ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

‘ভবনে ফায়ার এক্সিট ও অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা না থাকায় এত প্রাণহানি’ 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 13:28, 1 March 2024

‘ভবনে ফায়ার এক্সিট ও অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা না থাকায় এত প্রাণহানি’ 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেইলি রোডে ওই বহুতল ভবনে পর্যাপ্ত ফায়ার এক্সিট ও অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা না থাকায় এত মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। অথচ ফায়ার এক্সটিংগুইশার লাগানো, অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিতে বারবার আমরা নির্দেশ দিচ্ছি। সেটা কিন্তু আর মানা হয়নি। নিয়ম মেনে ভবন নির্মাণ করতে হবে।

শুক্রবার (১ মার্চ) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বীমা দিবসের অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সবাইকে আরও সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, অগ্নিনির্বাপণে সরকারের সব প্রস্তুতি থাকলেও সচেতনতার অভাবে হতাহত বাড়ছে। বেইলি রোডে ওই বহুতল ভবনে পর্যাপ্ত ফায়ার এক্সিট ও অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না। ৪৫ জন মানুষ মারা গেছেন, এর চেয়ে কষ্টের আর কী হতে পারে? অথচ ফায়ার এক্সটিংগুইশার লাগানো, অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিতে বারবার আমরা নির্দেশ দিচ্ছি। সেটা কিন্তু আর মানে না। আর আমি জানি এখানে নিশ্চয়ই ইনস্যুরেন্স নেই, কাজেই তারা কিছু পাবেও না। এসব ক্ষেত্রে সচেতনতাটা খুব বেশি প্রয়োজন।

নিয়ম মেনে ভবন নির্মাণের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, সব সময় আমাদের যারা আর্কিটেক্ট তাদের অনুরোধ করি, আপনারা অন্তত পক্ষে যখন ঘরবাড়ি তৈরি করেন, একটু খোলা বারান্দা, ফায়ার এক্সিট বা ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু যারা (ভবন) তৈরি করতে চায়, আর্কিটেক্টরাও ওরকম ডিজাইন ঠিক মতো করবে না। আবার মালিকরাও এক ইঞ্চি জায়গা ছাড়তে চায় না।

শেখ হাসিনা বলেন, বীমা সম্পর্কে প্রত্যক নাগরিককে সচেতন করতে হবে। বীমা থেকে কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যাবে তা সবাইকে জানাতে হবে।

এ সময় বীমা নিয়ে যারা বাণিজ্য করে তাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, অনেক সময় বিমা নিয়ে অনেকে নানা ধরনের ব্যবসা করেন। এমন কিছু ঘটনা আমি নিজেও ধরেছি। একটা গার্মেন্টসে বারবার আগুন, ঘনঘন আগুন। তদন্তে দেখা গেল ওই গার্মেন্টসের এক কর্মীকে ২০ হাজার টাকা দেয়া হয়। এরপর ৪০ কোটি টাকা দাবি করা হয়। অথচ ৪০ কোটি টাকার মালামাল পুড়েনি। নিজেই আগুন লাগাতো, মোটা অংক দাবি করতো। তবে এ ধরনের অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার।

বিমা সম্পর্কে মানুষকে আরও সচেতন করতে হবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, বিমা আমাদের প্রত্যেকের জীবনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। মানুষের জীবনের বিভিন্ন ঝুঁকি এড়াতে বিমা সহযোগিতা করে। বিমা করলে কী সুবিধা সেটা মানুষকে জানাতে হবে। সামান্য একটা প্রিমিয়াম দিয়ে একটা বিমা করলে পরে কিন্তু অনেক সমস্যা থেকে সমাধান পাওয়া যায়।
 
বিমা দাবি যেন মানুষ সহজে পায়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা দুই নম্বরি করে, তারা বিমার টাকা পেয়ে যায়, কারণ তারা সবকিছু ম্যানেজ করে ফেলে। কেউ যাতে ম্যানেজ করতে না পারে, আর সত্যিকার যাদের প্রাপ্য তারা যেন সহজে পায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে।