ঢাকা Saturday, 15 June 2024

অরক্ষিত বেড়িবাঁধ, ভাঙন আতঙ্কে ২ লাখ মানুষ

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:17, 22 May 2023

অরক্ষিত বেড়িবাঁধ, ভাঙন আতঙ্কে ২ লাখ মানুষ

ফাইল ছবি

সমুদ্র উপকূল আর চারদিকে নদী বেষ্টিত প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ জেলা ঝালকাঠি। গত এক যুগে সিডর, আইলা, মহাসেন বুলবুল আর সিত্রাংসহ বন্যা-ঝড়ে প্রাণহানি ও সম্পদ হারিয়ে দুর্যোগে তাণ্ডবের সাক্ষী এ জেলার মানুষেরা। কিন্তু দুর্যোগ মোকাবিলায় নদী পাড়ের মানুষের জন্য টেকসই ব্যবস্থা নেই মোটেও। বিশেষ করে বাঁধ না থাকায় কাঠালিয়া উপজেলায় যুগ যুগ ধরে ঝড়-বন্যায় ভাসছে অসংখ্য মানুষ।

ফি বছর এই এলাকায় ভাঙছে নদী। নেই পর্যাপ্ত বেড়িবাঁধ। ঝালকাঠিতে নদী পাড়ের লাখো মানুষ ঝড়-বন্যায় ভাসে। প্রতি বছরই নদী গর্ভে বিলীন হয়ে নিঃস্ব হচ্ছে জেলার শত শত পরিবার।

প্রতি বর্ষায় জেলা সদর, রাজাপুর এবং নলছিটি উপজেলায় নদী পাড়ের বেড়িবাঁধ ভেঙে জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম। ভেসে যাচ্ছে ফসলের ক্ষেত। জেলার সুগন্ধা, বিশখালি, আর গাবখান নদী তীরবর্তী গ্রামগুলোতে যুগ যুগ ধরে ভাঙনে বিলীন হচ্ছে জনপদ। গত কয়েক বছরে নদীর ভয়ানক গ্রাসে নিঃস্ব হয়েছে শত শত পরিবার।

এর আগে ২০২১ সালে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আর পূর্ণিমার প্রভাবে নদীতে ৪-৫ ফুট পানি বেড়ে যায়। অরক্ষিত ভাঙা বাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে ১৫ গ্রামের ৫ শতাধিক মানুষ এখনো পানিবন্দি হয়ে পড়ে। সেসময় ঝালকাঠির দুই হাজার ১১৯টি মাছের ঘের ও পুকুর পানিতে তলিয়ে যায়। আর এতে করে বিভিন্ন মাছ ও মাছের পোনা ভেসে যাওয়ায় প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষতি হয়। তখনও জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় কাঁঠালিয়ায়।

তার আগের বছর ঘূর্ণিঝড় আম্পানের পরও ভবিষ্যৎ ক্ষতি কমাতে মানববন্ধন থেকে শুরু নানাবিধ আন্দোলন করে স্থানীয়রা। কিন্তু তারপরও স্থায়ী বাঁধ নির্মাণে আজ নেয়া হয়নি কোন ব্যবস্থা।

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে ভাঙন আর জলোচ্ছ্বাসে লাখ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন প্রকার কার্যকারী পদক্ষেপ নেই জানায় স্থানীয়রা।

জেলা সদরের গাবখান এলাকার কৃষক রইসউদ্দিন বলেন, এখানে নামমাত্র বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু গত কয়েক বছরের দুর্যোগে তা ভেঙে গেছে। ফলে বন্যাসহ বিভিন্ন সময় পানি বৃদ্ধিতে পুরো এলাকা ভেসে যায়। ফসলের ক্ষেতসহ দুর্যোগে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আসছি।

জেলার সাচিলাপুর এলাকার তালাশ মাহামুদ বলেন, এ এলাকাটি সুগন্ধা, বিশখালি, বাসন্ডা, গাবখান আর ধানসিঁড়ি এই পাঁচ নদীর মোহনায়। ফলে যে কোন দুর্যোগে সবার আগে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়া এই পাঁচ নদীর নিকটবর্তী জেলা সদর, নলছিটি আর রাজাপুরের ১০টি গ্রামের মানুষ যুগ যুগ ধরে নদী ভাঙনে সর্বস্ব হারিয়ে আসলেও ভাঙন রোধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

কাঁঠালিয়া উপজেলার সুজন সভাপতি ফারুক খান বলেন, কাঁঠালিয়া লঞ্চঘাট থেকে রাজাপুরের জাঙ্গালিয়া নদী পর্যন্ত ৩১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের দাবি দীর্ঘ দিনের। কিন্তু বছরের পর বছর ধরে আশ্বাস দেয়া হলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। ফলে ঝড়-জলোচ্ছ্বাস ছাড়াও পূর্ণিমার জোয়ারেও প্লাবিত হয় বিশখালি নদী পাড়ের ১৫টির বেশি গ্রাম।

এ ব্যাপারে স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এ. কে. এম. নিলয় পাশা বলেন, ভাঙন রোধে ১৩ কিলোমিটার ব্লক ডাম্পিংসহ বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রকল্প পাঠানো হয়েছে। তা অনুমোদন হলে সমস্যার অনেকটাই সমাধান হবে।

প্রসঙ্গত, উপকূলীয় জেলা ঝালকাঠিতে মোট লোক সংখ্যা সাত লাখ। এর মধ্যে নদী নিকটবর্তী এলাকায় দুই লাখ মানুষের বসবাস।