ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

লাল পোশাক পড়ে মনিবের সাথে ব্যবসা চালায় ‘রাজাবাবু’

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 23:37, 12 May 2023

লাল পোশাক পড়ে মনিবের সাথে ব্যবসা চালায় ‘রাজাবাবু’

ছবি: স্টার সংবাদ

মানুষের সঙ্গে পশুপাখির প্রেমের অনেক নজির আছে এ পৃথিবীতে। তেমনি এক ব্যতিক্রমী প্রেমিক দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আফতাবগঞ্জ এলাকার দিলীপ বাবু। ছোট্ট খাবারের দোকানদার দিলীপ রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে আসা একটি কুকুরকে লালনপালন করছেন নিজের সন্তানের মত। নিজের নাম অনুসারে কুকুরের নামও রেখেছেন রাজাবাবু। সেই কুকুর এখন তার ব্যবসার সহযোগী। মনিবের সঙ্গে কুকুরের এমন ভালোবাসা সাড়া ফেলেছে পুরো এলাকায়।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে পার্শ্ববর্তী উপজেলার নবাবগঞ্জের আফতাবগঞ্জ ইসলামপুর গ্রাম। সেই গ্রামেই বসবাস রাজাবাবুর। রাজাবাবু মানুষ না হলেও, তার মনিবকে সাহায্য করে সন্তানের মতোই। সে মনিবের সাথে বাজার যায়, বাজার করে, ১৫/২০ কেজি পন্য নিয়ে তার জন্য বানানো গাড়িতে নিয়ে বাড়ি চলে আসে। আবার মনিবে ব্যবসার কাজে তার গাড়িতে করে ওই পরিমাণ পণ্য নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় চলে যায়।

বৃহস্পতিবার ইসলামপুর গ্রামে দিলিপ চন্দ্রের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, জীর্ন একটা টিনের বাড়ি দিলিপের। স্ত্রী রেখা রানী ও সন্তানতুল্য রাজাবাবুকে নিয়েই সেখানে তার সংসার। বাড়িতে প্রবেশ করতে গেলেই, একটা কুকুর ঘেঁউ ঘেঁউ করে শব্দ করে উঠে। পরে বাড়ির মালিক দিলিপ চন্দ্র বেরিয়ে আসলে কথা বলতেই জানা যায়, এই শিকলে বাঁধা কুকুরটির নামরাজাবাবু রাজাবাবুকে ১৭ মাস ধরে নিজের সন্তানের মতো লালন পালন করে বড় করেছেন।

দিলিপের স্ত্রী রেখা রানী বলেন, ছোট একটা কুকুরের বাচ্চা অসুস্থ্য অবস্থায় তার স্বামী প্রায় ১৭ মাস পূর্বে তার কাছে নিয়ে আসেন। চিকিৎসা আর যত্ন আত্তি করে নিজের সন্তানের মতো বড় করে তুলেছেন। নিজেরা যা খান তাই খায় ওই কুকুরটি। পরে তার নাম রাখেনরাজাবাবু তাদের তিনটি সন্তান, আল্পনা রানী, অপর্ণা রানী ছেলে চন্দন। মেয়েদের বিয়ে হয়েছে, শ্বশুর বাড়ী। ছেলে ঢাকায় কাজ করে। তাই নিজের একা জীবনে এই কুকুর রাজাবাবুকে নিজের সন্তানের মতোই মনে হয় বা খেলার সাথীও বলতে পারেন বলে তিনি জানান। স্বামী হাট বাজারে মাখা মুড়ি, সিংড়া বিক্রি করে। তার স্বামী রাজাবাবুর জন্য একটা গাড়ি বানায়। এই গাড়িতে করে রাজাবাবু দোকানের পণ্য সামগ্রী বাজার থেকে নিয়ে আসে, নিয়ে যায়। তিনি আরো বলেন, দিনে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখি রাতে ছেড়ে দেই। রাজাবাবু রাতে তাদের মাথার কাছে ঘুমায়।

দিলিপ চন্দ্র বলেন, ১৭ মাস আগে অগ্রাহয়ণ মাসে এক শীতের সকালে, বাড়ি থেকে আফতাবগঞ্জ বাজারে যেতে পথে কুকুরের বাচ্ছাটি দেখি একটা বড় কুকুর কামড়িয়ে আহত করেছে। বাচ্চা কুকুরটিকে বাড়িতে এনে স্ত্রী রেখা রানীর কাছে দেই। সেই থেকে দুজনে নিজের সন্তানের মতো করে লালন-পালন করে ওকে বড় করেছি। নাম রেখেছিরাজাবাবুহঠাৎ মাথায় আসে সাইকেল চাকা দিয়ে রাজাবাবুর জন্য একটা গাড়ি বানাবো। তারপর প্রায় হাজার টাকা খরচ করে রাজাবাবুর গাড়ি বানাই। পরে সেই গাড়িতে করে পরীক্ষমূলকভাবে একদিন কিছু একটা নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে রাজাবাবু অনায়াসে নিয়ে যায়। সেই থেকে রাজাবাবুকে তার গাড়ী দিয়ে বাজার করা দোকানের পন্য আনা নেওয়ার কাজ করি।

দিলিপের প্রতিবেশী নলিনী কান্ত রায় এবং পুণ্য চন্দ্র বলেন, দিলিপ অনেকদিন থেকে ওই কুকুরকে পালন করছে। তার নাম রেখেছে সে রাজাবাবু। তাকে লাল জামা পারায়। তার জন্য গাড়ি বানিয়েছে। ওই গাড়ি দিয়ে দিলিপ তার দোকানের মালামাল আনা নেয়া করে। রাজাবাবু কুকুরটি আপনাদের কোন সমস্যা করে না এমন প্রশ্নের জবাবে, নলিনী কান্ত বলেন, বাবারে কথায় আছে নাজীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বরদিলিপ ছোট কুকুরের বাচ্চাটাকে নিজের সন্তানের মতো পালন করেছে। ওই কুকুর আমাদের কী ক্ষতি করবে। সে ভালবাসা পেয়ে তাদের বাড়িতে থাকে। আর তাছাড়াও তাকে তো শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। আর ওই রাজাবাবু নামের কুকুরটা দিলপ আর তার স্ত্রী ছাড়া কোথায় যাওয়া দেখি না।