ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

একজন পারপিতা, একটি আত্মহত্যা ও হলি ক্রস স্কুল

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:৫৬, ২৬ আগস্ট ২০২২

একজন পারপিতা, একটি আত্মহত্যা ও হলি ক্রস স্কুল

ঠিক কী কারণে পারপিতা ফাইহার মতো একটি নিষ্পাপ কিশোরী জীবনের কঠিনতম সিদ্ধান্তটি নিতে বাধ্য হয়েছিল তা আজ আর জানার অবকাশ নেই। স্থান-কালের ঊর্ধ্বে চলে গেছে ১৪ বছরের কিশোরীটি। কিন্তু আমাদের সামনে রেখে গেছে একগাদা প্রশ্ন।

ভালো স্কুলের সংজ্ঞা কি? প্রাইভেট না পড়লে কি ভালো ছাত্রী হওয়া যায় না? তাহলে ক্লাসে কী পড়ানো হয়? শিক্ষা কি বাণিজ্যে পরিণত হয়েছে? নামিদামি স্কুল মানেই কি ভালো শিক্ষালয়, নাকি টাকার খেলা? 

প্রশ্নগুলোর উত্তর খুঁজতে যাওয়া হয় হলি ক্রস স্কুলে, যে স্কুলের নবম শ্রেণির ‘সি’ শাখার ছাত্রী ছিল পারপিতা। অভিযোগ রয়েছে, উচ্চতর গণিতে ‘ইচ্ছে করেই’ তাকে ফেল করানো হয়েছে। ওই বিষয়ে শিক্ষকের দাবি ছিল, তার কাছে প্রাইভেট পড়তে হবে, তবেই পাস করা যাবে। কিন্তু তাতে রাজি হয়নি পারপিতা। ফলে পরপর দুই পরীক্ষায় ফেল করানো হয় তাকে। স্কুল কর্তৃপক্ষ ডেকে পাঠায় তারা বাবা-মাকে, পারপিতার মাধ্যমেই। কিন্তু নিষ্পাপ মেয়েটি হয়তো চায়নি বাবা-মায়ের অপমান হোক তার জন্য, তাই স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে বাসার ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে পারপিতা। 

মর্মস্পশী ঘটনাটি ঘটে গত ২৩ আগস্ট বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে নিজ বাসার বারো তলার ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে পারপিতা ফাইহা। এ ঘটনার পরপরই আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে পান্থপথের স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হয় পারপিতাকে। সেখানে রাত ৮টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  

এদিকে এই মৃত্যুর পর অভিযোগের আঙুল উঠেছে হলি ক্রস গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের দিকে। অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা বলছেন, তাদের ওপর অনৈতিকভাবে চাপ প্রয়োগ করেন শিক্ষকরা। প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করা হয় শিক্ষার্থীদের। অন্যথায় ফেল করানো, টিসি দেয়ার মতো ঘটনা ঘটে। আর তিরস্কার-অপমান তো হরহামেশাই করা হয় শিক্ষার্থী ও ক্ষেত্রবিশেষে অভিভাবকদেরও।

বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) হলি ক্রসের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, বাচ্চাদের টিসি দিয়ে দেয়। বাচ্চারা মানসিক বিষণ্ণতায় ভোগে। এর থেকেই আত্মহত্যার মতো ঘটনা ঘটে।

আরেক অভিভাবক জানান, পারপিতাকে বলেছিল তার বাবা-মাকে নিয়ে আসতে। এ কারণেই হয়তো বাচ্চাটা আত্মহত্যা করেছে। কারণ সে চায়নি তার জন্য তার বাবা-মা অপমানিত হোক।

অনেক শিক্ষার্থী বলেন, শিক্ষকরা অনেক অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন দিয়ে আমাদের চাপে রাখেন। উত্তর দিতে না পারলে মার দেন, অপমান করেন। আবার টিসি দিয়ে দেয়ার ভয়ও দেখান। এসব কথা বাড়িতে বাবা-মাকে বলতে পারি না, আবার সহ্যও করতে পারি না। সবসময়ই কেমন একটা ভয়-শঙ্কা-অস্থিরতা কাজ করে মনের মধ্যে।  

তবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের এসব অভিযোগ মানতে নারাজ হলি ক্রসের শিক্ষক ও স্কুল কর্তৃপক্ষ। তারা পারপিতার মৃত্যু নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি, বলেছেন, তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর কথা বলবেন। তবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অভিযোগ ‘ঠিক নয়’ বলে জানান তারা। 

এদিকে পারপিতা ফাইহার মৃত্যুর ঘটনাটি তদন্ত করছে পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতর (ডিআইএ)। এজন্য একটি কমিটিও করা হয়েছে। পারপিতার মৃত্যুর পেছনে কোনো শিক্ষকের ভূমিকা রয়েছে কি না এবং স্কুলের কোনো দায়দায়িত্ব আছে কি না তা অনুসন্ধান করবে এই কমিটি। এই তদন্তকারী দলের প্রধান ড. রেহানা খাতুন।

বুধবার (২৪ আগস্ট) থেকে তদন্ত দল তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। তারা হলি ক্রস গার্লস স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রমে নানা অনিয়ম পাওয়ার ইঙ্গিত দেন।  

এ বিষয়ে ড. রেহানা খাতুন বলেন, কোনো কারণে এই আত্মহত্যাকে প্ররোচিত করা হয়েছে কি না, সে বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি ... এখন মনে হচ্ছে কিছু বলা ঠিক হবে না। আমরা অল্প সময়ের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে পারব বলে আশা করছি। আগামী সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার চেষ্টা করব।

এদিকে হলি ক্রস স্কুলের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষক, গণিতের শিক্ষক শোভন রোজারিও এবং বিজ্ঞান শিক্ষক ফারাহের বিরুদ্ধে আছে নানান অভিযোগ।

পারপিতার মৃত্যুর পর তার মরদেহ নিয়ে গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীতে গেছে তার পরিবার। তাই পরিবারের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি এ ঘটনা সম্পর্কে। এদিকে এ ঘটনায় কোনো পক্ষ আনুষ্ঠানিক অভিযোগও করেনি।

জানা গেছে, ডিআইএ স্বতঃপ্রণোদিতভাবে এ ঘটনার তদন্তে নেমেছে। তারা জানতে চাইছে, স্কুলের এক শিক্ষক যে মেয়েটিকে নম্বর কম দিয়েছেন বলা হচ্ছে, সেই নম্বর কম দেয়া ইচ্ছাকৃত কি না।

পাশাপাশি তেজগাঁও থানাও বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। এই অপমৃত্যুর পেছনে কারো প্ররোচনা আছে কি না, সেটি বের করাই এই তদন্তের উদ্দেশ্য।

তবে পারপিতার মৃত্যুর পর তার সহপাঠীরা জানায়, সে (পারপিতা) পড়াশোনায় বেশ ভালো, তবে সম্প্রতি পরীক্ষায় খারাপ ফল করে। 

সহপাঠীদের অভিযোগ, স্কুলের ‘সি’ ও ‘ডি’ শাখায় উচ্চতর গণিতের ক্লাস নেন শোভন রোজারিও নামে এক শিক্ষক। রাজধানীর ইন্দিরা রোডে তার বাসায় এ বিষয়ে ব্যাচ ধরে প্রাইভেট পড়ান তিনি। যেসব ছাত্রী তার কাছে উচ্চতর গণিতে প্রাইভেট পড়েন না, তাদের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেন। এ বছর প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় উচ্চতর গণিতে ‘সি’ ও ‘ডি’ শাখার ১০২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩৫ জনকে ফেল করানো হয়। দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষায় উচ্চতর গণিতে ৫৫ জনকে ফেল করানো হয়। 

পারপিতার সহপাঠীরা আরো অভিযোগ করে, শিক্ষক শোভন রোজারিও পারপিতাকে তার বাসায় প্রাইভেট পড়তে বলেছিলেন। পারপিতা পড়তে রাজি হয়নি। এ কারণেই তাকে ফেল করিয়ে দেয়া হয়। পরপর একই বিষয়ে দুবার ফেল করায় স্কুলের অধ্যক্ষ পারপিতার অভিভাবককে বৃহস্পতিবার দেখা করার নির্দেশ দেন। এ খবর পেয়ে সোমবার থেকে পারপিতা আতঙ্কে ছিল। সে তার বাবা-মাকে বিষয়টি বলতে পারেনি। মঙ্গলবার স্কুলে সহপাঠীদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলাপ করে পারপিতা। কিন্তু কোনো উপায় বের করতে পারেনি। অবশেষে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। 

হলিক্রসের এক শিক্ষার্থী জানায়, পারপিতার মৃত্যুকে ঘিরে পরিস্থিতি ঘোলাটে হতে পারে - এমন আশঙ্কায় সরকারি ছুটিসহ আরো দুদিন স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার যোগাযোগ করা হলে হলি ক্রস থেকে জানানো হয়, ‘কোনো শিক্ষক তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার আগে কথা বলবেন না’।

খবর নিয়ে জানা যায়, পারপিতার মৃত্যুর কোনো ছায়াই পড়েনি স্কুলটিতে, সবকিছুই ঠিকঠাক চলছে। এমনকি পারপিতা যে ক্লাসে পড়ত, সেখানেও আগের মতোই ক্লাস চলছে।  

এদিকে ডিআইএর তদন্তের বিষয়ে অধিদফতরের মহাপরিচালক অলিউল্লাহ্ আজমতগীর জানান, আমরা শেষ সেমিস্টারে যারা কম নম্বর পেয়েছে, তাদের খাতা বাজেয়াপ্ত করেছি দেখার জন্য যে, মার্কিংটা ঠিকভাবে হয়েছে কি না।

পারপিতার আগের পরীক্ষার খাতাগুলো পেয়েছেন কি না জানতে চাইলে ডিআইএর এই কর্মকর্তা বলেন, হলি ক্রস কর্তৃপক্ষ আগের খাতাগুলো দিতে পারছে না।

তিনি বলেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ আগের কোনো খাতাই দেখাতে পারেনি। তারা জানিয়েছে, পরীক্ষার পর সব খাতা শিক্ষার্থীদের বাসায় দিয়ে দেয়া হয়। স্কুলে কোনো খাতা রাখা হয় না, তবে এই খাতাগুলো পর্যবেক্ষণ করে তদন্ত কমিটি বলতে পারবে, মূল্যায়ন সঠিক কি না।

তবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান, ভালো ফলাফল করা ছাত্রীরা চাইলে বাসায় খাতা নিতে পারে, তবে সেটি আবার নিয়ে আসতে হয়। যারা খুব ভালো করতে পারেনি, তাদের খাতা অভিভাবকদের কাছে পাঠান শিক্ষকরাই। সেটি অভিভাবককে দেখিয়ে স্কুলে ফেরত দিতে হয়। যারা একেবারে খারাপ করে, সেসব খাতা সিস্টারদের কাছে দেয়া হয়। সিস্টাররা অভিভাবকদের কল করে স্কুলে এনে কথা বলেন। তারপর সেই খাতা আবার স্কুলশিক্ষকের কাছে যায়।

হলি ক্রস কর্তৃপক্ষ সবকিছু স্বাভাবিক দেখালেও শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ, বিষণ্ণতা স্পষ্ট। তাদের কথা হলো, এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হলে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতেই থাকবে।