ঢাকা Saturday, 02 March 2024

ট্রান্সপ্লান্টেরর সাহায্যে বোরো ধান রোপণ উদ্বোধন করলেন ডিসি

রংপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 20:07, 12 February 2024

ট্রান্সপ্লান্টেরর সাহায্যে বোরো ধান রোপণ উদ্বোধন করলেন ডিসি

দেশের অর্থনীতিকে আরো গতিশীল করতে আধুনিক কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ধান কাটার ও রোপণ করার সময় শ্রমিক সংকট দেখা দেয়। ফলে কৃষক ক্ষতির সম্মুখীন হন। এই ক্ষতি থেকে কৃষি বাঁচাতে আধুনিক যন্ত্রের মাধ্যমে ধান রোপণ ও কাটার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এরই অংশ হিসেবে সমলয় পদ্ধতিতে ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের উত্তর বাওচণ্ডীতে এমন চাষ-ব্যবস্থার উদ্বোধন করা হয়েছে। 

সোমবার (১২ জানুয়ারি) রবি মৌসুমে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় এমন পদ্ধতিতে চারা রোপণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুবেল রানার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, রংপুর খামারবাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন ও বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল লতিফ মিঞা।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ গোলাম মোস্তফা মো. জোবাইদুর রহমান।

প্রদর্শনীর মাধ্যমে ‘রাইস ট্রান্সপ্লান্টার’-এর সুফল ও সুবিধা সম্পর্কে কৃষকদের অবগত করা হয়। কৃষকরাও আগ্রহভরে যন্ত্রটির ভালোমন্দ পর্যবেক্ষণ করছেন। 

রাইস ট্রান্সপ্লান্টার-এর একাধিক চালক বলেন, এই মেশিন নিয়ে ৫০ ডিসিমাল ধানের চারা রোপণ করতে সময় লাগে প্রায় এক ঘণ্টা। প্রতি ডিসিমালে তেল খরচ হয় ১০ থেকে ১২ মিলিলিটার। অল্প সময়ের মধ্যেই একটি ক্ষেত্রের ধানের চারা রোপণ করা যাবে। এতে কৃষদের ৮০ ভাগ খরচ কমে যাবে। যদি ৩৩ ডেসিমালে শ্রমিক দিয়ে ধানের চারা রোপণ করানো হয় তাহলে প্রায় ১ হাজার টাকা খরচ হবে। আর যদি রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে চারা রোপণ করা হয় তাহলে মাত্র ২০০ টাকা খরচ হবে।

ওই এলাকার কৃষক তরুণ কান্তি রায় বলেন, আমার প্রায় ৪ একর জমিতে বোরো ধান রোপণ করা হবে এই যন্ত্র ব্যবহার করে। আমি মনে করছি এই যন্ত্র একদিকে সময় বাঁচাবে, অন্যদিকে ব্যয়ও কমাবে। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কৃষি  প্রণোদনা পেয়েছি। এতে আমার অনেকটাই সাশ্রয়ী হয়েছে।

কৃষক রামপ্রসাদ বলেন, আমি প্রায় ৩১ শতক জমিতে উপজেলা কৃষি অফিসের তদারকিতে চারা রোপণ করবো। এতে খরচ কম হবে এবং লাভবান হবো বলে আশা করছি।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান বলেন,  কৃষিতে রংপুর সবচেয়ে এগিয়ে। তিনি বলেন, আমরা চাই এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে এক ফসলি জমি দুই ফসলিতে, দুই ফসলি জমি তিন ফসলিতে পরিণত করবেন কৃষকরা। 

দেখা গেছে, এই যন্ত্র দিয়ে একসঙ্গে ৬ লাইনে ধানের চারা রোপণ করা যায়। যন্ত্রটি একসঙ্গে ১২টি ট্রে বহন করে চালাতে পারে। সনাতন পদ্ধতিতে এক বিঘা জমিতে ধানের চারা রোপণ করতে কমপক্ষে চারজন শ্রমিককে কাজ করতে হয়। এতে কৃষকদের অধিক মজুরি গুনতে হয়। যন্ত্র দিয়ে এক ঘণ্টায় ০.৩৫ হেক্টর জমির ধান রোপণ করা যায়। জ্বালানি খরচ ঘণ্টায় ৭০০ গ্রাম। এর ফলে প্রতি হেক্টর জমিতে ২০ জন শ্রমিকের সাশ্রয় হবে। এ যন্ত্র দিয়ে ধানের চারা রোপণ করলে কৃষকের সময় ও অর্থ সাশ্রয় হবে। চারা রোপণে যন্ত্রটি ব্যবহার করলে রোপণ খরচ ৫০-৭৫ ভাগ কমানো সম্ভব হবে। এ ছাড়া রাইস ট্রান্সপ্লান্টার দিয়ে চারা রোপণ করলে লাইন সোজা হয়। ফলে পরবর্তীতে আগাছা নিড়ানো, সার ও কীটনাশক ছিটানো এবং ধান কাটা সহজ হয়।