ঢাকা Sunday, 26 May 2024

কুখ্যাত ৫ অপরাধ, যার রহস্য উন্মোচন হয়নি আজও 

স্টার সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:38, 19 May 2023

কুখ্যাত ৫ অপরাধ, যার রহস্য উন্মোচন হয়নি আজও 

পৃথিবীতে মানুষের অপরাধপ্রবণতা দিন-কাল-যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শুধুই বেড়েই গিয়েছে। পুঁথিগত ভাষায়, কোন দেশ বা অঞ্চলের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে প্রণীত আইনের পরিপন্থী কার্যকলাপই অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। অপরাধ গুরুতর কিংবা লঘু, দুই ধরণেরই হতে পারে। অপরাধের প্রমাণ হলে আসামির আইন অনুযায়ী শাস্তি হয়ে থাকে। তবে পৃথিবীর বুকেই ঘটে গিয়েছে এমন অনেক গুরুতর অপরাধ, যার মীমাংসা পুলিশ-গোয়েন্দা কেউ করে উঠতে পারেননি। এমনই পৃথিবীতে সংগঠিত ৫ দুর্ধর্ষ অপরাধে অপরাধীদের  গ্রেপ্তার তো দুরের কথা রহস্য উন্মোচন করতে পারেনি বিশ্বের নাম করা সংস্থা গুলো।


আমেরিকায় ডিবি কুপারকে বলা হত চোরের রাজা। শুধু চোর বললে বোধহয় তাঁর নামের প্রতি সুবিচার করা হয় না। তিনি ছিলেন দুঃসাহসিক এক মানুষ। ১৯৭১ সালের ২৪ নভেম্বর আমেরিকার পোর্টল্যান্ড এবং সিয়াটলে যাওয়ার পথে মধ্য আকাশে একটি বোয়িং ৭২৭ বিমান হাইজ্যাক করার দুই লাখ ডলার চুরি করে প্যারাশুট নিয়ে প্লেন থেকে ঝাঁপ দেন ডিবি কুপার বা ড্যান কুপার। তার পর থেকে কী হল তাঁর, কোথায় গেলেন তিনি, সে রহস্য আজও অজানা। মার্কিন গোয়েন্দারা দীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে খোঁজ করেছেন তাঁর। কিন্তু কোথাও পাওয়া যায়নি তাঁকে। বিশ্বের বড় বড় রহস্য সমাধানে সফল FBI গোয়েন্দারাও ব্যর্থ হয়েছেন।


রীতিমতো সিলিয়াল কিলিং। তাও আবার এক-দু'জন নয়, মোট ৩৭ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল সেই সিলিয়াল কিলার। নিজের নাম দিয়েছিল 'জোডিয়াক'। সেই থেকেই তাঁর নাম 'জোডিয়াক কিলার'। খুনগুলি ঘটেছিল ১৯৬০-র দশকের শেষ দিক থেকে ১৯৭০-র দশকের গোড়া পর্যন্ত। গোটা উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ায় রীতিমতো ত্রাস হয়ে উঠেছিল সেই খুনি। যদিও পুলিশ সেই খুনির বিরুদ্ধে ৫টি হত্যার অভিযোগ আনতে পেরেছিল। কিন্তু গ্রেফতার? সে গুড়ে বালি। বরং বিভিন্ন সংবাদপত্রের অফিসে চিঠি পাঠিয়েছিল সেই খুনি 'জোডিয়াক'। লিখেছিল, মানুষ মারতে দারুন মজা।


এই ঘটনা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কলকাতার। ১৯৮৯-এর জুন মাস। কলকাতার ফুটপাথে হঠাতই খুন হন এক ফুটপাথবাসী। ভারী পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে দিয়ে খুন করা হয় তাঁকে। সে সময়ে কলকাতায় এমন ঘটনা প্রথম। তদন্ত শুরু করে পুলিশ। কিন্তু কোথায় অপরাধী? বরং পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পরপর ১৩টি হত্যা করে সেই খুনি। হত্যার অস্ত্র সেই ভারী পাথর। সিরিয়াল কিলারের নাম হয়ে যায় 'স্টোনম্যান'। বহু খোঁজা হয় তাঁকে। কিন্তু ধরা পড়েনি সে। কলকাতার ঘটনার পরপরই একইভাবে দেশের বাণিজ্যিক রাজধানী মুম্বইতেও শুরু হয় সিরিয়াল কিলিং। একেবারেই কলকাতার স্টোনম্যানের ধাঁচে। অনেকেরই ধারণা, কলকাতার সিরিয়াল কিলারকে দেখেই বুদ্ধি পায় মুম্বইয়ের খুনি। অদ্ভূত বিষয় হল, সাধারণত ফুটপাথের গরিব মানুষই ছিলেন কলকাতার স্টোনম্যানের নিশানা।

এও এক দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা। ঘটেছিল ১৯৯০ সালের ১৮ মার্চ। ঘটনাস্থল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনের গার্ডনার জাদুঘর। রেমব্র্যান্ড এর আঁকা চিত্রকর্ম 'দ্য স্ট্রোম অন দ্য সি অব গালিল', ডাচ স্বর্ণযুগের বিখ্যাত শিল্পী ইয়োহান ভার্মির এর শিল্পীজীবনে আঁকা মাত্র ৩৪টি ছবির একটি 'দ্য কনসার্ট' ছিল সেই জাদুঘরে চুরির তালিকায়। চুরি গিয়েছিল মোট ১৩টি চিত্র। যার মূল্য আনুমানিক ৫০০ মিলিয়ন ডলার। শুধু 'দ্য কনসার্ট' এর আর্থিক মূল্যই ২০ কোটি মার্কিন ডলার। এছাড়া এডগার ডেগাস, এডুয়ার্ড ম্যানেট ও গোভার্ট ফ্লিংক এর মত শিল্পীর আঁকা ছবিও ছিল চুরি যাওয়া সম্পদের তালিকায়। দুজন চোর পুলিশের ছদ্মবেশে নিরাপত্তারক্ষীদের চোখে ধুলো দিয়ে জাদুঘরে ঢোকে। মাত্র এক ঘণ্টার মধ্যে চুরি করে পালিয়ে যায়। সেই যে পালিয়ে গেল, ২৮ বছরেও গ্রেপ্তার হয়নি তাঁরা। উদ্ধার হয়নি কোনও ছবিও। পৃথিবীর দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় এই ঘটনা একদম সামনের সারিতে থাকবে।


১৮৮৮ সালের ইংল্যান্ড। একে একে কমপক্ষে পাঁচজন মহিলাকে খুন করেন এই হত্যাকারী। মহিলারা প্রত্যেকেই যৌনকর্মী। হত্যার ঘটনাগুলি মূলত ঘটেছিল লন্ডনের হোয়াইটচ্যাপেল এলাকায়। গোটা বিশ্বে আলোড়ন ফেলেছিল সিরিয়াল কিলিংয়ের এই ঘটনা। তৈরি হয় সিনেমা, লেখা হয় বই। ইতিহাসে জায়গা পায় 'জ্যাক দ্য রিপার'। কিন্তু বহু চেষ্টাতেও তাঁর কোনও সন্ধান পাওয়া যায় না। এই ঘটনার বহু বছর পর, এই ২০১৪ সালে উত্তর লন্ডনের ব্যবসায়ী রাসেল এডওয়ার্ডসের লেখা 'নেমিং জ্যাক দ্য রিপার' নামে একটি বই প্রকাশিত হয়। তাতে দাবি করা হয়, ওই হত্যাকারীর নাম ছিল অ্যাডাম কসমিনস্কি।