ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

শবে কদর কখন এবং তা চেনার উপায় কী

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: 18:13, 1 April 2024

শবে কদর কখন এবং তা চেনার উপায় কী

ফাইল ছবি

বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ ও মাহাত্ম্যপূর্ণ রাত শবে কদর। একে লাইলাতুল কদর বা কদরের রজনীও বলা হয়। এই রাতে মহান আল্লাহ বান্দার রিজিক বণ্টন করেন। আল্লাহর আদেশে ফেরেশতারা রহমত, কল্যাণ ও বরকত নিয়ে পৃথিবীতে অবতরণ করেন। এ রাতেই প্রথম পবিত্র মক্কার হেরা পর্বতের গুহায় মহান আল্লাহ মুহাম্মাদ (সা.)-এর কাছে পবিত্র কোরআন নাজিল করেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, আমি একে নাজিল করেছি কদরের রাতে। তুমি কি জানো, কদরের রাত কী? কদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।(সুরা কদর: ১-৩)

পবিত্র কোরআনের কারণেই আল্লাহ তাআলা এ রাতের মর্যাদা বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ রাতের ইবাদত অন্য হাজার মাসের ইবাদতের চেয়ে উত্তম ঘোষণা করেছেন। এ রাতে মহান আল্লাহ নিজ বান্দাদের হাজার মাসের ইবাদত-বন্দেগির সমান সওয়াব দান করেন। পবিত্র কোরআনের অন্য স্থানে এ রাতকে বরকতময় রাত বলে উল্লেখ করা হয়েছে। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে সওয়াবের নিয়তে কদরের রাতে ইবাদত করবে; তার অতীতের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। (বুখারি: ১৯০১)

মহিমান্বিত এ রাতকে আল্লাহ তাআলা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে সুপ্ত রেখেছেন। তিনি এটাকে সুনির্দিষ্ট করেননি। রাসুল (সা.) রমজানের শেষ দশকে এ রাতের অনুসন্ধান করতে বলেছেন। আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে শবে কদর অনুসন্ধান করো। (বুখারি: ২০১৭)

শবে কদর নির্দিষ্টকরণে ৪০ টির অধিক মতামত রয়েছে। কিছু বর্ণনার ভিত্তিতে এ রাত রমজানের শেষ সাত দিনে হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। রাসুল (সা.) এক হাদিসে বলেছেন, যে ব্যক্তি শবে কদর অন্বেষণ করতে চায়, সে যেন রমজানের শেষ সাত রাতের মধ্য তা অন্বেষণ করে।(বুখারি: ২০১৫; মুসলিম: ১১৬৫)

তবে শবে কদর সম্পর্কে বেশির ভাগ আলেম বলেছেন, ২৭ তম রাতই শবে কদর হওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলে মতামত দিয়েছেন। উবাই ইবনে কাব (রা.) বলেন, আল্লাহর শপথ করে বলছি, আমি যতদূর জানি রাসুল (সা.) আমাদের যে রাতকে শবে কদর হিসেবে কিয়ামুল্লাইল করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন, তা হলো রমজানের ২৭ তম রাত। (মুসলিম: ৭৬২)

আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কদরের রাত অর্জন করতে ইচ্ছুক, সে যেন তা রমজানের ২৭ তম রাতে অনুসন্ধান করে। (আহমাদ: ২ / ১৫৭)

আবার কোনো কোনো বর্ণনা মতে ২৩ রমজানের রাতে শবে কদর হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যায়। আবদুল্লাহ ইবনে উনায়স (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আমাকে কদরের রাত দেখানো হয়েছিল। এরপর তা ভুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমাকে ওই রাতের ভোর সম্পর্কে স্বপ্নে আরো দেখানো হয়েছে, আমি পানি ও কাদার মধ্যে সিজদা করছি। বর্ণনাকারী বলেন, অতএব ২৩ তম রাতে বৃষ্টি হলো এবং রাসুলুল্লাহ (সা.) আমাদের সঙ্গে (ফজরের) নামাজ আদায় করে যখন ফিরলেন, তখন আমরা তার কপাল ও নাকের ডগায় কাদা ও পানির চিহ্ন দেখতে পেলাম। বর্ণনাকারী আবদুল্লাহ ইবনে উনায়স (রা.) বলতেন, তা ছিল ২৩ তম রাত। (মুসলিম: ২৬৬৫)

সুতরাং শবে কদর কবে, তা সুনির্দিষ্টভাবে বলা না গেলেও রাতটির কিছু আলামত হাদিসে বর্ণিত আছে। তা হলো-রাতটি গভীর অন্ধকারে ছেয়ে যাবে না, নাতিশীতোষ্ণ হবে অর্থাৎ গরম বা শীতের তীব্রতা থাকবে না, মৃদুমন্দ বাতাস প্রবাহিত হতে থাকবে, সে রাতে ইবাদত করে মানুষ অপেক্ষাকৃত অধিক তৃপ্তিবোধ করবে, কোনো ইমানদার ব্যক্তিকে আল্লাহ স্বপ্নে হয়তো তা জানিয়েও দিতে পারেন, ওই রাতে বৃষ্টি বর্ষণ হতে পারে, সকালে হালকা আলোকরশ্মিসহ সূর্যোদয় হবে। (সহিহ্ ইবনে খুযাইমা: ২১৯২; বুখারি: ২০২১; মুসলিম: ৭৬২)

শবে কদরের রজনিতে মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য সারা রাত নফল নামাজ, কোরআন ও হাদিসের আলোকে জিকির, কবর জিয়ারত এবং নিজের কৃত গুনাহর জন্য মহান আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে থাকেন।

নামাজের নিয়ত আরবিতে

নাওয়াইতু আন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তায়া’লা রাকআ’তাই ছালাতি লাইলাতিল কদর-নাফলি, মুতাওয়াজ্জিহান ইলা-জিহাতিল্ কাবাতিশ্ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

অর্থ: আমি কাবামুখী হয়ে আল্লাহর (সন্তুষ্টির) জন্য শবে কদরের দুই রাকাত নফল নামাজ পড়ার নিয়ত করলাম, আল্লাহু আকবার।

শবে কদরের নামাজ পড়ার নিয়ম

লাইলাতুল কদরে বিশেষ কোনো নামাজের নিয়ম বা পদ্ধতি নেই। লাইলাতুল কদরের রাতে দুই রাকাত করে নফল নামাজ যত সুন্দর ও মনোযোগসহকারে পড়া যায় ততই ভালো। দুই রাকাত, দুই রাকাত করে আপনি যত খুশি পড়তে পারবেন। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করবেন, দোয়া পড়বেন, ইস্তেগফার পড়বেন ও তওবা করবেন। আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবেন।

এ ছাড়া বিশেষ কিছু সুরা পড়তে হবে, এটা লোকমুখে প্রচলিত আছে, তবে এর কোনো ভিত্তি নেই। তবে চাইলে বেশি বেশি সুরা কদর ও সুরা ইখলাস পড়তে পারেন।

নামাজ শেষে নিচের দোয়াটি কমপক্ষে ১০০ বার পড়া উত্তম

সুব্‌হানাল্লাহি ওয়াল হাম্‌দু লিল্লাহি ওয়া লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবর, লা হাওলা কুয়্যাতা ইল্লাবিল্লাহিল্‌ আলীয়্যিল আযীম।

এই রাতে যে দোয়া বেশি পড়বেন

হজরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে জিজ্ঞেস করলেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ, শবে কদরের রাতে আমার কোন দোয়াটি পড়া উচিত?’ তিনি তাকে পড়ার জন্য নির্দেশ দিলেন: আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন তুহিব্বুল আফওয়া ফাফু আন্নি’ অর্থাৎ,  হে আল্লাহ! আপনি ক্ষমাশীল এবং ক্ষমা করতে ভালোবাসেন। তাই আমাকে ক্ষমা করুন। (সুনানে ইবনে মাজা)