুদ্র পার করে মূল ভূখণ্ডে ফিরতে পারেনি।

এই দ্বীপে কাকে যেতে দেওয়া হবে আর কাকে নয় তা ঠিক করে ব্রাজিলের নৌসেনা। কারণ শুধু মানুষের নিরাপত্তা নয়, সাপেদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করাটাও তাদের লক্ষ্য। তাই কয়েকজন বিজ্ঞানী ও নৌসেনা আধিকারিক ওই দ্বীপে যেতে পারেন। 

এই জায়গাটি আসলে সাপেদের। এর মধ্যে রয়েছে গোল্ডেন ল্যান্সহেড এবং বোথ্রপস ইনসুলারিসের মতো সাপও। এটি একটি বিষাক্ত সাপ যা ২০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। এই সাপ মূলত পাখি খায় এবং এদের বিষও খুব দ্রুত কাজ করে। একবার দংশন করলেই পাখি মার যায়। গোল্ডেন ল্যান্সহেড শিকারকে ট্র্যাক করতে পারে না, তাই তাদের বিষ এতটাই মারাত্মক যে তাতে সঙ্গে সঙ্গে পাখি মারা যায়। এই সাপের বিষে মানুষের মাংসও মুহূর্তের মধ্যে গলে যায়। 

এই দ্বীপে গেলে সাপেদের সম্মুখীন হতেই হবে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী এখানে প্রতি বর্গমিটারে কমপক্ষে ৫টি সাপ থাকে। সাপের কারণে এই দ্বীপে পাখিদের আনাগোনাও কম। তবে অভিবাসনের সময় পাখিরা এখানে বিশ্রাম নেয়, আর তখনই শিকারে নেমে পড়ে সাপেরা। 

এখানে বিষধর সাপ থাকলেও তাদেরও আতঙ্ক থাকে। আর এই আতঙ্ক মূলত চোরা শিকারীদের। কারণ গোল্ডেন ল্যান্সহেডকেই যেহেতু পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত সাপ বলে মনে করা হয়, তাই সেগুলিকে ধরে অবৈধভাবে বিক্রির চেষ্টা করে চোরা শিকারীরা। 

এই দ্বীপে একটি লাইট হাউজও আছে, যার থেকে বোঝা যায় যে এখানে কখনও মানুষের বসবাস ছিল। শোনা যায়, ১৯০৯ থেকে ১৯২০ পর্যন্ত এখানে লাইট হাউজ কিপার তাঁর পরিবারকে নিয়ে বাস করতেন। কিন্তু এই সাপেদের আক্রমণেই পরিবারটি শেষ হয়ে যায়। আর তাই এই সাপেদের আতঙ্কেই মানুষে এখানে বেড়াতে যেতেও দেওয়া হয় না।