ঢাকা Wednesday, 19 June 2024

ভিসা জটিলতা-ভ্রমণ কর বৃদ্ধিতে বেনাপোল দিয়ে কমেছে যাত্রী পারাপার

বেনাপোল প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 14:11, 1 October 2023

আপডেট: 14:46, 1 October 2023

ভিসা জটিলতা-ভ্রমণ কর বৃদ্ধিতে বেনাপোল দিয়ে কমেছে যাত্রী পারাপার

ভিসা জটিলতা, ভ্রমণ কর বৃদ্ধি ও বেনাপোল ও ভারতের পেট্রাপোল চেকপোস্টে নানাবিধ হয়রানির কারনে এ চেকপোস্ট দিয়ে পাসপোর্ট যাত্রী পারাপার কমে গেছে। পুর্বে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ হাজার যাত্রী যাতায়াত করতো। এখন সেখানে প্রতিদিন যাতায়াত করছে মাত্র ৪ থেকে ৫ হাজার যাত্রী। পাসপোর্ট যাত্রী চলাচল কমে যাওয়ার কারনে ভ্রমণ কর বাবদ রাজস্ব আদায়ও কমে গেছে।
 
বেনাপোল দেশের আন্তজার্তিক চেকপোষ্ট ও বৃহত্তম স্থলবন্দর। চিকিৎসা, ব্যবসা বনিজ্য ও ভ্রমনের জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে ভারতে যায়। কিন্ত গত দু মাস  আগ থেকে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশন থেকে ভারতীয় ভিসা পেতে দু মাস থেকে আড়াই মাস সময় লাগায় দু দেশের মধ্যে যাত্রী যাতাযাত কমে গেছে।

বাংলাদেশের নাগরিকদের ভিসা সুবিধা দেওয়ার জন্য ২০১৩ সালের ২৮ জানুয়ারি ভারত-বাংলাদেশের স্বাক্ষরিত সমঝোতা চুক্তি বিদ্যমান। সেই চুক্তি অনুযায়ী ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে বাংলাদেশিদের ৫ বছর মেয়াদি ভিসা পাওয়ার কথা। আর ৬৫-বছরের কমবয়সী ট্যুরিস্ট ভিসা দেওয়া হতো ১ বছর মেয়াদি। সেই সাথে ব্যবসায়ীদের জন্য ৩ থেকে ৫ বছরের ভিসা প্রদান করা হতো। আগে ভিসার আবেদন করলে ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্য ভিসা পাওয়া গেলেও এখন তা দুই থেকে তিন মাসেও সম্ভব হচ্ছে না। আর ভিসা দিলেও তার মেয়াদ ৩ থেকে ৬ মাস। এছাড়া বাংলাদেশ সরকার যাত্রীদের ভ্রমন কর ৫শ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ হাজার টাকা করায় যাত্রীদের বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে। এজন্য দু দেশের মধ্যে যাত্রী চলাচল অর্ধেকে নেমে এসেছে।

তবে বর্তমানে ব্যবসায়িক ভিসা পেতে সময় কম লাগলেও আগে ব্যবসায়ীদের ১ বছর, ৩ বছর ও ৫ বছর মেয়াদে ভিসা প্রদান করতেন ভারতীয় হাইকমিশন। এখন সেখাসে ব্যবসায়িদের ৬ মাসের ভিসা দেয়া হচ্ছে। এজন্য ব্যবসায়িদের বারবার ভিসা করতে নানা বিড়ম্বনার স্বীকার হতে হচ্ছে। যারা আমদানী রপ্তানি বানিজ্য করেন তাদেরকে প্রতি সপ্তাহে ভারতে যেতে হয় বানিজ্যের কারনে। কিন্ত বর্তমানে ভিসা সমস্যার কারনে ব্যবসায়ীরাও ভারতে ব্যবসায়িক কাজে ভারতে যেতে পাছেন না। যার কারনে ব্যবসায়িকরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। সময় মতো ভিসা না পাওয়ার কারনে বেশী সমস্যায় পড়ছেন চিকিৎসা করতে যাওয়া যাত্রীরা। একবার ভিসা নিয়ে ভারতে চিকিৎসা নেয়ার পরে তাকে আবার দু মাস বা তিন মাস পরে যেতে বলেন ডাক্তাররা। কিন্ত চিকিৎসা করতে যাওয়া যাত্রীরা সময় মতো ভিসা না পাওয়ায় তারা সময় মতো ডাক্তারের কাছে যেতে পাছেন না। ভালো ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা নিতে ব্যার্থ হচ্ছেন তারা। ভারতীয় ভিসা প্রপ্তিতে দীর্ঘসুত্রিতার কারনেই এসব হচ্ছে।

ভিসা প্রত্যাশী প্রদীপ কুমার জানান, পরিবার পরিজন নিয়ে ডাক্তার দেখাতে ভারতে যাওয়ার প্রয়োজন। ভারতে চিকিৎসা করতে যাবো বলে গত ২৭ আগষ্ট ভারতীয় ভিসার জন্য আবেদন করেছিলাম। পাসেপোর্ট জমা দেয়ার তারিখ পেয়েছি ১২ অক্টোবর ২০২৩। ভিসা দিবে নাকি আরো দু মাস পরে। কবে ভিসা পাবো আর কবেই বা ডাক্তার দেখাতে যাবো বুঝতে পারছিনা।

ভারতীয় ভিসা নিয়ে ভারতে যাওয়া ইতি মন্ডল ও আনিছুর রহমান জানান, ভারতীয় ভিসার জন্য আবেদন করার দেড় মাস পরে পাসপোর্ট জমা দেয় ভিসা অফিসে। আর ভিসা পাই তার একমাস পরে। ভারতীয় ভিসা পেতে এতো সময় লাগলে আমাদেরকে নিজ দেশে বা অন্য কোন দেশে চিকিৎসা করাতে যেতে হবে।

বেনাপোল পৌর কাউন্সিলর সুলতান আহম্মেদ বাবু জানান, আমার জানা মতে বর্তমানে ভারতীয় ভিসা পেতে অনেক সময় লাগার কারনে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে যাত্রী চলাচল অনেক কমে গেছে। আগে এ চেকপোষ্ট দিয়ে প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ হাজার যাত্রী চলাচল করতো ।  এখন সেখানে প্রতিদিন ৪ থেকে ৫  হাজার যাত্রী যাতায়াত করছে। পাসপোর্ট যাত্রী চলচল কমে যাওয়ায় একদিকে যেমন সরকারের রাজস্ব আদায় কম হচ্ছে অন্যদিকে যারা চেকপোষ্ট ছোট ছোট দোকান দিয়ে ব্যবসা করেন তারা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এজন্য ভারত সরকারের উচিত বাংলাদেশীদের জন্য ভারতীয় ভিসা প্রাপ্তিতে সহজীকরন করা।

এ ছাড়া প্রাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াতে বেনাপোল ও ভারতীয় চেকপোষ্টে নানাবিধ হয়রানির স্বীকার হচ্ছেন। ভারতে যাওয়ার সময় বেনাপোল ইমিগ্রেশনের কাজ সহজে সম্পূর্ন করা গেলেও ভারতে ঢোকার সময় ৩ থেকে ৪ ঘন্টা নো-ম্যান্স ল্যান্ড এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে যাত্রীদের। রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে দাড়িয়ে থাকতে হয় যাত্রীদের।
এদিকে ভারত থেকে ফিরে আসার সময় একই অবস্থার সৃষ্টি হয় ভারতের পাশে। নানা ভোগান্তি শেষে দেশে ফেরার সময় বেনাপোল চেকপোষ্টে বিজিবির চেকিং এর নামে চলছে নানা হযরানি। প্রথমে বিজিবি যাত্রীদের ব্যাগ স্ক্যানিং করেন। একটু কেনাকাটা থাকলে ব্যাগ নিয়ে চলে যায় ক্যাম্পে। এরপর রয়েছে কাষ্টমসের চেকিং। কাস্টমসে একজন ব্যাগেজ রুলে যতটুকু মালামাল পাবে সেটা দিয়ে বাকি মালামাল সিজার করে দেন। কাষ্টমস থেকে বের হয়ে আসার পর গোয়েন্দা ব্যাগ চেকিং করেন। গোয়েন্দা চেকিং শেষ করে বাহিরে আসলে আবার শুরু হয় বিজিবির চেকিং। এখানে শেষ নয় চেকিং ! ৪ কিলোমিটার দুরে আমড়া খালী বিজিবি চেকপোষ্টে আবারও শুরু যাত্রী হয়রানির নামে ব্যাগ তল্লাশি। এভাবে যাত্রীদের বার বার হয়রানির কারনে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে ভারত বাংলাদেশ যাতায়াতকারী যাত্রীদের সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে।

বেনাপোল সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মোঃ মহসিন আলী জানান, বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে আগের তুলনায় যাত্রী যাতায়াত অনেক কমে গেছে। পাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াত কমে যাওয়ায় ভ্রমন কর থেকে যে ট্যাক্স আদায় হয় তা এখন অনেক কম আদায় হচ্ছে। ফলে সরকারের ট্রাভেল ট্যাক্স’র মাধ্যমে রাজস্ব আহরনের কাংঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছানো সম্ভব নয়।

বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মবকর্তা কামরুজ্জামান বিশ্বাস জানান, আগের তুলনায় বেনাপোল চেকপোষ্ট দু দেশের মধ্যে পাসপোর্ট যাত্রী অনেক কমে গেছে। তবে কি কারনে যাত্রী কম আসছে সেটা বলা সম্ভব না। তবে শুনেছি ভারতীয় ভিসা প্রাপ্তিতে অনেক সময় লাগার কারনে পাসপোর্ট যাত্রী কম যাতায়াত করছে। আগে যেখানে প্রতিদিন ৭/৮ হাজার পাসপোর্ট যাত্রী দুদেশের মধ্যে যাতায়াত করতো এখন সেখানে প্রতিদিন ৪/৫ হাজার যাত্রী যাতায়াত করছেন।

বেনাপোল চেকপোষ্টে যাত্রীদের ল্যাগেজ চেকিং এর ব্যাপারে যশোর ৪৯ বিজিবি’র কমান্ডিং অফিসারের ০১৭৬৯৬০৪১১০ নম্বরে ফোন করলে ফোন টা রিসিভ করেননি।

বেনাপোল স্থল বন্দরের পরিচালক (ট্রাফিক) আব্দুল জলিল জানান, বেনাপোল চেকপোষ্টে আন্তজার্তিক প্যাসেন্জার টার্মিনাল নির্মাণ সহ অবকাঠামগত উন্নয়ন করার পর বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন আগে ৭ থেকে ৮ হাজার যাত্রী ভারতে যাতায়াত করতো। কিন্ত হঠাৎ করে গত দু মাস ধরে যাত্রী অনেক কম আসছে। তবে শুনেছি ভারতীয় ভিসা পেতে অনেক সময় লাগার কারনে যাত্রী কমে গেছে। আশা করছি খুব শীঘ্র্রই যাত্রী যাতায়াত স্বভাবিক হবে।