ঢাকা Sunday, 26 May 2024

সোনা উড়ছে অ্যান্টার্কটিকার বাতাসে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: 19:43, 21 April 2024

সোনা উড়ছে অ্যান্টার্কটিকার বাতাসে

পৃথিবীর সর্ব দক্ষিণের ও সবচেয়ে কম জনবহুল মহাদেশের নাম আন্টার্কটিকা। পৃথিবীর অন্য মহাদেশের মানুষদের এখানে টিকে থাকা খুবই মুশকিল, এর কারণ প্রচণ্ড ঠান্ডা। 

দুর্গম এই মহাদেশের একটি বিশেষ স্থানে বাতাসে উড়ছে সোনা। শুধু তাই নয়, এখানে পাওয়া যাচ্ছে নানা মূল্যবান খনিজ পদার্থও।

অবাক করা এই ঘটনা ঘটছে অ্যান্টার্কটিকার  মাউন্ট এরেবাস সংলগ্ন এলাকায়। এই পাহাড়ের গা বেয়ে গলে গলে পড়ছে সোনা। সঙ্গে থাকছে মূল্যবান নানা খনিজ পদার্থও।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, সংক্ষেপে নাসা, এমন তথ্যই জানিয়েছে। নাসার তথ্য অনুসারে, আন্টার্কটিকায় অবস্থিত এই আগ্নেয়গিরি থেকে উঠে আসছে সোনা ও অন্যান্য বহুমূল্য খনিজ পদার্থ। 

নাসা জানিয়েছে, পৃথিবীর একদম কেন্দ্রস্থল থেকে যে লাভা ফুটে বেরিয়ে আসছে, তার সঙ্গে মূল্যবান বহু খনিজ পদার্থও উঠে আসছে।

তাদের তথ্যমতে, আগ্নেয়গিরি থেকে লাভার সঙ্গে উঠে আসছে সোনা। নাসার হিসাব অনুসারে, আগ্নেয়গিরিটি থেকে প্রতিদিন প্রায় ৮০ গ্রাম করে সোনা উঠে আসছে, যার মূল্য ৬ হাজার মার্কিন ডলারের কাছাকাছি।

তবে এত সোনা আর মূল্যবান খনিজ পদার্থ উঠে এলে তা যে কুড়িয়ে আনবে, এমন সাধ্য কারো নেই। কারণ আগ্নেয়গিরি থেকে গ্যাসের ধাক্কায় ক্রিস্টাল বা স্ফটিকের আকারে সোনা উঠে আসে। আর ফুটন্ত লাভা থেকে সেটা তোলা এক কথায় অসম্ভব। তেমনটা করতে গেলে হাত তো যাবেই, প্রাণটাও চলে যেতে পারে। 

এদিকে আগ্নেয়গিরি থেকে বের হওয়া গ্যাসের ধাক্কায় বাতাসের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে সোনার কণা। এসব কণা বাতাসে ভেসে আগ্নেয়গিরি থেকে ৬২১ মাইল দূরে পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। আর এভাবেই জানা গেছে, সোনা উঠে আসছে আগ্নেয়গিরি থেকে। 

এই ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর নাসা স্যাটেলাইট চিত্রের মাধ্যমে মহাকাশ থেকে আগ্নেয়গিরি থেকে সোনা ওঠার ছবি প্রকাশ করে। কিন্তু সেই সোনা কুড়িয়ে নেয়ার ক্ষমতা এখন পর্যন্ত কারো হয়নি। হয়তো ভবিষ্যতে হলেও হতে পারে।

উল্লেখ্য, মাউন্ট এরেবাস আন্টার্কটিকার সবচেয়ে উঁচু ও জীবন্ত আগ্নেয়গিরি।

সূত্র : টিভি-৯ বাংলা।