ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

রমজানে জুমার নামাজের ফজিলত

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: 12:44, 29 March 2024

রমজানে জুমার নামাজের ফজিলত

ফাইল ছবি

আজ শুক্রবার, পবিত্র জুমার দিন। দিনটি সপ্তাহের অন্যান্য দিনের থেকে সেরা দিন। জুমার দিনের অনেক গুরুত্ব রয়েছে। পবিত্র আল-কোরআন ও হাদিসসমূহে দিনটির গুরুত্ব ও ফজিলত উল্লেখ রয়েছে। জুমা নামে কোরআন শরীফে একটি সূরাও রয়েছে। এদিকে আবার পবিত্র মাহে রমজান মাস চলছে। এ মাসটিও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। রমজান মাসের তৃতীয় জুমা আজ।

মহান আল্লাহ তা’আলা পবিত্র কোরআনে এরশাদ করেছেন যে, হে মুমিনগণ, জুমার দিন যখন নামাজের আহ্বান জানানো হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণে (মসজিদে) এগিয়ে যাও এবং বেচা-কেনা (দুনিয়াবি যাবতীয় কাজকর্ম) ছেড়ে দাও। এটা তোমাদের জন্য কল্যাণকর; যদি তোমরা জানতে। (সূরা জুমা-০৯)

হজরত আবু হুরায়রা রাযি বলেন, রাসুল (সা.) এরশাদ করেছেন, যে উত্তমরূপে অজু করবে, অতঃপর জুমার মসজিদে গমন করবে এবং মনোযোগ সহকারে খুতবা শ্রবণ করবে তার এ জুমা থেকে পূর্ববর্তী জুমাসহ আরো তিন দিনের গুনাহগুলো কমা করা হবে। আর যে ব্যক্তি খুতবা শ্রবণে মনোযোগী না হয়ে খুতবা চলাকালীন কঙ্কর-বালি নাড়ল, সে অনর্থক কাজ করল। (মুসলিম শরিফ ১/২৮৩)

নবী (সা) এক হাদিসে বলেছেন, মুমিনের জন্য জুমার দিন হলো সাপ্তাহিক ঈদের দিন। (ইবনে মাজাহ, হাদিস নম্বর ১০৯৮)

অন্য একটি হাদিসে পাওয়া যায়, নবী করিম (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সওয়াবের আশায় রমজান মাসে রোজা পালন করবে, তার পেছনের সমস্ত গোনাহ মাফ হয়ে যাবে। আর যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সওয়াবে আশায় লাইলাতুল কদরে ইবাদত করবে, তারও পেছনের সমস্ত গোনাহ মাফ হয়ে যাবে। (বুখারি-২০১৪)।

এদিকে পবিত্র রমজান মাসে ইবাদত সম্পর্কে হযরত আবু হুরাইরাহ (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, প্রত্যেক আদম সন্তান ভালো কাজের প্রতিদান দশ থেকে সাতশ গুণ বেশি পাবে। রোজা আল্লাহর জন্য। আল্লাহ নিজেই এর প্রতিদান দেবেন। (মুসলিম২৭০৭)