ঢাকা Saturday, 15 June 2024

আসামিদের নিয়ে এমপি আনারকে হত্যার স্পটে ডিবি

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 20:59, 27 May 2024

আসামিদের নিয়ে এমপি আনারকে হত্যার স্পটে ডিবি

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যাকাণ্ডের সেই স্থান পরিদর্শন করেছে ডিবি। কলকাতার নিউটাউনের সঞ্জীবা গার্ডেনের ওই ফ্ল্যাটে এ সময় ডিবিপ্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদসহ প্রতিনিধি দলের সামনে ঢাকা থেকে ভিডিওকলে যুক্ত করা হয় আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুলসহ গ্রেপ্তার তিনজনকে। এছাড়া সশরীরে ছিলেন কলকাতায় গ্রেপ্তার হওয়া কসাই জিহাদ।

ফ্ল্যাটের কোথায়, কীভাবে এমপি আনারকে হত্যা করা হয়, মরদেহ কীভাবে খণ্ড খণ্ড করা হয়, কীভাবে বাইরে নেয়া হয় সব বর্ণনা করেন গ্রেপ্তারকৃতরা।

এই পরিদর্শনকালে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার তিন আসামি আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভূঁইয়া, তানভীর ও শিলাস্তি রহমান। তদন্তের স্বার্থে এই তিন আসামির সঙ্গে কলকাতায় গ্রেপ্তার কসাই জিহাদের ভিডিওকলে কথোপকথন হয়। মূলত শিমুল ভূঁইয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় যেসব তথ্য দিয়েছেন সেগুলো যাচাই-বাছাইয়ের জন্য কসাই জিহাদকে ভিডিওকলে নেয়া হয়। মরদেহের খণ্ডাংশ ফেলার স্থান কসাই জিহাদ যেখানে দেখিয়েছেন আদৌ ঘটনাস্থল এক কিনা সে বিষয়েও কথা হয়। 

ভিডিওকলে তাদের কথোপকথনের সময় উপস্থিত ছিলেন ভারতে অবস্থানরত ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তিন সদস্যের দল ও কলকাতা পুলিশের কর্মকর্তারা। 

সোমবার (২৭ মে) ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানায়।

তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, কলকাতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার জিহাদ হত্যাকাণ্ডের শুরু থেকে দেহাংশ ফেলা পর্যন্ত সবকিছু জানে। এজন্য তার সঙ্গে ভিডিওকলে কথোপকথন হয়েছে ঢাকায় গ্রেপ্তার তিন আসামির। উভয়েই নতুন চাঞ্চল্যকর কিছু তথ্য দিয়েছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই চলছে। ভিডিওকলে ফ্ল্যাটের হত্যাকাণ্ডের স্থান, মাংস থেকে হাড় আলাদা করার জায়গা ও বেরিয়ে যাওয়ার স্থানসহ প্রতিটি স্থানের বর্ণনা দেন আমানুল্লাহ ওরফে শিমুল ভূঁইয়া। প্রায় একই কথা জানান কসাই জিহাদও।

প্রসঙ্গত, অপহরণ মামলার তদন্ত ও মরদেহ উদ্ধারে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত দল রোববার (২৬ মে) সকালে কলকাতায় যায়। প্রতিনিধিদলে আরো রয়েছেন ওয়ারী বিভাগের ডিসি মো. আব্দুল আহাদ ও এডিসি শাহীদুর রহমান।

এদিকে সোমবার দুপুর ২টা পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের ১৪ দিন পার হলেও এমপি আনারের টুকরো টুকরো করা দেহের কোনো অংশই উদ্ধার হয়নি। খুনে ব্যবহার করা চাপাতিসহ অন্য ধারালো অস্ত্রও উদ্ধার করা যায়নি। আলামত উদ্ধারে কলকাতা পুলিশ ময়লার ভাগাড়, খাল ও ডোবায় গত কয়েকদিন ধরেই তল্লাশি চালাচ্ছে।