ঢাকা Wednesday, 19 June 2024

মনির মাষ্টারের বাগানে থোকায় থোকায় ঝুলছে সবুজ মাল্টা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 15:33, 27 August 2023

মনির মাষ্টারের বাগানে থোকায় থোকায় ঝুলছে সবুজ মাল্টা

ছবি: স্টার সংবাদ

বাগানে সারি সারি নানান জাতের ফলের গাছ। এর মাঝে পাঁচ ছয় ফুট উঁচু গাছের সারি। পাতার ফাঁকে ফাঁকে সে গাছে থোকায় থোকায় ঝুলছে সবুজ মাল্টা। কোনো গাছে ২০টি, কোনো গাছে ৩০টি। শুধু শোভা নয় বাগানের মাল্টার স্বাদও খুব মিষ্টি। এমন দৃশ্য দেখা যায় ব্রাহ্মণবাড়িযার আখাউড়া উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়নের হিরাপুর গ্রামে।

উপজেলার আনোয়ারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মনিরুল ইসলাম। প্রায় দুই বছল আগে স্থানীয় কৃষি অফিস থেকে ১০ টি ও ক্রয় করা আরো কয়েকটি বারি -১ জাতের মাল্টা গাছের চারা এনে নিজু বাড়ির আঙ্গিনায় থাকা মিশ্র ফলের বাগানে রোপন করেন। এখন সেই মাল্টা গাছে ফলন এসেছে। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে সেই মাল্টা স্থানীয় বাজারেও বিক্রি করেছেন ।

শিক্ষক মনিরুল ইসলাম জানান, চারা রোপনের আগে তিনি মাটি গর্ত করেন। এরপর প্রতিটি গর্তে ২০ কেজি গোবর, ২০০ গ্রাম পটাশ, ৪০০ গ্রাম টিএসপি, ২০০ গ্রাম চুন ও প্রায় ২৫ কেজি মাটি মিশিয়েছেন। ১০ দিন পর সেই গর্তে চারা রোপন করেছেন। এরপর চলে নিবিড় পরিচর্চা ও যত্ন। বর্তমানে তার হাতে লাগানো সব গাছেই ফলন এসেছে। প্রতিটি মাল্টার ওজন গড়ে প্রায় ১২০ গ্রাম হবে। গাছে ভালো ফলের জন্য উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের সার্বিক সহযোগিতাসহ পরামর্শ পেয়েছেন বলে জানান।

বাগানে মাল্টার পাশাপাশি তিনি লাগিয়েছেন, আম, কাঁঠাল, পেয়ারা, লেবু, কলা, কামরাঙ্গা, জলপাই ও কুলের গাছ।

শিক্ষক মনিরুল ইসলাম আরো জানান, স্কুল শেষে বাকিটা সময় তিনি এ বাগানেই ব্যয় করেন। নিজ হাতেই পরিচর্চা করেন প্রতিটি গাছের। বাগানে মাল্টার ভালো ফলন হওয়ায় ৬০ শতাংশের বাগানে বাণিজ্যিকভাবে বারি-১ জাতের মাল্টা চাষের চিন্তা করছেন বলে জানান এ স্কুল শিক্ষক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ হিমেল খান বলেন, সবুজ মাল্টা একটি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল। মাল্টায় পেকটিন নামে এক ধরনের ফাইবার আছে যা কোলন ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

আখাউড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মাহজারুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, পাহাড়ি ও উঁচু জমিতে মাল্টার ভালো ফলন হয়। ভালো ফলন হওয়ায় এ অঞ্চলের মানুষের মাল্টা চাষে আগ্রহ বাড়ছে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এ সবুজ মাল্টা চাষে আগ্রহ বাড়াতে আমরা কারিগড়িসহ সব ধরনের সহযোগিতা দিচ্ছি। তাছাড়া রোগবালাইসহ ভালো ফলনের জন্য আমাদের মাঠকর্মীরা কৃষকের বাগানে বাগানে গিয়ে পরামর্শ দিচ্ছে।