ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

ত্রাণ নিতে আসা ফিলিস্তিনিদের ওপর নির্বিচারে গুলি, নিহত ১০৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: 22:30, 29 February 2024

আপডেট: 22:31, 29 February 2024

ত্রাণ নিতে আসা ফিলিস্তিনিদের ওপর নির্বিচারে গুলি, নিহত ১০৪

যুদ্ধ-বিধ্বস্ত গাজায় একটি ত্রাণ বিতরণ পয়েন্টে ফিলিস্তিনিদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে ইসরায়েলি সৈন্যরা। এ ঘটনায় কমপক্ষে ১০৪ জন নিহত এবং ৭০০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) গাজা শহরের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে আল-রশিদ স্ট্রিটে এ গণহত্যার ঘটনা ঘটে। মৃত ও আহতদের নিকটবর্তী আল-শিফা, কামাল আদওয়ান, আহলি এবং জর্ডান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আল-শিফা হাসপাতালের নার্স বিভাগের প্রধান জাদাল্লাহ আল-শাফেই বলেন, অধিকাংশ নিহতদের মাথায় ও শরীরের উপরের অংশে গুলি ও ছুরির আঘাত লেগেছে। তারা সরাসরি আর্টিলারি শেলিং, ড্রোন ক্ষেপণাস্ত্র এবং গুলিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে।

এ হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, এটি একটি ঠান্ডা মাথায় ‘গণহত্যা’ ছাড়া আর কিছুই নয়। বেসামরিক নাগরিকদের রক্ষার একমাত্র উপায় হিসাবে যুদ্ধবিরতি জারির জন্য জরুরি হস্তক্ষেপ করতে জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

ঘটনার বর্ণনা দিতে স্থানীয় এক প্রত্যক্ষদর্শী এএফপিকে বলেছেন, গাজা শহরের পশ্চিম নাবুলসি গোলচত্বরে ত্রাণের ট্রাকের দিকে খাবারের জন্য মরিয়া হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসেন। সেই সময় এই নির্বিচারে বেসামরিকদের ওপর গুলি বর্ষণ করে ইসরায়েলি বাহিনী।

এদিকে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী প্রাথমিকভাবে বলেছিল যে "উত্তর গাজা উপত্যকায় মানবিক সহায়তার ট্রাক প্রবেশের সময়, গাজানের বাসিন্দারা ট্রাকগুলিকে ঘিরে ফেলে এবং সরবরাহ করা সামগ্রী লুট করে"।

এতে যোগ করা হয়েছে যে "ঘটনার সময়, ধাক্কাধাক্কি ও পদদলিত হওয়ার ফলে কয়েক ডজন গাজাবাসী আহত হয়েছে। ঘটনাটি পর্যালোচনা করা হচ্ছে।"

পরে একটি ইসরায়েলি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে এএফপিকে বলেছিল যে, "ভিড় এমনভাবে বাহিনীর কাছে এসেছিল যা সৈন্যদের জন্য হুমকি সৃষ্টি করেছিল।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আশরাফ আল-কুদরা বলেছেন, গাজা শহরের "গণহত্যা" থেকে মৃতের সংখ্যা "নাগরিকদের সমাবেশকে লক্ষ্য করে দখলদার বাহিনীর গুলিতে ১০৪ জন শহীদ এবং ৭৬০ জন আহত হয়েছে। মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে পারে।