ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

শিকলে বেঁধে ২৫ দিন আটকে রেখে নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৪

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 19:24, 1 April 2024

শিকলে বেঁধে ২৫ দিন আটকে রেখে নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৪

ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে শিকল দিয়ে বেঁধে ২৫ দিন আটকে রেখে এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার (৩১ মার্চ) রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাকৃতরা হলেন, সান (২৬), রকি (২৯), হিমেল (২৭) এবং তাদের সহায়তাকারী সালমা ওরফে ঝুমুর। ভিকটিমকে পাশবিক নির্যাতন, ধর্ষণ ও পর্ন ভিডিও ধারণের অভিযোগে মোহাম্মদপুর থানায় মামলা হয়েছে।

আজ সোমবার (১ এপ্রিল) রাজধানীর তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) এইচ এম আজিমুল হক সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, গত শনিবার রাতে মোহাম্মদপুরের একটি বাসা থেকে মেয়েটিকে হাতে পায়ে শিকল পরানো অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। স্থানীয়রা জরুরি নম্বরে কল করে একটি মেয়ে বাঁচার জন্য চিৎকার করছে জানালে পুলিশ সেখানে অভিযানে যায়।

পুলিশ জানায়, এক ব্যারিস্টার ভুক্তভোগী নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে ও বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় ভুক্তভোগীকে বিভিন্ন বাসাবাড়িতে বন্দি করে রাখা হয়। আসামিদের জবানবন্দিতে জানা যায়, ওই ব্যারিস্টার ভুক্তভোগী নারীকে ফ্ল্যাটে পাহারা দেওয়ার জন্য সালমাকে নিয়োগ দেয়। ২৫ দিন ভুক্তভোগী নারীকে শিকল দিয়ে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে অভিযুক্ত তিন আসামি। কেবলমাত্র খাবার ও বাথরুমে যাওয়ার দরকার হলে শিকল খুলে দেওয়া হতো।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ওই ব্যারিস্টারকে খুঁজছে পুলিশ। তিনি যদি বিদেশেও থাকেন তাকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলের সাহায্য চাওয়া হবে।

এদিকে সোমবার দুপুরে গ্রেপ্তার চার আসামিকে তিন দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালত এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে এ ঘটনায় জড়িত সবার নাম যেন অভিযোগপত্রে আসে, তদন্ত কর্মকর্তাকে তা নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার সাব ইন্সপেক্টর ফারুকুল ইসলাম আসামিদের আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করে রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন।

শুনানিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে উদ্দেশ্য করে বিচারক বলেন, যত বড় ব্যক্তিই হোক না কেন, সংশ্লিষ্টদের সবার নাম যেন অভিযোগপত্রে আসে।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত চার আসামির তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।