ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মার্চ ২০২৩

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

তাদের টার্গেট ছিলেন তরুণীরা, করতেন ব্ল্যাকমেইল 

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:২৪, ১৬ মার্চ ২০২৩

তাদের টার্গেট ছিলেন তরুণীরা, করতেন ব্ল্যাকমেইল 

দেশের অর্ধশতাধিক তরুণীর ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও সংগ্রহ করে পরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিতেন তারা। ব্ল্যাকমেইল করে আদায় করতেন অর্থ। এমন অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে কক্সবাজারের পেকুয়া থেকে আটককৃত দুজন হলেন - পেকুয়ার রাজাখালী এলাকার আমিনুল হকের ছেলে মো. জহির উদ্দিন (৩২) এবং পেকুয়ার মিয়ারপাড়া এলাকার মো. শওকতের ছেলে মো. সরোয়ার (২৪)।

র‍্যাব জানায়, প্রতারণার শিকার এক তরুণী কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বাসিন্দা। তিনি পেকুয়া উপজেলায় একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় চাকরি করেন।

এ বছর ফেব্রুয়ারিতে অনলাইনে জহিরের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ভুক্তভোগীকে জহির জানান, তিনি সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা এবং অবিবাহিত। একইসঙ্গে বাড়িতে তার জন্য পাত্রী খুঁজছেন বলে জানানো হয়। এসব কথা বলে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে ছবি নেন জহির।

একপর্যায়ে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি জহির পেকুয়ার চৌমুহনী এলাকায় ভুক্তভোগীর সঙ্গে দেখা করেন। ওই সময় কৌশলে জহির ভুক্তভোগী তরুণীর মোবাইল থেকে বেশ কিছু ছবি ও ভিডিও নেন। ওইদিন রাতে ভুক্তভোগীর সঙ্গে তার মোবাইলে কথা হয়। এভাবে দুজনের মধ্যে সম্পর্ক গভীর হলে তরুণী মোবাইলে বেশ কিছু ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি জহিরকে পাঠান। 

কিছুদিন পর জহির এসব ছবি অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে তরুণীকে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে বলেন। এতে রাজি না হলে তরুণীর ছবি আরেক আসামি সরোয়ারকে পাঠান জহির। পরে সরোয়ার তার কাছে আপত্তিকর ছবি আছে বলে তরুণীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন।

এ অবস্থায় ভুক্তভোগী বিষয়টি চট্টগ্রাম র‍্যাবকে অবহিত করেন। এতে জানানো হয়, জহির অতীতে ভুক্তভোগী এক নারী সহকর্মীকে ব্ল্যাকমেইল করে ২০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন। মানসম্মানের ভয়ে ওই নারী আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন। পরবর্তীতে র‍্যাব অভিযুক্ত দুজনকে আটক করে।

চট্টগ্রাম র‍্যাবের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. নুরুল আবছার বলেন, আটককৃতদের মোবাইল ফোন তল্লাশি করে তরুণীর আপত্তিকর ছবি-ভিডিও পাওয়া যায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা অন্তত ৫০ জন তরুণীকে ব্ল্যাকমেইল করেছেন বলে জানান। আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তাদের সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।