ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্টে বড় ব্যবধানে হার বাংলাদেশের

ক্রীড়া ডেস্ক

প্রকাশিত: 21:15, 25 March 2024

লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্টে বড় ব্যবধানে হার বাংলাদেশের

সফরকারী শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ৩২৮ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। সোমবার (২৫ মার্চ) টেস্টের চতুর্থ দিনে আগের দিনের ৫ উইকেটে করা ৪৭ রানের সঙ্গে আর ১৩৫ রান যোগ করেই শেষ হয়ে যায় টাইগারদের দ্বিতীয় ইনিংস।

লঙ্কানরা প্রথম ও দ্বিতীয় ইনিংসে করেছে ২৮০ ও ৪১৮ রান। অন্যদিক বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৮৮ ও ১৮২ রান।  

অবশ্য সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনেই ৫ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে গিয়েছিল টাইগাররা। এই টেস্ট জিততে হলে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় ইনিংসে করতে হতো ৫১১ রান। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ২১৫ রান করে টেস্ট জেতার রেকর্ড রয়েছে। সে হিসাবে এটি ছিল ‘অসম্ভব’ টার্গেট।

চতুর্থ দিন দেখার ছিল বাংলাদেশের প্রতিরোধ কতক্ষণ স্থায়ী হয়। লোয়ার অর্ডারে সেই প্রতিরোধটা বলতে গেলে একাই করে গেছেন মুমিনুল হক। তাইজুলের বিদায়ের পর সপ্তম উইকেটে মিরাজ ও অষ্টম উইকেটে শরিফুলকে নিয়ে জুটি গড়েছিলেন তিনি। পুরো ইনিংসে ৬৬ ও ৪৭ রানের এই দুটি জুটিতেই লড়াই করেছে বাংলাদেশ। মিরাজ, শরিফুল ফিরলেও মুমিনুল একা আরো কিছুক্ষণ টেনে নিয়েছেন। তিনি শেষ পর্যন্ত ৮৭ রানে অপরাজিত থাকলেও অপর প্রান্তে নাহিদ রানা বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি তাকে। এই পেসারের উইকেট পড়তেই ১৮২ রানে শেষ হয়েছে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস। 

শুরুতে চেপে ধরা শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংসেই পেয়ে গিয়েছিল দুই সেঞ্চুরি। পরের ইনিংসেও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ও কামিন্দু মেন্ডিস ছুঁয়ে ফেলেন তিন অঙ্ক।  
এরপর বাংলাদেশের হারটা ছিল অবশ্যম্ভাবী।  

চতুর্থ দিনের সকালটা শুরু হয় আগের দিনের বিষাদকে সঙ্গী করে। তৃতীয় বলে আউট হন তাইজুল ইসলাম। এদিন তিনি কোনো রান করতে পারেননি। ১৫ বলে ৬ রান করে রাজিথার বলে এলবিডব্লিউ হন তাইজুল।  

মেহেদী হাসান মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে হাল ধরার চেষ্টা করেন মুমিনুল হক। এ দুজনের জুটিতে ১০৫ বলে ৬৬ রান পায় বাংলাদেশ। এ জুটিও ভাঙেন কসুন রাজিথা। ৬ চারে ৫০ বলে ৩৩ রান করার পর ড্রাইভ করতে গিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ দিয়ে আউট হন মিরাজ।  

মিরাজের বিদায়ের পর মুমিনুলের সঙ্গী হন শরিফুল ইসলাম। তারা দুজন অপরাজিত থেকে লাঞ্চের বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। ফেরার পর হাফ সেঞ্চুরি পেয়ে যান মুমিনুল। তার সঙ্গে দারুণ ব্যাট করতে থাকেন শরিফুল ইসলামও। কিন্তু ঘণ্টাখানেক পর এই জুটি ভেঙে যায়।  

রাজিথার বলে তার হাতেই ক্যাচ তুলে দেন শরিফুল। ৪২ বল খেলে ১২ রান করেছিলেন তিনি। শরিফুলের সঙ্গে মুমিনুলের জুটিটি ছিল ৮১ বলে ৪৭ রানের। এরপর নিজের মুখোমুখি হওয়া প্রথম বলেই আউট হয়ে যান খালেদ আহমেদ।  

তারপর থেকে অপেক্ষা ছিল মুমিনুলের সেঞ্চুরির। তিনিও খেলছিলেন একটু তাড়াহুড়ো করে। কিন্তু মুমিনুলের শেষ সঙ্গী নাহিদ ৮ বলের বেশি খেলতে পারেননি। চতুর্থ দিনে এসে বাংলাদেশের ১৮৭ মিনিটের লড়াইও শেষ হয় তাতে।  

১২ চার ও ১ ছক্কার ইনিংসে ১৪৮ বলে ৮৭ রান করে অপরাজিত থাকেন মুমিনুল। শ্রীলঙ্কার হয়ে দুই ইনিংসেই দুর্দান্ত বল করা কাসুন রাজিথা এবার পেয়ে যান পাঁচ উইকেট। বিশ্ব ফার্নান্দো তিন ও লাহিরু কুমারা পেয়েছেন দুই উইকেট।