ঢাকা Sunday, 26 May 2024

চ্যাটজিপিটির ভুল তথ্য, পরীক্ষায় ফেল করলো সব শিক্ষার্থী

তথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক

প্রকাশিত: 17:43, 20 May 2023

চ্যাটজিপিটির ভুল তথ্য, পরীক্ষায় ফেল করলো সব শিক্ষার্থী

ছবি: সংগৃহীত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়নে চ্যাটজিপিটির উপর ভরসা করেছিলেন আমেরিকার এক প্রফেসর। কিন্তু সেই মূল্যায়নে প্রফেসরকে ভুল তথ্য দিয়েছিলো আলোচিত এআই চ্যাটজিপিটি। আর এতে সব শিক্ষার্থীকে ফেল করিয়ে দেন ওই প্রফেসর। কিন্তু পরবর্তীতে পরীক্ষা নিরিক্ষার পর দেখা যায়, চ্যাটজিপিটি নয়, সঠিক ছিলো শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট। খবর ফার্স্টপোস্ট।

ভারতীয় নিউজ ওয়েবসাইট ফার্স্টপোস্ট জানায়, ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাসের এক প্রফেসর ক্লাস অ্যাসাইনমেন্ট করতে দিয়েছিলেন ছাত্রদের। তার ছাত্ররাও সময়মতো তা শেষ করে প্রফেসরের কাছে জমা দেন। কিন্তু ছাত্রদের সেই খাতা নিজে মূল্যায়ন না করে চ্যাটজিপিটির কাছে তুলে ধরেন ওই প্রফেসর। তখন মেশিনটি জানায়, লেখাগুলো কম্পিউটার প্রোগ্রামের জেনারেট করা। আর এআইয়ের এমন তথ্যকে সত্য ধরে ওই সব ছাত্রকে ফেল করিয়ে দেন তাদের শিক্ষক।

পরে পরীক্ষা নিরীক্ষা ও অনুসন্ধানে দেখা যায়, চ্যাটজিপিটির মূল্যায়ন মিথ্যা। ছাত্ররা নিজেরাই তাদের অ্যাসাইনমেন্ট করেছিল এবং মোটেও সেগুলো কোনো কম্পিউটার প্রোগ্রামের লেখা ছিল না। পরে প্রফেসর তার ভুল বুঝতে পেরে ছাত্রদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন এবং তাদেরকে পুনরায় অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেওয়ার জন্য বলেছেন।

তবে সেই প্রফেসরের নাম প্রকাশ করেনি ফার্স্টপোস্ট।

এবারের মতো ছাত্ররা সুযোগ পেলেও এ ঘটনা প্ল্যাজারিজমের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা জাগিয়ে তুলেছে। মৌলিক গবেষণাপত্রের ক্ষেত্রে কোনটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার লেখা ও কোনটি মানুষের লেখা, তা বোঝার যে এখনও গ্রহণযোগ্য কোনো উপায় বের হয়নি, তা স্পষ্ট হয়েছে।

পাশাপাশি চ্যাটজিপিটির মতো বৃহৎ ভাষা মডেল যেমন সম্ভাবনা নিয়ে এসেছে, তেমনি জাগাচ্ছে শঙ্কাও। তবে আর যাই হোক, এখনও এই ধরনের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ওপর পুরোপুরি আস্থা রাখার সময় যে আসেনি, ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাসের এই ঘটনা তারই ইঙ্গিত দেয়।

 

সূত্র: ফার্স্টপোস্ট