ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

বাসযোগ্য নতুন এক গ্রহের সন্ধান

তথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:44, 26 May 2024

বাসযোগ্য নতুন এক গ্রহের সন্ধান

ছবি : সংগৃহীত

দূর আকাশের কোন গ্রহে মানববসতি গড়ে তোলা যায়, তা নিয়ে বিজ্ঞানীরা দিনরাত একাকার করে দিচ্ছেন। মাঝেমধ্যেই নতুন চমক নিয়ে নতুন গ্রহের খোঁজ মেলে আর বিজ্ঞানীরা নতুন আশায় মানববসতি স্থাপনের স্বপ্ন দেখেন। এমনই এক গ্রহের খোঁজ মিলেছে পৃথিবী থেকে ৪০ আলোকবর্ষ দূরে। আবিষ্কৃত এ গ্রহের আকার প্রায় আমাদের গ্রহের সমানই বলে জ্যোতির্বিদেরা দাবি করেছেন। এই গ্রহের উপরিভাগের তাপমাত্রা ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বলে অনুমান করছেন বিজ্ঞানীরা। ঢাকা শহরে গত এপ্রিল-মে মাসে একই রকমের তাপমাত্রা দেখা গেছে।

অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্যের গবেষকদের দল গ্রহটির খোঁজ পেয়েছেন। নতুন এ গ্রহের নাম দেওয়া হয়েছে গ্লিস ১২বি

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানায়, পৃথিবীর মতো আকৃতির এই গ্রহ মানুষের বসবাসযোগ্য বলে মনে করা হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন কুইন্সল্যান্ডের অ্যাস্ট্রোফিজিকস গবেষক শিশির ঢোলাকিয়া গ্রহটির সন্ধানে নেতৃত্ব দিয়েছেন। যুক্তরাজ্যের রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি থেকে আবিষ্কারের খবরটি প্রকাশ করা হয়েছে।

শিশির ঢোলাকিয়া বলেন, পৃথিবী থেকে ৪০ আলোকবর্ষ দূরে নতুন গ্লিস ১২বি গ্রহটির অবস্থান। আমরা বিশ্বের বৃহত্তম স্পেস টেলিস্কোপের মাধ্যমে গ্রহের বায়ুমণ্ডলে কী আছে, তা জানার চেষ্টা করব। এটি পরবর্তীতে আমাদের নিজস্ব সৌরজগতের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে নতুন করে জানতে সহায়তা করবে বলে আশা করি।

আরেক জ্যোতির্বিদ ইউনিভার্সিটি অব অ্যাডিনবার্গের ডক্টরেটের শিক্ষার্থী ল্যারিসা প্যালিথর্প এটিকে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার বলে বর্ণনা করেছেন। বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত নন, ঠিক কী দিয়ে গ্রহটির বায়ুমণ্ডল গঠিত। সেখানে পানির উপস্থিতি আসলে আছে কিনা, সেটিও তারা নিশ্চিত হতে পারেননি।

ল্যারিসা বলেন, তারা ওই গ্রহে গ্রিনহাউস প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করেছেন। তবে পানির উপস্থিতি সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেননি।

গ্রহটিতে কোনো বায়ুমণ্ডল আছে কিনা, তা জানতে বিজ্ঞানীরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর উপরিভাগের তাপমাত্রা ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বলে তারা জেনেছেন। ফলে গ্রহটি বাসযোগ্য হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

গ্রহটি যে শীতল লোহিত বামন নক্ষত্রকে ঘিরে প্রদক্ষিণ করছে, সেটি আকারে আমাদের পৃথিবীর সূর্যের মাত্র ২৭ শতাংশ। এর উত্তাপ সূর্যের মাত্র ৬০ শতাংশ। নক্ষত্রটি সূর্যের চেয়ে বেশ ছোট হওয়া সত্ত্বেও বিজ্ঞানীরা মনে করেন, গ্রহটি বাসযোগ্য হতে পারে। এ গ্রহটি প্রতি ১২ দিন ৮ ঘণ্টায় এর সূর্যকে একবার প্রদক্ষিণ করে। এ ছাড়া নক্ষত্র থেকে গ্রহটি উপযুক্ত দূরত্বে রয়েছে, যেখানে তরল পানি থাকারও সম্ভাবনা আছে।