ঢাকা Saturday, 15 June 2024

জনগণকে সন্তুষ্ট রাখার জন্য আমরা সব ব্যবস্থাই চালিয়ে যাচ্ছি : কৃষিমন্ত্রী

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 18:09, 27 May 2024

জনগণকে সন্তুষ্ট রাখার জন্য আমরা সব ব্যবস্থাই চালিয়ে যাচ্ছি : কৃষিমন্ত্রী

দেশে দ্রব্যমূল্য সহনশীল অবস্থায় আছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুস শহীদ বলেছেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই। না হলে কিন্তু আপনারা দেখতেন দুদিন পরপর মিটিং-মিছিল এগুলো হতো। আর আমরা তো মিছিল করে করেই এত বড় হয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমাদের দেশের নাগরিকদের অসন্তুষ্ট হওয়ার কোনো কারণ নেই। জনগণকে সন্তুষ্ট রাখার জন্য আমরা সব ব্যবস্থাই চালিয়ে যাচ্ছি।

সোমবার (২৭ মে) দুপুরে কৃষি মন্ত্রণালয়ে দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা ও নিয়ন্ত্রণে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে কৃষিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সময় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার ও বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটুও উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে কৃষিমন্ত্রী বলেন, বোরোতে চালের উৎপাদন ভালো হয়েছে। চালের কোনো ঘাটতি নেই, দামও স্থিতিশীল আছে। আলুর উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে, আমদানি উন্মুক্ত আছে। পেঁয়াজ আমদানি উন্মুক্ত আছে, কোনো সমস্যা হবে না। ডিমের দাম কিছুটা বেশি। হিমাগারে ডিম মজুতের খবর পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি তদারকি করা হবে।

তিনি বলেন, আমরা কিন্তু বসে নেই। আমাদের জেলা প্রশাসক আছেন প্রত্যেক জেলায়, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ হচ্ছে আমাদের। প্রত্যেক সচিব এগুলো মনিটরিং করেন। প্রত্যেক সচিব একবার হলেও ফোন করেন কোনো না কোনো ডিসিকে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, বিশেষত কাঁচাবাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে কৃষিমন্ত্রী বলেন, সাপ্লাই চেইন যদি সঠিকভাবে কাজ করে, আজকের ঝড়-তুফান সাপ্লাই চেইনে প্রভাব ফেলছে। এটা তো আপনার-আমার হাতে নেই।

কৃষি অধিদপ্তর নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী পেঁয়াজের যৌক্তিক মূল্য ৫৩ টাকা কিন্তু পাইকারি বাজারে ৬০-৬৮ টাকা। রসুন ৯৪ টাকা কিন্তু পাইকারি বাজারে ১৯৫-২০৫ টাকা। এই পার্থক্যের কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে কৃষিমন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয় একটা মিনিমাম প্রাইস ঠিক করে দেয় বা যেভাবে করা উচিত। কিন্তু বাজারে যেভাবে সাপ্লাই চেইন বা ডিমান্ড চেইন কাজ করে, সেখানে তো ভ্যারিয়েশন হতেই পারে। এটা তো সব সময়ই হয়!

তিনি বলেন, আপনার বাড়িতে দেখেন, আপনার পাঁচ সন্তান আছে, সবাইকে কিন্তু একই দামের কাপড় দিতে পারবেন না। কম-বেশি হতেই পারে। 

মূল্য নির্ধারণের ব্যাপারটা ভুল কি না জানতে চাইলে কৃষিমন্ত্রী জানান, এটা ভুল নয়। তিনি বলেন, এটা পরিষ্কার।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, যৌক্তিক মূল্য মানে প্রোডাকশন মূল্য। তারপরে কত হাত বদলায় বাজারে আসতে!

গণমাধ্যমকর্মীরা জানতে চান, বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে কৃষিমন্ত্রী নিজে সন্তুষ্ট কি না। জবাবে তিনি বলেন, সব কাজে সন্তুষ্ট হতে হবে এমন তো কোনো কথা নেই।' তিনি আরো বলেন, আমি সন্তুষ্টির কথা বলবো কেন! চেঞ্জিং, ভ্যারিয়েশন অ্যাটিচিউড থাকতে পারে।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা এখানে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে বসেছি যাতে বাজার স্থিতিশীল থাকে, ভোক্তারা যেন যৌক্তিক মূল্যে পণ্য পায়, পণ্যের সরবরাহ ঘাটতি না হয়।