ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

বইমেলা থেকে ‘কাচ্চি ভাই’, অবশেষে ২ সন্তানসহ মায়ের মৃত্যু

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 11:23, 1 March 2024

বইমেলা থেকে ‘কাচ্চি ভাই’, অবশেষে ২ সন্তানসহ মায়ের মৃত্যু

পপি পোদ্দার তার মেয়ে আদৃতা ও ছেলে সংকল্পকে নিয়ে গিয়েছিলেন অমর একুশে বইমেলায়। এরপর তারা কাচ্চি পোলাও খাওয়ার জন্য গিয়েছিলেন বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে। সেই যাওয়ার কাল হলো পপি ও তার সন্তানদের জন্য। নির্মম আগুন কেড়ে নিয়েছে মা ও দুই সন্তানের জীবন। 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর বেইলি রোডে বহুতল ভবনে লাগা আগুনে নিহত হয়েছেন এ পর্যন্ত ৪৫ জন। তাদের মধ্যে পরিচয় শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে পপি ও তার সন্তানরাও রয়েছেন। 

শুক্রবার (১ মার্চ) সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে বসে আহাজারি করছিলেন পপির মা বাসনা পোদ্দার এবং ভাই পীযূষ পোদ্দার।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে পীযূষ জানান, তাকে ও তার স্ত্রীকেও খেতে যাওয়ার জন্য ফোন করেছিলেন বোন পপি পোদ্দার। কিন্তু তিনি টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখছিলেন, তাই যাননি।

পীযূষ আরো বলেন, একটু পর আমার বোন ফোন করে ‘আগুন লাগছে’ বলে চিৎকার করতে থাকে। পাশে থাকা ভাগ্নিও চিৎকার করে বলছিল ‘মামা আমাদের বাঁচাও। আমরা বের হতে পারছি না।’ আমি শান্তিনগরের বাসা থেকে এক দৌড়ে গিয়েছি। কিন্তু গিয়ে দেখি রেস্টুরেন্টে শ্মশানের মতো আগুন জ্বলছে। বাইরে থেকে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কিছু করার ছিল না।

পপির মা বাসনা পোদ্দার বলেন, ওরা রেস্টুরেন্ট থেকে বের হতে চেয়েছিল। কিন্তু গেট আটকে রেখেছিল। তাই বের হতে পারেনি। 

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, পপি পোদ্দার ছিলেন গৃহিণী। তার স্বামী শিপন পোদ্দার একজন আবাসন ব্যবসায়ী। বড় মেয়ে আদৃতা সিদ্ধেশ্বরী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়তো। ছেলে সংকল্প উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। 

স্বজনরা জানান, তারা পরিবারের সবাই মিলে আগুন লাগা ওই ভবনের সামনে যান। সেখানে তখন দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছিল। আগুন একটু কমে আসার পর কেউ একজন একটা ব্যাগ দেয় তাদের হাতে। সেই ব্যাগটি দেখে পপির ভ্যানিটি ব্যাগ বলে চিনতে পারেন। ব্যাগে পপির মোবাইল ফোন, আইডি কার্ড, টাকা সবই ছিল।

এদিকে বেইলি রোডের ভয়াবহ আগুনে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টের দুই কর্মী মারা গেছেন। কাচ্চি ভাইয়ের ম্যানেজার জিসান জানান, আমাদের ২৫ জন স্টাফ ডিউটিতে ছিলেন। তাদের মধ্যে দুজন মারা গেছেন। তারা হলেন - জিহাদ হোসেন (২২) ও রকি (২০)। 

তিনি আরো জানান, আগুনের সূত্রপাত হয় ওই ভবনের নিচতলার চুমুক নামে একটি চায়ের দোকান থেকে।

এদিকে রিফাত নামে এক প্রত্যক্ষদর্শীও জানান, আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল নিচতলা থেকে। আগুন ওপরের দিকে উঠতে থাকায় অনেকেই আর ভেতর থেকে বের হতে পারেননি। 

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে বহুতল ওই ভবনটিতে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিস দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।